৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

কোথাও আতঙ্ক নেই, সম্পূর্ণ শান্ত বলেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক : কুমিল্লা ঘটনায় সিসিটিভি ফুটেজ দেখে দায়ী ব্যক্তিকে শনাক্ত হয়েছে। এখন দেশের কোথাও কোনো আতঙ্ক নেই এখন পরিবেশ সম্পূর্ণ শান্ত রয়েছে সবাই যে যার কাজে ফিরে গেছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। আজ বৃহস্পতিবার(২১ অক্টোবর) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বলপ্রয়োগে বাস্তুচ্যুত মায়ানমার নাগরিকদের সমন্বয়, ব্যবস্থাপনা  ও আইন শৃংখলা সম্পর্কিত জাতীয় কমিটির সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

কুমিল্লার থেকে পীরগঞ্জ ঘটনায় সারা দেশের সনাতম ধর্মালম্বীদের মধ্যো আতঙ্ক কমেনি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে কী করবেন, আবার যেকোনো সময় এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটতে পারে, এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আপনি বললেন আতঙ্ক কমেনি, আমি বলি আতঙ্ক নেই এখন। ঢাকা শহরের কোথায় আতঙ্ক নেই। কুমিল্লা শহরেরও কোথাও আতঙ্ক নেই এগুলো একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটিয়েছে। আমি বলবো উদ্দেশ্যমূলকভাবে ঘটিয়েছে। এই ঘটনা ঘটানোর পর আকর্ষিকভাবে যেগুলো হয়েছে সেগুলোই হয়েছে। এরপর এখন পরিবেশ সম্পূর্ণ শান্ত রয়েছে, সবাই যে যার কাজে ফিরে গেছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যের সামনে লাইভ হচ্ছিল, এই বিষয়টি আপনি কীভাবে দেখছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সকালে একজন ৯৯৯ এ ফোন করেছেন। ওসি সাহেব ফোন পেয়ে তিনি সরকারি গাড়ি না থাকায়, স্কুটারে করে ঘটনা স্থানে চলে যান।  

যেহেতু কোরআন শরিফ, তিনি শ্রদ্ধার সঙ্গে বুকে নিয়ে বের হয়েছেন। কে কখন লাইভ করেছেন বা ভিডিও করেছেন উনি তখন খেয়াল করেছেন কিনা আমি জানি না। খেয়াল করলে নিশ্চই তিনি ধমক দিতেন। বলতেন ভিডিও করা থেকে বিরত থাকুন। যে করেছে তাকেও আমরা ডেকেছি তাকে জিজ্ঞাস্বাদ চলছে। আমরা মনে করছি প্রথম থেকেই আমি বলেছি, এই ঘটনাটা সাজানো ও উদ্দেশ্যমূলক হতে পারে, আমরা সব সময় বলে আসছি। আপনাদের কাছে বিষয়টি পরিষ্কার করতে হলে জিজ্ঞাসাবাদ করতে হবে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে কুমিল্লার মূল হোতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে এ বিষয়টি যদি স্পষ্ট করতেন, এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, গ্রেফতারের কাজটি আমাদের পুলিশ করছেন। পুলিশ প্রধানও এখানে আছেন, আমরা যেটা বলছি এটুকুই আমরা জানি। এরপর আমাদের কেউ কিছু বলে থাকলে হয়তো তিনি আরও তথ্য জেনে বলেছেন। কিন্তু আমাদের কাছে এর বেশি তথ্য নেই।  এদিকে জানা যায়, সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে শনাক্ত ঐ যুবক কুমিল্লা নগরীর সুজানগর এলাকার নূর আহাম্মদ আলমের ছেলে ইকবাল হোসেন (৩৫) এবং সে বিভিন্ন মাজারে ও যত্রতত্র ঘুরে বেড়ানো (ভবঘুরে) হিসেবে পরিচিত। তবে কুমিল্লা পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, যেই যুবক পূজা মণ্ডপে পবিত্র কোরআন রেখেছে তাকে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে চিহ্নিত করা হয়েছে, তবে এখনই তিনি সাংবাদিকদের কাছে ওই যুবকের নাম বলতে চান না।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ