২০শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

গলাচিপায় স্কুল শিক্ষিকার দাঁত ভেঙ্গে দিল প্রতিপক্ষ

সঞ্জিব দাস গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর গলাচিপায় পূর্ব শত্রুতার জেরে মোসা. কলি বেগম (৪২) নামে এক স্কুল শিক্ষিকাকে লোহার রড, ছুড়ি ও ইট দিয়ে আঘাত করে মাথায় রক্তাক্ত জখম, হাত ভেঙ্গে, গাল-জিহ্বা কেটে ও দঁাত ভেঙ্গে দিয়েছে প্রতিপক্ষ। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার চিকনিকান্দী ইউনিয়নের চিকনিকান্দী গ্রামে। আহত শিক্ষিকাকে গলাচিপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে রাতেই কর্তব্যরত চিকিৎসক শিক্ষিকাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পটুয়াখালী সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। আহত কলি বেগম মাঝগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা এবং চিকনিকান্দী গ্রামের মো. জাকির হোসেনের স্ত্রী ও হায়দার আলী জোমাদ্দারের মেয়ে। এ ঘটনায় শিক্ষিকার স্বামী মো. জাকির হোসেন বাদী হয়ে শুক্রবার গলাচিপা থানায় একই গ্রামের সুমন রাজা (৩০), রাজা শফিকুল ইসলাম (৬০), ফাতেমা বেগম (৪৫), টুম্পা (২৫) ও পিংকিকে (২৫) আসামী করে মামলা করেন। শুক্রবার পুলিশ আসামী রাজা শফিকুল ইসলামকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করে।
মামলাসূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টার দিকে মো. জাকির হোসেন তার একটি গাভী গরু ও দুটি বাছুর গরু নিয়ে মাঠ থেকে বাড়ির দিকে রওয়ানা দিলে চিকনিকান্দী বাজারের কাছে এসে পেঁৗছলে আগে থেকেই ওৎ পেতে থাকা সুমন রাজা, রাজা শফিকুল ইসলাম, ফাতেমা বেগম, টুম্পা ও পিংকি এক জোট হয়ে মারধর শুরু করে। জাকির হোসেনের ডাক চিৎকারে শিক্ষিকা কলি বেগম স্বামীকে বাঁচাতে এলে হামলাকারীরা তাকে লোহার রড দিয়ে আঘাত করে মাথায় রক্তাক্ত জখম করে। হামলাকারীদের লোহার রডের আঘাত ঠেকাতে কলি বেগমের হাতের কব্জিতে জখম হয়, ছুড়ির আঘাতে তার ডান গাল ছিদ্র হয়ে মুখের ভিতর প্রবেশ করে জিহ্বা কেটে যায় ও ইটের আঘাতে দঁাত ভেঙ্গে যায়।।
গলাচিপা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এমআর শওকত আনোয়ার ইসলাম বলেন, শিক্ষিকা কলি বেগমের উপর হামলার ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। আসামী রাজা শফিকুল ইসলামকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। বাকি আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ