২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

তালতলীতে চলন্ত বাস থামিয়ে চাঁদা দাবি, না পেয়ে গাড়িতে হামলা-ভাঙচুর

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

বরগুনা প্রতিনিধি ::: বরগুনার তালতলীতে আঞ্চলিক সড়কে ঢাকাগামী মামুন পরিবহনের চলন্ত বাস থামিয়ে ভাঙচুর ও ছিনতাই করেছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় বাসচালক পনু মিয়া ও সুপারভাইজার খাইরুল ইসলামকে পিটিয়ে আহত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ৩টার দিকে আমতলী-তালতলী আঞ্চলিক সড়কের উপজেলার নলবুনিয়া নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী আহতদের উদ্ধার করে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। মেডিকেল অফিসার ডা. জায়েদ আলম ইরাম আহতদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করেছেন।

জানা গেছে, তালতলী থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে মামুন পরিবহন ছেড়ে যায় দুপুর দেড়টার দিকে। আমতলী-তালতলী আঞ্চলিক সড়কের নলবুনিয়া নামক স্থানে গেলে ১০/১২ জন দুর্বৃত্ত চলন্ত বাসের গতিরোধ করেন। পরে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে না পেয়ে বাস ভাঙচুর করেন। এ সময় চালকের কাছে থাকা ১৫ হাজার ও সুপারভাইজারের কাছ থেকে দুই হাজার ৮শ’ টাকা এবং একটি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেন। যাত্রীদের কিছু না বললেও চালক পনু ও সুপারভাইজার খাইরুল ইসলামকে বেধরক মারধর করে পালিয়ে যান তারা।

তবে দুর্বৃত্তদের কেউ চিনতে না পারলেও তাদের নিজেদের মধ্যে কথা বলার সময় একজনকে সুমন বলে ডাকতে শোনা যায় বলে বাসের যাত্রীরা জানান।

বাসচালক পনু মিয়া বলেন, তালতলী থেকে যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে নলবুনিয়া নামক স্থানে এলে ১০/১২ জন লোক গাড়ির গতিরোধ করে আমার কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন। আমি টাকা দিতে অস্বীকার করলে তারা বাস ভাঙচুর শুরু করেন এবং আমাকে ও সুপারভাইজারকে মারধর করেন।

মামুন পরিবহনের তালতলীর কাউন্টার ইনচার্জ বাদল বলেন, প্রায়ই গাড়ি থামিয়ে চালকের কাছে চাঁদা টাকা দাবি করতেন। তবে তাদের আমরা চিনি না। প্রতিদিন বলতেন টাকা না দিলে গাড়ি চালাতে পারবে না। এই সড়কের চলাচলকারী সব গাড়িতেই টাকা দাবি করেন তারা।

তালতলী থানার ওসি মো. শহিদুল ইসলাম খান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এখনো লিখিত কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সর্বশেষ