২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ইন্দুরকানিতে মিটিং-এ ইউপি চেয়ারম্যানের সমালোচনা আ’লীগ নেতাকে পিটিয়ে আহত

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

পিরোজপুর প্রতিনিধি: পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে যুবলীগের কর্মী সভায় আ’লীগ নেতা ইউপি চেয়ারম্যানের সমালোচনা করায় রঞ্জন কুমার মজুমদার (৫১) নামের এক ওয়ার্ড আ’লীগ সাধারন সম্পাদককে মারধর করে গুরুতর আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। হামলায় আহত ওই আ’লীগ নেতাকে চিকিৎসার জন্য খুলনার একটি বেসরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার (০৪ নভেম্বর) রাতে উপজেলার পত্তাশি ইউনিয়নের চরনি পত্তাশি গ্রামে । হামলায় আহত ওই আ’লীগ নেতা নব গঠিত পত্তাশি ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সাধারন সম্পাদক।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার বিকালে উপজেলার চরনি পত্তাশী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্থাণীয় ওয়ার্ড যুবলীগের কর্মী সভায় বক্তব্য রাখেন আ’লীগ নেতা রঞ্জন কুমার মজুমদার। এ সময় তিনি স্থাণীয় আ’লীগ নেতাদের সহ স্থাণীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সমালোচনা করে বক্তব্য দেন। এতে ক্ষিপ্ত হন চেয়ারম্যানের লোকজন। সভার মধ্য থেকেই কয়েকজন নেতাকর্মী আ’লীগ নেতা রঞ্জনকে ইউপি চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেনের কাছে ক্ষমা চাইতে বলেন। আ’লীগ নেতা রঞ্জন ক্ষমা না চেয়ে বের হয়ে গেলে ওই রাতের ৮টার দিকে স্থাণীয় সুন্দর আলীর দোকানের সামনে বসে কয়েক জন দলীয় কর্মী তার উপর হামলা করে। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। এসময় ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ নেতা শাহজাহান এগিয়ে আসলে তাকেও হামলাকারীরা লাঞ্চিত করে।
আহত রঞ্জন কুমার মজুমদার মুঠো ফোনে জানান, ওই সভায় বক্তব্য দেয়ার পর আমি মিটিং স্থল উত্তেজিত হওয়ায় আমি বাড়ি চলে যাচ্ছিলাম। এসময় সুন্দর আলীর দোকান সংলগ্ন স্থানে পৌঁছলে লাঠি হাতে করে ৩ দলীয় কর্মী আমাকে ডেকে সভাস্থলে গিয়ে চেয়াম্যানের কাছে মাফ চাইতে বলেন। আমি না গেলে তারা আমাকে পিটিয়ে আহত করে।
ইউপি চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন ওই আ’লীগ নেতার উপর হামলায় নিজের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, তাকে কে বা কারা পিটিয়ে আহত করেছে তা আমার জানা নেই। তবে সে নিজে ওই হামলায় আমার সংশ্লিষ্টতার কথা বলতে পারবে না। বরং ওই রাতে আমিই তার উন্নত চিকিৎসার জন্য সকল ব্যবস্থা করে খুলনা প্রেরন করেছি।
ওই ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি আলী আজগর ওই আ’লীগ নেতার উপর হামলার ঘটনা স্বীকার করে জানান, ঘটনাটি ঘটেছে মিটিংএর বাহিরে। তাই হামলাকারীদের পরিচয় সনাক্ত করা যায় নি। তবে এমন হামলার বিচার দাবী করছি।
এ বিষয়ে ইন্দুরকানী থানার ওসি মো. হুমায়ুন কবির জানান, শুনেছি ওই ওয়ার্ড আ’লীগ নেতা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সহ স্থাণীয় দলীয় রাজনীতি নিয়ে কিছু বক্তব্য দিয়েছেন। যা কারো মনে আঘাত লাগায় তার উপর হামলা করা হয়েছে। তবে ভুক্ত ভোগী ওই নেতা কারো কোন নাম বলতে পারেন নি। এ ছাড়া এ ব্যাপারে এখানো কোন লিখিত অভিযোগ পাই নি। অভিযোগ পেলে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সর্বশেষ