২৩শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

অসুস্থতায় এইচএসসি’র ফরম পূরণ করতে না পেরে হতাশ শিক্ষার্থী, বোর্ডের হস্তক্ষেপ কামনা

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সঞ্জিব দাস, গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ বরগুনা সদরের সরকারি মহিলা কলেজের এক শিক্ষার্থী অসুস্থ থাকায় এবং গুরুতর অপারেশ চলাকালীন সময়ে এইচ.এস.সি পরীক্ষার ফরম পূরণের সময় পার হয়ে যাওয়ায় ফরম পূরণ করতে না পারায় হতাশ হয়ে পড়েছে ভূক্তয়োগী।
জানা যায়, শিক্ষার্থী তমা রানী (১৭) বরগুনা সদরের সরকারি মহিলা কলেজের এইচ.এস.সি পরীক্ষার্থী বরগুনা সদর থানার ৯নং এম বালিয়াতলী ইউনিয়নের আমলকীতলা পরীরখাল গ্রামের বলহরি হাওলাদারের মেয়ে। বলহরি হাওলাদার পেশায় একজন কৃষক। এ বিষয়ে বলহরি হাওলাদার জানান, কয়েকমাস আগে থেকে তার মেয়ে তমা রানী অসুস্থতা বোধ করলে টাকার অভাবে সময় মত মেয়ের চিকিৎসা করাতে পারছিলেন না বলহরি হাওলাদার। পরে তমা রানী গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে ধার দেনা করে টাকা পয়সা জোগাড় করে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেন। ঐ হাসপাতালের ডাক্তার তাকে জরুরী ভিত্তিতে এ্যাপানডিস অপারেশনের জন্য বলেন। সেখানে অপারেশন করাতে গিয়ে বেশ কিছুদিন সময় অতিবাহিত হয়ে যায়। বাড়ি এসে জানতে পারেন তার মেয়ের এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের সময় পার হয়ে গেছে। এমনকি লেইট ফি দিয়ে ভর্তির সময়ও চলে গেছে। এতে ফরম পূরণ করতে না পেরে তারা হতাশ হয়ে পড়েছেন। তিনি আরও জানান, মেয়েটার মুখের দিকে তাকানো যায় না। একদিকে অসুস্থ অন্য দিকে ফরম পূরণ করা হয় নি। মেয়েটা হতাশায় কখন যে কী করে বসে বুঝতে পারছি না। আমি মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ও বরিশাল বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের সদয় দৃষ্টি কামনা করছি। যাতে আমার মেয়েটি বরগুনা সদর মহিলা কলেজ থেকে ২০২৪ সালে এইচএসসি পরীক্ষা দিতে পারে। এ বিষয়ে শিক্ষার্থী তমা রানীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি বরগুনা সরকারি মহিলা কলেজের মানবিক বিভাগের একজন নিয়মিত ছাত্রী। আমার কলেজ রোল ১৪২৪। কলেজের ফরম পূরণের ২ দিন আগে আমি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে আমাকে ঢাকায় নিয়ে অপারেশন করানো হয়। কিন্তু বাড়ি এসে জানতে পারি আমার ফরম পূরণ করার সময় পার হয়ে গেছে। আমার স্বপ্ন আমি একজন বিসিএস ক্যাডার হব। কিন্তু ফরম পূরণ করতে না পারায় আমার সেই স্বপ্ন ধূলায় মিশে যাবে। তাই আমি সবার কাছে ফরম পূরণ করার জন্য আবেদন করছি। এ বিষয়ে বরগুনা পরীরখাল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট নাসির বলেন, বলহরি হাওলাদারের মেয়ে তমা রানী একজন মেধাবী ছাত্রী। মেয়েটি বরগুনা সরকারি মহিলা কলেজে পড়ালেখা করে। অসুস্থতার কারণে মেয়েটা ফরম পূরণ করতে পারে নাই। বোর্ড কর্তৃপক্ষ যদি মেয়েটার ফরম পূরণের ব্যবস্থা করেন তাহলে মেয়েটা পরীক্ষা দিতে পারবে। এ বিষয়ে বরগুনা সরকারি মহিলা কলেজের প্রিন্সিপাল মো. মঞ্জুরুল আলম বলেন, তমা রানী আমাদের কলেজের একজন মেধাবী ও নিয়মিত ছাত্রী। অসুস্থতার কারণে সে ফরম পূরণ করতে পারে নাই। যদি বরিশাল বোর্ডে কাগজপত্র নিয়ে কর্তৃপক্ষের কাছে সকল প্রমানপত্র দাখিল করে এবং বোর্ড কর্তৃপক্ষ সন্তুষ্ট হয়ে তার ফরম পূরণের ব্যবস্থা করে তাহলে সে এ বছর পরীক্ষা দিতে পারবে। তাই আমাদের কলেজ থেকে তাকে প্রত্যয়নপত্র দেয়া হয়েছে।

সর্বশেষ