৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

চলে গেলেন বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ হাফেজ মাওলানা মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান রাহিমাহুল্লাহ

মুহাম্মাদ ইমাদুল হক ফিরদাউছ প্রিন্সঃ- খুলনা খালিশপুর জংশন রেলওয়ে জামে মসজিদ এর প্রতিষ্ঠাতা, আমীর, পরিচালনা কমিটির সভাপতি, সুদীর্ঘ ৪০ বছর পেশ ইমামের দায়িত্ব পালন করা বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ আলহাজ্ব হযরত মাওলানা মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান (৮৫) গত ১৩ নভেম্বর (রবিবার) ভোর রাত ৩ টায় খুলনার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন…।

তিনি অতি বড় মাপের একজন মানুষ ও প্রসিদ্ধ আলেম ছিলেন। দেশব্যাপি সমকালিন মুসলিম বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ইসলামী নেতৃবৃন্দের সাথে তিনি ছিলেন খুবই ঘনিষ্ঠ। দেশ বরেণ্য ইসলামিক পন্ডিত আলহাজ্ব হযরত মাওলানা মোঃ আব্দুল ওহাব সাহেব খুলনার হুজুর (রহঃ) সম্পর্কে ছিলেন তার চাচা। তারা উভয়ই পড়াশুনা এবং শিক্ষকতা করেছেন একসাথে। তিনি তার চাচা হযরত খুলনার হুজুর রহঃ এর সাথে চট্টগ্রামের হাটহাজারী মুঈনুল ইসলাম আরবি বিশ্ববিদ্যালয় এবং গোপালগঞ্জের গওহর ডাঙ্গা মাদ্রাসাসহ বেশ কয়েকটি জগদ্বিখ্যাত মাদ্রাসায় পড়াশোনা করেন। গোপালগঞ্জ জেলা এবং বিভাগীয় শহর খুলনাতে ইসলামের দাওয়াত এবং বিকাশে তাঁর রয়েছে অসামান্য অবদান।

হাফেজ মাওলানা মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান সাহেব গেল কয়েক দিন থেকে বাধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে ভোগছিলেন। ১৩ নভেম্বর মৃত্যু হলে ওই দিনই বাদ জোহর তার প্রতিষ্ঠিত জামে মসজিদ ও ঈদগাহ মাঠে তাঁর নামাজে জানাযা শেষে খালিশপুরের গোয়ালখালীর সুপরিচিত মুসলিম গোরস্থান এ তার ছেলে এবং তার স্ত্রীর কাছে চির নিদ্রায় শায়িত করা হয়।

হাফেজ মাওলানা মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান একাধারে একজন সুপরিচিত আলেম, ভালো শিক্ষক ও বক্তা, সমাজ সেবক, কমিউনিটি নেতা ও সংগঠক ছিলেন। সদাহাস্যজ্জ্বল, স্পষ্টবাদী, দৃঢ়চেতা ও অন্যায়ের প্রতিবাদী হিসেবে সমাদৃত ছিলেন দেশ-বিদেশের সর্বমহলে। বিভাগীয় শহর খুলনার আলেম-সমাজের একটি বড় সংগঠনের গুরুত্বপুর্ণ দায়িত্বে ছিলেন তিনি। বরিশাল বিভাগীয় ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন খুলনা এর প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে তিনি ছিলেন অন্যতম।

মসজিদ-মাদ্রাসাগুলোতে ইসলামী আলোচক হিসেবে তাঁর সুপরিচিতি ও সুখ্যাতি ছিল। ১৯৩৭ সালে ঝালকাঠি জেলার নলছিটি উপজেলার নাচনমহল ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ড এর খুলনা গ্রামের ঐতিহ্যবাহী মাওলানা বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম মরহুম মোঃ খবির উদ্দিন এবং মায়ের নাম মরহুমা মোসাঃ জড়িনা বেগম। কর্মজীবনে তিনি দেশের বিভিন্ন মাদ্রাসায় সুনামের সাথে শিক্ষকতা করেছেন।
তিনি বিভিন্ন মসজিদে সুনামের সাথে খতিবের দ্বায়িত্ব পালনের পাশাপাশি খালিশপুর জংশন রেলওয়ে জামে মসজিদে মক্তব চালু করেন। খুব কম সময়ের মধ্যেই এটি একটি সফল প্রতিষ্ঠানে রূপ নেয়।
মহান আল্লাহর দরবারে দো’য়া করি, রাব্বুল ইজ্জত তাঁর এ গোলামকে ক্ষমা করুন, তাঁর প্রিয় বান্দার ওপর রহম করুন এবং জান্নাতের সর্বোচ্চ মাকাম জান্নাতুল ফিরদাউস নসীব করুন।
তাঁর পরিবার, স্বজন ও সহকর্মীবৃন্দকে আল্লাহ তা’য়ালা সবরে জামিল দান করুন। আমীন।।

হাফেজ মাওলানা মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান এর মৃত্যুতে খুলনা বিভাগীয় শহরস্থ বিভিন্ন কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ ও নিজ উপজেলা নলছিটিসহ ঝালকাঠি জেলার জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবীদ, শিক্ষক, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক, আইনজীবী, চিকিৎসক, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ নানা শ্রেণী ও পেশার মানুষ গভীর শোক প্রকাশ করে তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

লেখকঃ- মুহাম্মাদ ইমাদুল হক ফিরদাউছ প্রিন্স

ডেপুটি রেজিস্ট্রার, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং আলহাজ্ব হাফেজ মাওলানা মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান সাহেব এর ছোট ভাই। 

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ