৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় আদালতে মামলা

গৌরনদী প্রতিনিধি:
বরিশালের গৌরনদী উপজেলার মাহিলাড়া ইউনিয়ন পরিষদের ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য ও ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা মোঃ জসিম উদ্দিন হাওলাদারকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। বরিশাল বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ইউপি সদস্যের পিতা মানিক হাওলাদার বাদী হয়ে রবিবার দুপুরে মামলাটি মামলাটি দায়ের করেন। মামলার আসামীরা হলো- একই ইউনিয়নের পূর্ব বেজহার গ্রামের মৃত আনোয়ার রাঢ়ীর ছেলে রাসেল রাঢ়ী, আরিফুল ইসলাম রাশেদ, রাজিব রাঢ়ী, মাসুদ রাঢ়ী, একই গ্রামের রশিদ তালুকদারের ছেলে করিম তালুকদার, মিলন তালুকদার, ভাষাই সিকদারের ছেলে আনোয়ার সিকদার, জামাল হাওলাদারের ছেলে রবিন হাওলাদার সহ মোট ১৩ জন। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে গৌরনদী মডেল থানার ওসিকে এজাহার হিসেবে গণ্য করতে নির্দেশ দিয়েছেন।
মামলার এজাহার ও বাদী সূত্রে জানা গেছে, ইউপি সদস্য জসিম উদ্দিনের সাথে বালু ব্যবসা নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত আসামীদের সাথে বিরোধ চলে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় গত রবিবার (১২ জুন) বিকেলে পূর্বপরিকল্পিত ভাবে শরিফাবাদ এলাকার মোল্লার খাল ভেরিপার এলাকায় বসে ইউপি সদস্যকে হত্যার উদেশ্যে কুপিয়ে গুরুত্বর জখম করে আসামী রাসেল রাঢ়ী ও তার সহযোগীরা।
শেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত ইউপি সদস্য জসিম উদ্দিন হাওলাদারকে সোমবার দুপুরে অভিযোগ করে বলেন, মামলার ১নং আসামী রাসেল রাঢ়ী আগৈলঝাড়া উপজেলার গৈলা ইউনিয়ন ভূমি কার্যালয়ে অফিস সহায়ক হিসেবে কর্মরত। সে অধিকাংশ সময় অফিসে না গিয়ে এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে যাচ্ছেন। সরকারী চাকুরীর বিধিমালা ভঙ্গ করে একের পর সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে বেরাচ্ছে। ইতিমধ্যে সে (রাসেল) মাহিলাড়া এলাকার রানা তালুকদার নামের একজন ডিস ব্যবসায়ীর ডিস লাইন দখল করে নিয়েছে। গত কয়েক মাস পূর্বে গৌরনদী পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএমের উপর হামলার ঘটনা ঘটে। সেই হামলায় রাসেল রাঢ়ী সরাসরি অংশগ্রহন করে। এছাড়াও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান থেকে শুরু করে মেম্বারাও সন্ত্রাসী রাসেলের হামলার হাত থেকে রেহাই পাচ্ছেনা। এমনকি তার ভাই আরিফুল ইসলাম রাশেদ রাঢ়ী খাদ্য অফিসে চাকুরী করেও এলাকায় বসে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে বেরাচ্ছে। সরকারী চাকুরীর বিধিমালা ভঙ্গ করে একের পর এক সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ঘটিয়ে আসলেও রহস্যজনক কারনে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছেনা।
গৌরনদী মডেল থানার ওসি মোঃ আফজাল হোসেন জানান, আদালতের নির্দেশনা এখনো হাতে পাইনি। নির্দেশনা হাতে পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ