৬ই আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আমতলীতে তালা বদ্ধ ঘরে আগুন লেগে সবকিছু পুড়ে ছাই

বরগুনা প্রতিনিধি :: বরগুনার আমতলী উপজেলার আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের পাতাকাটা গ্রামে তালা বদ্ধ ঘরে রবিবার রাতে আগুন লেগে সবকিছু পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। গৃহকর্তা আইউব আলী হাওলাদারসহ পরিবারের তিন সদস্য জেল হাজতে। তালা বদ্ধ ঘরে আগুন লেগে সবকিছু পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। স্বজনদের অভিযোগ ভিটে মাটি থেকে উচ্ছেদ এবং বাড়ী দখল করতেই প্রতিপক্ষের লোকজন আগুন ধরিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে ঘরটি। খবর পেয়ে পুলিশ ওই রাতেই ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছেন।

জানা গেছে, ১৯৮৯ সালে রেনু বেগম ১ একর ৫০ শতাংশ খাস জমি স্থায়ী বন্দোবস্থ পান। ওই জমিতে ঘর-বাড়ী নির্মাণ করে গত ৩০ বছর ধরে রেনু বেগম ও তার পরিবার বসবাস করে আসছে। গত ১৭ জুন জয়নাল মাতুব্বর ওই জমি তার দাবী করে বরগুনা পারিবারিক আদালতে আইউব আলী হাওলাদার, তার স্ত্রী রেনু বেগম ও ছেলে বশির হাওলাদাকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। আদালতের বিচারক আরিফুর রহমান তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেন। এ মামলায় আইউব আলী তার স্ত্রী রেনু বেগম এবং ছেলে বশির হাওলাদার পুলিশের হাতে প্রেপ্তার হয়ে গত ২ জুন থেকে ১০ দিন ধরে তারা বরগুনা জেল হাজতে রয়েছেন। ওই সুযোগে জমি থেকে উচ্ছেদ ও বাড়ী দখলের জন্য জয়নাল মাতুব্বরের ছেলে নজরুল মাতুব্বর তার সহযোগী লালন ফকির ও আমিনুল ইসলাম রোববার রাত সাড়ে নয়টার দিকে তালা বদ্ধ ঘরে আগুন দেয় বলে দাবী করে আইউব আলীর স্বজনরা। স্থানীয় লোকজন দুই ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। আগুনের লেলিহান শিখায় ঘরটি পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে অন্তত পাঁচ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানান স্বজন ফাতেমা বেগম। খবর পেয়ে ওই রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

প্রত্যক্ষদর্শী শামীম মোল্লা জানান, স্থানীয়রা প্রায় ২ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। ততক্ষনে মালামালসহ ঘর পুরে ছাই হয়ে যায়।

স্থানীয় বাসিন্দা জহিরুল ইসলাম বলেন, বিদ্যুৎ বিহীন তালা বদ্ধ ঘরে কি ভাবে আগুন লেগেছে তা আমাদের বোধগম্য নয়।

প্রতিবেশী হালিমা বেগম বলেন, এই ঘরের তিনজন সদস্যকেই পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে। গত ১০ দিন ধরে ঘরটি তালা বদ্ধ। তাহলে কি ভাবে আগুন লাগে। তিনি আরো বলেন, রাত সাড়ে নয়টার দিকে আগুন জ¦লতে দেখে স্থানীয় লোকজন এসে আগুন নিভায়।

স্বজন ফাতেমা বেগম ও কাজল রেখা অভিযোগ করে বলেন, প্রতিবেশী জয়নাল মাতুব্বর জমি ও বসত ভিটা নিয়ে একটি মিথ্যা মামলা করেছেন। ওই মামলায় গত ২ জুন আমার বৃদ্ধ ভগ্নিপতি, বোন ও বোনের ছেলেকে পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে। তারা গত ১০ দিন ধরে জেল হাজতে রয়েছেন। এই সুযোগে ভিটে মাটি থেকে উচ্ছেদ এবং বাড়ী দখল করতে জয়নাল মাতুব্বর , তার ছেলে নজরুল মাতুব্বর, সহযোগী লালন ফকির ও আমিরুল ইসলাম পরিকল্পিতভাবে ঘরে আগুন ধরিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে। আমরা এ ঘটনার বিচার চাই।

জয়নাল মাতুব্বর ঘরে আগুন দেয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন, আমাকে ফাঁসাতে তারাই ঘরে আগুন দিয়েছে।

আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শাহ আলম হাওলাদার বলেন, খবর পেয়ে ওই রাতেই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ