৭ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ইয়াসমিন ট্রাজেডি দিবস আজ

 

নাজমুল হক মুন্না ::

আজ ইয়াসমিন ট্রাজেডি দিবস। ২৪ বছর আগে এই দিনে দিনাজপুরে পুলিশ সদস্যের হাতে ধর্ষণ ও হত্যার শিকার হয়েছিল ইয়াসমিন। তখন থেকেই দিনাজপুরসহ সারাদেশে ‘নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস’ হিসেবে দিবসটি পালিত হয়ে আসছে।

১৯৯৫ সালের ২৪ আগস্ট ভোরে ঢাকা থেকে ঠাকুরগাঁওগামী নৈশ কোচের সুপারভাইজার ইয়াসমিনকে কাহারোল উপজেলার দশমাইল মোড়ে একটি চায়ের দোকানের সামনে নামিয়ে দেন। কিছুক্ষণ পরই সেখানে টহল পুলিশের একটি দল পৌঁছে ইয়াসমিনকে দিনাজপুর শহরে পৌঁছে দেয়ার কথা বলে পিকআপ ভ্যানে তোলে।

এরপর পুলিশ দশমাইল সংলগ্ন সাধনা আদিবাসী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ইয়াসমিনকে ধর্ষণের পর হত্যা করে মরদেহ সড়কের পাশে ফেলে রেখে যায়। এ ঘটনার প্রতিবাদে দিনাজপুরের সর্বস্তরের মানুষ বিক্ষোভে ফেটে পড়ে এবং কোতোয়ালি থানা ঘেরাও করে।

এ সময় পুলিশ বিনা উস্কানিতে বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালিয়ে সামু, সিরাজ, কাদেরসহ সাতজনকে হত্যা করে। এতে আহত হন প্রায় তিন শতাধিক মানুষ। পরে বিক্ষুব্ধরা তিনটি পুলিশ ফাঁড়ি, চারটি পিকআপ ভ্যান জ্বালিয়ে কোতোয়ালি থানায় আক্রমণ করে। শহরের আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থা পুরোপুরি ভেঙে পড়ে। তখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনতে কারফিউ জারি করা হয় এবং শহরে নামানো হয় বিডিআর (বর্তমান বিজিবি)।

তৎকালীন রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার দোষীদের বরখাস্ত ও গ্রেফতার এবং এসপি মোতালেব হোসেন, ডিসি আব্দুল জব্বারসহ কোতোয়ালি থানায় সব পুলিশ সদস্যদের প্রত্যাহারের ঘোষণা দিলে পরিস্থিতি শান্ত হয়। পরবর্তীতে এ ঘটনায় ১৯৯৭ সালের ৩১ আগস্ট রংপুরে বিশেষ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক পুলিশের এএসআই মইনুল হোসেন, কনস্টেবল আব্দুস সাত্তার ও পিকআপ ভ্যানচালক অমৃত লালকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেয়।

দণ্ডিত আসামির মধ্যে মইনুল ও আব্দুস সাত্তারকে ২০০৪ সালের ১ সেপ্টেম্বর রাত ১২টা ১ মিনিটে ও ২৯ সেপ্টেম্বর একই সময় অমৃত লালকে রংপুর জেলা কারাগারের অভ্যন্তরে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

অপরদিকে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তৎকালীন এসপি আব্দুল মোতালেব, ডা. মহসীন, এসআই মাহতাব, এসআই স্বপন চক্রবর্তী, এএসআই মতিয়ার ও এসআই জাহাঙ্গীরকে খালাস দেয় আদালত।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ