৫ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
দেশের বেষ্ট হসপিটালেটি এন্ড ট্যুরিজম লিডার হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছেন ভোলার কৃতি সন্তান সাখাওয়াত ভোলায় মাছ ধরতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে প্রাণ গেলো যুবকের বরিশালে সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে আ.লীগের শান্তি সমাবেশ মানুষকে গণতন্ত্র ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য বিএনপি আন্দোলন করছে : মঈন খান বরিশালে কোষ্টগার্ডের অভিযানে দুইদিনে ৭০ মন জাটকা জব্দ দূষণমুক্ত শিল্পকারখানা স্থাপন হবে আমাদের আগামী শিল্পবিপ্লব : বরিশালে শিল্পমন্ত্রী পাথরঘাটায় দুই ট্রলারের ধাক্কায় বাবার সামনেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন ছেলে আগৈলঝাড়ায় স্কুলড্রেস কেনার জমানো টাকা ভেঙে ফেলায় কিশোরীর আত্মহত্যা এ সরকারের সময়ে বাংলাদেশে যে উন্নয়ন হয়েছে তা ইতিহাসে বিরল : তোফায়েল এবার ববির খাবারে পাওয়া গেল সিগারেটের ফিল্টার!

গলাচিপায় মিথ্যা রাজাকার পুত্র বলে প্রচার করায় কোটি টাকার মানহানী মামলা

তারিখঃ ৬ ডিসেম্বর ২০২২

গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ
পটুয়াখালীর গলাচিপায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতাকে মিথ্যা রাজাকার পুত্র বলে এলাকায় প্রচার করায় কোটি টাকার মানহানী মামলা হয়েছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। উপজেলার ডাকুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হানিফ গাজী (৬৪) সোমবার গলাচিপা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বাদী হয়ে একই এলাকার গাজী মস্তফা কামাল (৬৬), মো. হাদী গাজী (৫০), মো. জালাল উদ্দিন গাজীসহ (৭০) মোট ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে মামলাটি দায়ের করেন। আদালতের বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে গলাচিপা থানার অফিসার ইন চার্জকে (ওসি) তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের আদেশ দেন। মামলার বিবরণে জানা যায়, গত ১১ নভেম্বর পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি/সম্পাদক বরবরে ডাকুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হানিফ গাজীকে রাজাকার পুত্র উল্লেখ করে তাকে অবিলম্বে সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে অপসারণের দাবি করে একই এলাকার গাজী মস্তফা কামালসহ উপরোল্লেখিত সকল আসামিগণ একটি লিখিত অভিযোগপত্র দায়ের করেন। অভিযোগপত্রের সঙ্গে আসামিগণ ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধকালীন যুদ্ধাপরাধীদের গলাচিপা উপজেলার একটি তালিকা দাখিল করেন। যা আসামিগণ জালজালিয়াতির মাধ্যমে সৃষ্টি করেছেন। উক্ত তালিকার ৩৮ নম্বরে প্রকৃত রাজাকার শাহজাহান সিকদারের নাম এডিট করে আসামিগণ বাদীর পিতার নাম প্রতিস্থাপন করেছেন এবং উক্ত তালিকায় তৎকালীন ইউএনও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের স্বাক্ষর ও সীল স্ক্যান করে জালিয়াতির মাধ্যমে আসামিগণ ব্যবহার করেছেন। এ ব্যাপারে মো. হানিফ গাজী বলেন, মস্তফা গাজীসহ সকল আসামিগণের সঙ্গে দীর্ঘ দিন ধরে জমিজমা সংক্রান্ত আমাদের পারিবারিক বিরোধ চলছিল। মস্তফা গাজী বিএনপি থেকে এসে আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ করে আমাকে মিথ্যা রাজাকার পুত্র বলে এলাকায় প্রচারণা চালিয়ে আমার সম্মানহানী করেছে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ