২০শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম

আমতলীতে জমি নিয়ে বিরোধে বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যা

হারুন অর রশিদ, আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি।
জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে বৃদ্ধ সোনা মিয়া ওরফে শুনু হাওলাদারকে (৭০) তার ফুফাতো ভাই মেনাজ ফকির ও তার লোকজন পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশ নিহত সোনা মিয়ার মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে প্রেরন করেছে। এ ঘটনায় হত্যা মামলার প্রস্ততি চলছে।

জানাগেছে, মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার পূর্ব সোনাখালী গ্রামের সোনা মিয়া হাওলাদারের সাথে তার ফুফাতো ভাই গলাচিপা উপজেলার আমখোলা ইউনিয়নের কাঞ্চনবাড়িয়া গ্রামের মেনাজ ফকিরের সাথে ১ একর জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। আজ বেলা ১১টার দিকে মেনাজ ফকির ওই জমিতে ১৫-২০ জন সন্ত্রাসী নিয়ে ট্রাক্টর দিয়ে জমি চাষাবাদ শুরু করেন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে সোনা মিয়া হাওলাদার তাদের জমি চাষাবাদে বাঁধা প্রদান করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ফুফাতো ভাই মেনাজ ফকিরের নেতৃত্বে মোতালেব, আদম আলী ফকির, মোস্তফা, আবুল মৃধা ও তার সাথে থাকা লোকজন বৃদ্ধ সোনা মিয়া হাওলাদারকে মারধর শুরু করে। বৃদ্ধ সোনা মিয়াকে রক্ষায় তার ছোট ভাই আব্দুর রশিদ হাওলাদার এগিয়ে গিয়ে তাকে রক্ষা করতে পারেনি।
সংবাদ পেয়ে আমতলী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহআলম হাওলাদার ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহত সোনা মিয়া হাওলাদারের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। বিকেলে পুলিশ তার মহদেহ ময়না তদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে প্রেরণ করেন।

এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। এলাকাবাসী বৃদ্ধ সোনা মিয়াকে প্রকাশ্যে দিবালোকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনার সাথে জড়িত সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শি বেশ কয়েকজন জানায়, মেনাজ ফকিরের নেতৃত্বে ১৫-২০ জন সন্ত্রাসী এসে জমিতে চাষাবাদ শুরু করলে বৃদ্ধ সোনা মিয়া হাওলাদার এতে বাঁধা দেয়। একপর্যায়ে তারা সোনা মিয়া হাওলাদারকে পিটিয়ে হত্যা করে। আমরা এ ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি দাবী করছি।

নিহত সোনা মিয়া হাওলাদারের ছোট ভাই আব্দুর রশিদ হাওলাদার বলেন, ভাইকে রক্ষায় আমি এগিয়ে গেলেও সন্ত্রাসীদের হাত থেকে আমার ভাইকে রক্ষা করতে পারিনি। তারা আমার ভাইকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। আমি এ ঘটনায় বিচার চাই।

আমতলী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ শাহআলম হাওলাদার মুঠোফোনে বলেন, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্ততি চলছে। দোষীদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যহত আছে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ