২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ইন্দুরকানীতে ভ্যান চালকের মেয়েকে ধর্ষণ, আ.লীগ নেতা গ্রেফতার

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

পিরোজপুর প্রতিনিধি :: পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে ভ্যান চালকের মেয়েকে ধর্ষণ মামলায় আওয়ামীলীগ নেতা গ্রেফতার হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যা রাতে উপজেলার পত্তাশী এলাকা থেকে পত্তাশী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি জিল্লুর রহমান শান্তি (৫২) কে গ্রেফতার করে ইন্দুরকানী থানার পুলিশ।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, একই এলাকার ভ্যান চালক মাহবুবুল হাওলাদারের নবম শ্রেণীতে পড়ুয়া মেয়েকে গত জানুয়ারী মাসে পাশ্ববর্তী মোড়েলগঞ্জ উপজেলার কালিকাবাড়ী গ্রামের ছলেমান শেখের ছেলে জসিম উদ্দিন শেখের সাথে বিবাহ হয়। বিবাহের ২মাস পরে ১৯ শে এপ্রিল গৃহবধূর স্বামী বাড়িতে না থাকায় কৌশলে জিল্লুর রহমান শান্তি মোটরসাইকেলে করে গৃহবধূকে তুলে নিয়ে আসে। ঘটনাটি জানাজানি হলে গৃহবধূর স্বামী জসিম উদ্দিন তাৎক্ষনিক তার শশুর বাড়ীতে এসে জিল্লুর রহমান তার স্ত্রী অপহরণ করেছেন তা নিশ্চিত করেন। তাকে উদ্ধারের জন্য বিভিন্ন ভাবে চেষ্ঠা করেন। উদ্ধারে ব্যার্থ হয়ে মোড়েলগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। গৃহবধূর বাবা জিল্লুর রহমান শান্তির কাছে মেয়েকে চাইলে সে বিভিন্ন অযুহাত দিয়ে তাকে বিদায় করে দেয় এবং থানায় অভিযোগ না দিতে গৃহবধূর বাবাকে দলীয় প্রভাব খাটিয়ে হুমকি দেয়। এলাকায় একাধীকবার মিমাংসা করার জন্য ব্যাবস্থা হলেও কোন ফয়সালা না হলে মেয়ের বাবা ১৩ আগষ্ট ইন্দুরকানী থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন। তারই সূত্র ধরে ইন্দুরকানী থানা পুলিশ মঙ্গলবার গৃহবধূকে চট্রগ্রাম থেকে উদ্ধার করেন।

মেয়ের বাবা মাহবুবুল হাওলাদার জানায়, আমার মেয়েকে অপহরণ করে পাশ্বর্বর্তী মোড়েলগঞ্জ উপজেলায় জিল্লুর রহমান শান্তির বোন বাড়ীতে নিয়ে বিবাহের নাটক সাজিয়ে সেখান থেকে চট্রগ্রাম নিয়ে রাখেন। পরে বিবাহের কথা অস্বীকার করেন ও ভয়ভীতি দেখান। আমার মেয়ে জিল্লুর রহমান শান্তির হাতে ধর্ষণের স্বীকার হয় এবং মেয়েকে আটক রেখে বিভিন্ন ধরণের শারীরিক নির্যাতন চালায় ।

ইন্দুরকানী থানার ওসি মাঃ হুমায়ুন কবির জানান, মেয়ের বাবা মাহাবুবুল হাওলাদার বাদী হয়ে থানায় ধর্ষণ ও অপহরণ মামলা করেন। অভিযুক্ত জিল্লুর রহমান শান্তিকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। ভিকটিমকে মেডিকেল চেকাপের জন্য পাঠানো হয়েছে।’’

সর্বশেষ