১৭ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
সপরিবারে মানবেতর জীবন যাপন করছেন ঐতিহ্যবাহী এ.কে স্কুলের প্রধান শিক্ষক চরমোনাই পীর, ভিপি নুর ও ড.কামালকে দালাল হিসেবে ব্যবহার করছে সরকার চরফ্যাসনে আলোকিত সকাল পত্রিকার ৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন পটুয়াখালী প্রেসক্লাবের অর্ধ বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত চরফ্যাসনে আলোকিত সকাল পত্রিকার ৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন খুলনার তরুণীকে কুয়াকাটায় আবাসিক হোটেলে আটকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ১ শেখ রাসেল দিবস উদযাপন উপলক্ষে বাবুগঞ্জে প্রস্ততি সভা অনুষ্ঠিত বাবুগঞ্জে খাদ্য দিবস উপলক্ষে অলোচনা সভা অনুষ্ঠিত সারাদেশে আরও ১৮৩ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি কোরআন সম্পর্কে অশালীন ও কুৎসিত পোষ্টঃ গৌরনদীতে ‘মহানন্দ বাড়ৈ’ আটক

ইন্দুরকানীতে নয় বছরেও সেতুতে নেই ল্যাম্পপোষ্ট, পথচারীদের ভোগান্তি

অনলাইন ডেস্ক :: ২০১৩ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন পিরোজপুর জেলার ইন্দুরকানী উপজেলার বলেশ্বর নদীর উপর নির্মিত ৩৫০ মিটার দীর্ঘ এবং ১০ মিটার প্রসস্থ শহীদ ফজলুল হক মনি সেতু। স্থানীয়ভাবে পরিচিত জিয়ানগর ব্রীজ হিসেবে।

সেতু চালুর দীর্ঘ নয় বছরেও ল্যাম্পপোষ্ট দেয়া হয়নি সেতুটিতে ৷ আর ল্যাম্প পোষ্ট না থাকায় ভোগান্তির শেষ নেই রাতের পথচারী ও যানবাহনের।

যখন সন্ধ্যা নামে, ঘুটঘুটে আঁধার নেমে আসে সম্পূর্ন সেতু জুড়ে। নীরব ঘুটঘুটে অন্ধকার চারপাশ। বেড়ে যায় পথচারীদের আতঙ্ক। দীর্ঘ এ সেতুতে ল্যাম্প পোষ্ট না থাকায় প্রায়ই ছিনতাইসহ বিভিন্ন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে এখানে।

উল্লেখ্য যে, সেতুটি ব্যবহার করে দক্ষিণাঞ্চলের হাজার হাজার ব্যবসায়ীসহ সকল স্তরের লোকজন ঢাকাসহ বিভিন্ন জায়গায় যাতায়াত করে। সেতুটি নির্মিত হওয়ায় ইন্দুরকানী উপজেলার সঙ্গে পিরোজপুর জেলা সদরের যোগাযোগ ব্যবস্থার ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। স্থানীয় ব্যবসায়ীদের স্বল্প খরচে স্বল্প সময়ের মধ্যে পণ্য পরিবহণ করা সহজ হচ্ছে। ল্যাম্প পোষ্ট না থাকায় বিভিন্ন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা নিত্য যন্ত্রণা কারণ এখন এসব মানুষের।

স্থানীয় সাধারণ মানুষের এ বিষয়ে অভিযোগের অন্ত নেই। ব্রিজ পার হয়ে যাওয়ার পথে বিভিন্ন সময় বখাটে ছেলেদের উৎপাত দেখা যায়।

স্থানীয় মনজিলা বলেন, আমার দুই মেয়ে – মারজান ও তুহফা। তাদের নিয়ে সন্ধার পরে সেতু পার হতে ভয় করে। বেশি রাতে তো আরও খারাপ অবস্থা। সেটা সবার ক্ষেত্রেই হয়তো।

স্থানীয় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ঈসা হাওলাদার বলেন, আমাদের মতো ব্যবসায়ীদের বিপত্তি সবার থেকে বেশি৷ সব সময়ই ভয় কাজ করে। দীর্ঘ সেতু কিন্তু আলো নেই রাতে।

অটোচালক সেলিম গাজী বলেন, সেতুটি এতো বছর পার হলেও ল্যাম্প পোষ্ট নেই। ভুক্তভোগী আমরা আর পথচারী মানুষ। সন্ধ্যা নামলেই এখানে পুরো অন্ধকার।

পিরোজপুরের সড়ক ও জনপথ বিভাগের প্রকৌশলী মাসুদ মাহমুদ জানান, শহীদ শেখ ফজুলল হক মনি সেতুর উপরে ল্যাম্পপোষ্টের জন্য স্টিমেট তৈরি হচ্ছে। আশা করছি অনুমোদন পেলে টেন্ডারের মাধ্যমে কাজ শুরু করা হবে।

এ বিষয়ে ইন্দুরকানী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লুৎফন্নেছা খানম জানান , এ সেতুর উপরে ল্যাম্পপোষ্ট অতীব জরুরী। ল্যাম্পপোষ্ট না থাকার কারণে রাতের আধারে পথচারী ও যানবাহন চলাচলে ভোগান্তির স্বীকার হতে হয়। আমরা যত দ্রুত সম্ভব সমাধানের চেষ্টা করবো।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ