৭ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

গৃহকর্মীর কাজ করতে গিয়ে ঢাকায় খুন হলো আমতলীর মেয়ে

হারুন অর রশীদ,আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধিঃ বরগুনার
আমতলী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নে টেপুরা গ্রামের রেখা বেগম (২০) নামে এক কিশোরী ঢাকায় গৃহকর্মীর কাজ করতে গিয়ে অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। রেখার স্বজনরা অভিযোগ করেছেন গৃহকর্তী রেখাকে পাওনা টাকা না দেওয়ার জন্য নির্যাতন করে হত্যা করেছে।

এঘটনায় পুলিশ লাশ উদ্ধারসহ রেশমা নামে ওই গৃহকর্তীকে আটক করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে। ঘটনা ঘটেছে ৪ আগস্ট বনানী থানার ২৩/এ সড়কের ৮৬ নং বাড়ীর নবম তলায়।

আমতলী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের টেপুরা গ্রামের নিহত গৃহকর্মী রেখা বেগমের (২০) খালা পারভীন বেগম জানান, নিহত রেখার বাবা দুধা গাজী ২০ বছর পূর্বে এবং তার মা রাজিয়া বেগম ১৮ বছর পূর্বে মারা যান।

মা বাবা হীন এতিম রেখাকে আমি লালন পালন করি। অভাবের তারনায় রেখাকে নিয়ে ২০১০ সালে আমরা ঢাকায় চলে যাই। আমার স্বামী রাজ মিস্ত্রীর কাজ করে। যে বছর আমরা ঢাকা যাই তার কয়েকদিন পর ১০ বছর বয়সে রেখা ঢাকার বিমান বন্দর এলাকা থেকে হারিয়ে যায়। এর পর রেখাকে আমরা আর খুজে পাইনি।

২ বছর আগে রেখা গ্রামের বাড়ি ফিরে আসে। তখন সে জানায় বনানী থানার ৮৬ নম্বও বাড়ীর ২৩/এ সড়কের রেশমা বেগম নামে এক গৃহকর্তীর বাসায় গৃহকর্মীর কাজ নেয় সে। ওই গৃহকর্তী তালাক প্রাপ্তা ছিল।

তার বাবার নাম মোকছেদ আলী। গৃহকর্তী ২০১০ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত রেখাকে বেতনের কোন টাকা পয়সা না দেওয়ায় ২০১৯ সালে সে পালিয়ে গ্রামের বাড়ি চলে আসে।

ওই গৃহকর্তী তখন ফোনের মাধ্যমে রেখাকে তার বাসায় যাওয়ার অনুরোধ করে এবং তার বকেয়া সকল টাকা দেওয়ার আশ্বাস দেয়। রেখা তার গৃহকর্তীর কথা বিশ্বাস করে সে আবার তার বাসায় ফিরে যায়।

ওই বাসায় ফিরে যাওয়ার পর রেখার সাথে বাড়ির লোকজনের ফোনের সকল যোগোযোগ বন্ধ করে দেয় গৃহকর্তী রেশমা বেগম। রেখাকে কখনো বাসার বাইরে কিংবা অন্য কারো সাথে মিশতে দিত না গৃহকর্তী রেশমা বেগম।

রেখার স্বজনরা কেউ ওই গৃহকর্তীর বাসা চিনত না। রেখা পালিয়ে বাড়ি আসার পর শুধু ফোনে যোগাযোগ করেছে। রেখাকে নিয়ে যাওয়ার পর রেখার সকল স্বজনদের ফোন নম্বর ব্লাক লিস্টে ফেলে রাখায় তারা আর কেউ ওই গৃহকর্তীর সাথে যোযোগ করতে পারেনি বলে অভযোগ খালা পাভীনের।

পারভীন আরো অভিযোগ কওে বলেন, সম্প্রতি রেখা তার পাওনা টাকা পরিশোধের জন্য চাপ দেওয়ায় গৃহকর্তী রেখাকে নির্যাতন করে। এ নির্য়াতনেই তার মৃত্যু হয়।

বনানী থানার এসআই গুলশান আরা জানান, গত ৪ আগস্ট গৃহকর্তী রেশমা বেগম থানায় ফোন করে জানান তার বাসার গৃহকর্মী অত্মহত্যা করেছে। ওই দিন সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় আমরা তার বাসার বাথরুম থেকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসি। তখন গৃহকর্তী রেশমাকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে থানায় নিয়ে আসি।

লাশ আনার পর রেখার কোন স্বজন না থাকায় ময়না তদন্ত করে বেওয়ারিশ হিসেবে মেডিকেলের হিম ঘরে রাখি। গৃহকর্তী রেশমাকে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে সে রেখার ঠিকানা প্রদান করায় আমতলী থানার মাধ্যমে সোমবার সকালে তার স্বজনদের খবর দেই। মঙ্গলবার সকালে খবর পেয়ে স্বজনরা রেখার মরদেহ নিয়ে যায়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বনানী থানার এসআই গুলশান আরা জানান, লাশের শরীরের অনেক জায়গায় আঘাতের চিহ্ন ছিল।

রেখার চাচা মজিবুর রহমান গাজী অভিযোগ করে বলেন, ২০১০ সাল থেকে রেখা রেশমা বেগমের বাসায় কাজ করে। এ পর্যন্ত কোন টাকা পয়সা দেয় নাই।

তার পাওনা টাকার না দেওয়া একবার সে বাড়ি চলে এসেছিল। ফিরে যাওয়ার পর তাকে ব্যাপক নির্যাতন করেছে। ধারনা করা হচ্ছে পাওনা টাকা না দেওয়ার জন্য তাকে ওই গৃহকর্তী মেরে হত্যা করে আত্মহত্যার নাটক সাজিয়েছে। তিনি আরো বলেন, রেখার শরীরে বটির কোপসহ মারধরের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আমরা এঘটনার বিচার চাই।

বনানী থানার ওসি নূরে আজমh মিয়া বলেন, গৃহকর্মী রেখাকে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে আটক করে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়া সাপেক্ষে আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ