২৪শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে ডিজিটাল সামাজিক উদ্যোগ ‘এসো সবাই’

বৈশ্বিক করোনাভাইরাসের প্রভাবে বাংলাদেশে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য কাজ করে যাচ্ছে ডিজিটাল সামাজিক উদ্যোগ ‘এসো সবাই’। অনলাইনের মাধ্যমে অনুদান সংগ্রহের পাশাপাশি বিতরণেও প্রযুক্তিকে ব্যবহার করছে এসো সবাই। প্রথম ধাপে করোনা মোকাবিলায় সরাসরি দায়িত্ব পালন করে আসা স্বাস্থ্যকর্মী এবং গণমাধ্যমকর্মীদের মাঝে ২০০টি পিপিই বিতরণ করেছে সংস্থাটি।

সম্প্রতি ছয় উদ্যোক্তার মাধ্যমে যাত্রা আরম্ভ করে ‘এসো সবাই’। তাদের মাঝে আছেন গীতিকবি আসিফ ইকবাল, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিসের) পরিচালক দিদারুল আলম সানি, একই সংগঠনের ডিজিটাল মার্কেটিং বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান রিসালাত সিদ্দীক, কনসিটো পিআর এর নির্বাহী পরিচালক মেহজাবীর ফেরদৌস, সংগীতশিল্পী মাহাদি ফয়সাল এবং সংগীত প্রযোজক অদিত রহমান। এছাড়াও এই কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত আছেন প্রায় শতাধিক ব্যবসায়ী ও মিডিয়া ব্যক্তিত্বসহ বিভিন্ন খাতের প্রতিষ্ঠিত পেশাজীবীরা।

এসো সবাই সূত্রে জানা যায়, ইতিমধ্যে প্রাতিষ্ঠানিক এবং ব্যক্তি উদ্যোগ মিলিয়ে মোট ৬৩ সংখ্যক দাতার কাছ থেকে ১২ লাখ ৮৩ হাজার ৪৮১ টাকা অনুদান সংগ্রহ করা হয়েছে। দাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর মাঝে আছে আইপিডিসি, জুম শেপার, লাইফবয়, মারিকো, ইপিলিয়ন, ইভ্যালি ইত্যাদি। এছাড়াও ২০০টি পার্সোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই) অনুদান হিসেবে দিয়েছে ফরটিস গ্রুপ। সংস্থাটির সাথে সংশ্লিষ্টদের আশা প্রায় এক কোটির বেশি অর্থ অনুদান হিসেবে সংগ্রহ করতে পারবে এসো সবাই।

সংগৃহীত অনুদান থেকে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা করছে এসো সবাই। রাজধানী ও রাজধানীর বাইরে গাইবান্ধা, কুড়িগ্রামসহ বিভিন্ন জেলার মানুষের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে খাদ্য সামগ্রী। পাশাপাশি করোনা পরিস্থিতিতে যারা সরাসরি সেবা খাতে বাড়ির বাইরে কাজ করছেন এমন ২০০ জন পেশাজীবীকে দেওয়া হয়েছে পিপিই। বিভিন্ন হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী এবং গণমাধ্যমকর্মীদের মাঝেও বিতরণ করা হয়েছে পিপিই।

এসো সবাই এর সার্বিক বিষয় নিয়ে বেসিস পরিচালক এবং এসো ডটকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দিদারুল আলম সানি বলেন, চলমান সংকট নিরসনের ক্ষেত্রে যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিতের মাধ্যমে তথ্য প্রযুক্তি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। তেমনই লক্ষ্য থেকে আমরা ছয় জন মিলে সম্পূর্ণ অনলাইন এবং ডিজিটাল ভিত্তিক এই সামাজিক উদ্যোগটি নিয়ে কাজ শুরু করি। আমাদের সঙ্গে বিভিন্ন পেশার শতাধিক ব্যক্তিরা আছেন। সম্প্রতি ইউটিউবে প্রকাশিত এক গানের মাধ্যমে তারা সবাই এসব ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে অন্যদের এগিয়ে আসতে আহ্বান জানিয়েছেন।

‘এসো সবাই এর মাধ্যমে করোনা পরিস্থিতিতে যারা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, কাজ হারিয়ে কর্মহীন হয়েছেন তাদের জন্য আমরা প্রযুক্তির মাধ্যমে অনুদান সংগ্রহ করে তাদের মাঝে বিতরণ করতে পারছি। আবার সামাজিক দূরত্বও নিশ্চিত থাকছে। আবার আমাদের কার্যক্রমের স্বচ্ছতাও থাকছে। ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি, আমাল ফাউন্ডেশন, অভিযান্ত্রিক ফাউন্ডেশন এবং বিদ্যানন্দসহ আরও কিছু সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে সাহায্য বিতরণ করছি আমরা।

সানি আরও বলেন, প্রথম ধাপে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশাপাশি আমরা ২০০ জন করোনা যোদ্ধাদের জন্য পিপিই দিয়েছি। চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন পেশার মানুষজন এই সময়ে মাঠে থেকে নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে। আমরা আমাদের সাধ্যমত করার চেষ্টা করবো। প্রথম ধাপ দিয়ে শুরু করলাম।

এসো সবাই এর অন্যতম পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ইকমার্স ভিত্তিক দেশিয় মার্কেটপ্লেস ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ রাসেল বলেন, দেশিয় উদ্যোগ হিসেবে ইভ্যালি সবসময়ই দেশ ও জাতির প্রতি নিজেদের কর্তব্য এবং দায়বদ্ধতা অনুভব করে। সংকটকালীন এই সময়ে আমরা আমাদের সীমিত সামর্থ্য থেকে যতটুকু সম্ভব সবার সাহায্যে এগিয়ে আসতে চাই।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ