২৩শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

দশমিনায় মোবাইল না দিয়ে মায়ের বকাঝকা, এসএসসি পাস শিক্ষার্থীর আ*ত্মহ*ত্যা

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

পটুয়াখালী প্রতিনিধি ::: পটুয়াখালী দশমিনা উপজেলায় চলতি বছর এসএসসি পাস করা এক শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। আজ শনিবার (১৮ মে) দুপুর ১টার দিকে উপজেলার বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের চরহোসনাবাদ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত নিশাত (১৬) একই গ্রামের মো. হেমায়েত উদ্দিন প্যাদার মেয়ে। সে এবার এসএসসি পরীক্ষায় পাস করেছে।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, নিশাতের মা সকালে দেবরের নির্বাচনী ক্যাম্পিং করার জন্য বাসা থেকে বের হন। নিশাত বাসায় একা থাকে তাই মায়ের কাছে মোবাইল চায়। মোবাইল না দিয়ে মেয়েকে বকাঝকা করে ক্যাম্পিংয়ে চলে যান। ক্যাম্পিংয়ে থাকা অবস্থায় তাঁর ছোট মেয়ে মোবাইল করে বলে ঘরের দরজা জানালা বন্ধ। তাকে বাসায় আসতে বলা হয়। তখন নাজমা বেগম তাঁর স্বামী হেমায়েত উদ্দিনকে বিষয়টি জানান। তখন হেমায়েত বাসায় এসে ঘরের দরজা ভেঙে প্রবেশ করে দেখেন নিশাত ঘরের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আছে। তিনি ডাক চিৎকার করলে এলাকার লোকজন এসে উদ্ধার করে দশমিনা হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আবিদা নাসরিন জিতু নিশাতকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিশাতের বাবা হেমায়েত উদ্দিন বলেন, ‘আমার ছোট ভাই উপজেলা নির্বাচন করছে। তার নির্বাচনী প্রচারে আমি, আমার স্ত্রী ও আমার ছেলে যাই। ফোন পেয়ে এসে দেখি গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঘরের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আছে মেয়ে নিশাত।’

তিনি বলেন, ‘আমার মেয়ের এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করেছে। ওকে নিয়ে আমাদের অনেক স্বপ্ন। ওর জিনগত সমস্যা ছিল। এ বিষয় নিয়ে ফকির দিয়ে চিকিৎসা করিয়েছি, ঠিকও হয়। মাঝে মধ্যে বলত আমাকে পেছন থেকে কে যেন ডাকে।’

দশমিনা হাসপাতালের চিকিৎসক আবিদা নাসরিন জিতু বলেন, নিশাতকে হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই সে মারা যায়।

দশমিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নরুল ইসলাম মজুমদার বলেন, ‘ঘটনার বিষয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে শুনে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। পরবর্তী কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।’

সর্বশেষ