২৩শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আমতলীতে ভাই কর্তৃক বোন ধর্ষিত!

হারুন অর রশিদ, আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি।
বরগুনার আমতলীতে বাড়ীতে একা পেয়ে একই বংশের চাচাতো ভাই কর্তৃক বোনকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশ ভিকটিমকে উদ্ধার করে ডাক্তারী পরিক্ষার জন্য থানায় নিয়ে এসেছে। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সূত্রে জানা গেছে, গতকাল (শনিবার) বেলা অনুমান ২টার দিকে উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নের কলাগাছিয়া গ্রামে একই বংশের চাচাতো ভাই মজিবর মাতুব্বরের বখাটে পুত্র, ভাড়ায় মোটর সাইকেল চালক মাসুম মাতুব্বর (২০) পার্শ্ববর্তী বাড়ীর চাচাতো বোন ভিকটিমকে (১৮) বাড়ীতে একা পেয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। এসময় ভিকটিমের বাবা মা কেহ বাড়ীতে ছিলেন না। তারা ভিকটিমের নানা বাড়ীতে অবস্থান করছিলো। ভিকটিমের ডাক চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে ধর্ষক মাসুম দৌড়ে পালিয়ে যায়।

বিষয়টি এলাকাবাসীর মধ্যে জানাজানি হলে স্থাণীয়ভাবে মিমাংসার চেষ্টা করা হয়। ঘটনার দিন সন্ধ্যার পরে আমতলী থানায় সংবাদ পৌছলে থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রণজিৎ কুমার সরকারের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে ভিকটিমকে উদ্ধার করে। জিজ্ঞাষাবাদে পুলিশের কাছে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করায় ভিকটিমকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য আমতলী থানায় নিয়ে আসা হয়।

এ ঘটনায় ধর্ষকের বিরুদ্ধে আমতলী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। পরবর্তি আইনি পদক্ষেপের জন্য আজ (রবিবার) ভিকটিমকে আদালতে পাঠানো হবে।

ভিকটিমের মা বলেন, আমার মেয়েকে বাড়ীতে রেখে আমি এবং মেয়ের বাবা আমার বাপের বাড়ী গিয়েছিলাম। এ সুযোগে বাড়ীতে মেয়েকে একা পেয়ে আমার চাচাতো ভাসুরের বখাটে পুত্র মাসুম ধর্ষণ করেন। আমি আমার মেয়ের চরম সর্বনাশকারীর কঠোর বিচার দাবী করছি।

আমতলী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রণজিৎ কুমার সরকার মুঠোফোনে বলেন, ঘটনাস্থলে পৌছে সত্যতা পেয়ে ভিকটিমকে উদ্ধার করে ডাক্তারী পরিক্ষার জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।

আমতলী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহআলম হাওলাদার বলেন, এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। পরবর্তি আইনি পদক্ষেপের জন্য ভিকটিমকে আজ আদালতে পাঠানো হবে। তিনি আরো বলেন, ধর্ষককে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ