২রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
না ফেরার দেশে বরিশাল প্রেসক্লাব সভাপতি কাজি নাসির উদ্দিন বাবুল স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হলে, স্মার্ট নাগরিক তৈরি করতে হবে- চীফ হুইপ নূর-ই-আলম লিটন চৌধুরী নিরাপদ, স্বাস্থ্যসম্মত ও রপ্তানিযোগ্য শুটকি উৎপাদনে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ পবিপ্রবিতে ক্লাস-পরীক্ষা চালু করতে প্রশাসনের সাথে শিক্ষার্থীদের আলোচনা উজিরপুরে ৫ কেজি গাজা সহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক। গলাচিপায় জাতীয় ভোটার দিবস ২০২৪ উপলক্ষে র‍্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত আইজিপি পদক পেলেন রাঙ্গাবালী থানার ওসি পটুয়াখালী পৌর নির্বাচনে মেয়রপ্রার্থী আজাদের টাকার হিসাব শুনে চক্ষু চড়কগাছ! গৌরনদীতে অগ্নিকাণ্ডে পাঁচটি বসতঘর ভস্মীভূত উজিরপুরে ৫ কেজি গাজাসহ দুই মাদক কারবারি গ্রেফতার

দশমিনায় ইউপি চেয়ারম্যানের চাল আত্মসাত ঘটনা প্রমাণিত

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

দশমিনা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি :: পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার আলীপুরা ইউনিয়ন পরিষদের ৬১৫ জন সুফলভোগীর ৩ মাসের চাল আত্মসাতের ঘটনা প্রমাণিত হওয়ায় অভিযুক্ত চেয়ারম্যান বাদশা ফয়সাল আহম্মেদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে।

গত ২১ জুন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এবং স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ পরিচালক মোঃ হেমায়েত উদ্দিন এ তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। যা পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে জেলা প্রশাসক কর্যালয় থেকে প্রেরণ করা হয়েছে।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, ইউনিয়ন চেয়ারম্যান বাদশা ফয়সাল আহম্মেদ ভিজিডি’র চাল বিতরণ না করে ভুয়া সই/স্বাক্ষও গ্রহণ, ভিডিজির উপকারভোগীদের ভিজিডি কার্ড আৎসাতের উদ্দেশ্যে নিজের কাছে জমা রাখা, চাল বিতরণের দিন ক্ষণ যথা সময়ে ট্যাগ অফিসারকে অবহিত না করা এবং সুবিধাভোগীদের সাথে অসদাচরণ এবং চাল বিতরণে ইউনিয়র পরিষদ সদস্যদেরকে সময়মত সম্পৃক্ত না করে চাল বিতরণ সংক্রান্ত অভিযোগ সমূহের সত্যতা প্রমাণিত হয়।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ হেমায়েত উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, জেলা প্রশাসক মহোদয় তদন্ত প্রতিবেদনে প্রেক্ষিতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে অভিযুক্ত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পত্র প্রেরণ করেছেন।

এদিকে চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার বাদশা ফয়সালের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় দফা ভিজিডির চাল আত্মসাতের অভিযোগ করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যরা এ অভিযোগ করেন।

জানা গেছে, ২০১৯ সালে সংশ্লিষ্ট ট্যাগ অফিসার ও ইউপি সদস্যদের অবহিত না করে জুলাই মাসের দিকে পাঁচ মাসের চাল বিতরণ করা হয়। পরক্ষণে ওই বছরের ডিসেম্বর মাসে আরও চার মাসের চাল বিতরণ করা হয়। ওই বছরের ১২ মাসের বদলে মাত্র ৯ মাসের চাল বিতরণ করা হয়। বাকি তিন মাসের ৬১৫ জনের ৫৮ টন চাল ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার বাদশা ফয়সালের কাছে রেখে পরে তা নিজেই ভোগ করেন বলে অভিযোগ করা হয়। আত্মসাৎ করা ৫৮ টন চালের আনুমানিক বাজার মূল্য ১৫ লাখ টাকার ওপরে বলে দাবি করা হয়।

এ ঘটনার পর ইউপি সদস্যদের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানকে চাল বিতরণ করতে বারবার তাগাদা দেয়া হলে তিনি তাদের নীরব থাকতে চাপ প্রয়োগ করেন। এ প্রসঙ্গে সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য তোফাজ্জেল হাওলাদার, শিরিন বেগম, মাজহারুল ইসলাম চুন্নু, বাহাউদ্দিন মিয়া, আফজাল হোসেন, নুর নাহার ও বারেক গাজীর সঙ্গে কথা হলে তারা অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তারা বলেন, ২০১৯ সালে ১২ মাসের বদলে চেয়ারম্যান মাত্র ৯ মাসের চাল বিতরণ করেছেন।

এ প্রসঙ্গে আলীপুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার বাদশা ফয়সাল সাংবাদিকদের বলেন, এসব অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট। একটি মহল তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে।

সর্বশেষ