১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
তালতলীতে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি ব্রাজিলের হারে অজ্ঞান হয়ে হাসপাতালে বরগুনার এক সমর্থক ! নয়াপল্টনে পুলিশের সরব অবস্থান ! বিএনপি অফিসের ফটকে তালা সেমিফাইনালে যুদ্ধ হবে আর্জেন্টিনা-ক্রোয়েশিয়া ! বাদ পড়লো ব্রাজিল-নেদারল্যান্ডস ব্রাজিলকে কাঁদিয়ে সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়া ঢাকা-বরিশাল রূটের চারটি লঞ্চের যাত্রা বাতিলঃ বিএনপি বলছে সরকারের চক্রান্ত বরিশাল নগরীতে ঝুঁকিপূর্ন ভবনমালিক কতৃক পুকুর ভরাটের পায়তারা ! পাইলসের রোগীর অপারেশন হয়েছে জিহ্বায় ! ডাক্তার বললেন, ভুল হয়েছে... অন্যায় ও বিতর্কের বাইরে থেকে মানবাধিকার কর্মীদের কাজ করতে হবে : কেসিসি মেয়র বাকেরগঞ্জে বৃদ্ধা নারীকে হত্যার চেষ্টা, শেবাচিমে ভর্তি!

কলাপাড়ার সেই নারী ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তাকে বদলি

পটুয়াখালী প্রতিনিধি ::: পটুয়াখালীর কলাপাড়ার আলোচিত সেই নারী ইউনিয়ন ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা তানিয়া আক্তার মুক্তাকে অবশেষে বদলি করেছে জেলা প্রশাসন। খেপুপাড়া ইউনিয়ন ভূমি অফিস থেকে সরিয়ে তাকে গলাচিপা উপজেলার পাতাবুনিয়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসে বদলি করা হয়েছে। জনস্বার্থে এ আদেশ জারি করা হয়েছে।

পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন স্বাক্ষরিত ২১ সেপ্টেম্বরের অফিস আদেশে এ তথ্য জানা গেছে।

এর আগে তানিয়া আক্তার মুক্তার বিভিন্ন দুর্নীতি ও জালিয়াতির তদন্ত শুরু করে জেলা প্রশাসন। জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর আসাদুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ তথ্য জানা যায়।

এদিকে উপজেলার তুলাতলি গ্রামের জনৈক মো. ইউনুস খেপুপাড়া ভূমি অফিসের ইউনিয়ন ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা তানিয়া আক্তার মুক্তার বিরুদ্ধে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসকের কাছে জাল খাতিয়ান খুলে ২০ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ করেন।

এরপর জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন অভিযোগের বিষয়ে তদন্তের নির্দেশ দেন। উক্ত অভিযোগের অনুলিপি মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ, চেয়ারম্যান, দুদক প্রধান কার্যালয়, ঢাকা ও বিভাগীয় কমিশনার, বরিশাল, বরাবর পাঠানো হয়।

অভিযোগে বলা হয়, সোনাতলা মৌজার ১ নম্বর সরকারি খাস খতিয়ানের জমি নিয়ে ইউনিয়ন ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা জাল জালিয়াতিভাবে ৫৯১/১ নম্বর ভুয়া খতিয়ান সৃষ্টি করেন। অতঃপর রেজিস্ট্রারে অন্তর্ভুক্ত করে ১৬৪৪৩০ নম্বর খাজনা দাখিলা প্রদান করেন। এতে ঢাকার কোম্পানির কাছে একটি চক্র সরকারি জমি এক কোটি টাকায় বিক্রি করে আত্মসাত করে।

কলাপাড়া সহকারী কমিশনার (ভূমি) জগৎবন্ধু মন্ডল বলেন, “ইউনিয়ন ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা তানিয়া আক্তার মুক্তার দুর্নীতির বিষয়ে তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। শিগগিরই প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।’

নীলগঞ্জ ইউনিয়নের ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা তানিয়া আক্তার মুক্তা, ২০১৯ সালের ৮ মে সোনাতলা মৌজার এসএ ২ নম্বর সিটভুক্ত ১১৮৬, ১১৮৭ নদীর দাগের ২ দশমিক ৮৭ একর জমির, ১৩৭৯ থেকে ১৪২৫ পর্যন্ত, ৪৬ বছরের ভূমি উন্নয়ন কর রসিদ দেন আম্বিয়া খাতুনের নামে।

অফিসে সংরক্ষিত উক্ত রসিদের কার্বন কপিতে সেটেলমেন্ট খতিয়ানের পরিবর্তে রেকর্ডীয় খতিয়ান ৯১ লেখা রয়েছে। জমির পরিমানও পাল্টে ১ দশমিক ৮৭৫০ এবং কর আদায়ের সাল ১৩৭৯-৯৭ লেখা রয়েছে। অথচ সোনাতলা মৌজার রেকর্ডীয় ৯১ খতিয়ানের মালিক আছিয়া খাতুন।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ