৩রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
চরফ্যাশন প্রেসক্লাবের বার্ষিক আনন্দ ভ্রমণ অনুষ্ঠিত  বরিশালের জন্য নগদের ২০ লাখ টাকার পুরস্কার দৌলতখানে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাছ ধরায় ১৫ জেলের কারাদণ্ড বেতাগীতে ঠিকাদারের গাফিলতিতে শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি বরিশাল প্রেসক্লাব সভাপতির মৃত্যুতে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীর শোক না ফেরার দেশে বরিশাল প্রেসক্লাব সভাপতি কাজি নাসির উদ্দিন বাবুল স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হলে, স্মার্ট নাগরিক তৈরি করতে হবে- চীফ হুইপ নূর-ই-আলম লিটন চৌধুরী নিরাপদ, স্বাস্থ্যসম্মত ও রপ্তানিযোগ্য শুটকি উৎপাদনে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ পবিপ্রবিতে ক্লাস-পরীক্ষা চালু করতে প্রশাসনের সাথে শিক্ষার্থীদের আলোচনা উজিরপুরে ৫ কেজি গাজা সহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক।

দীর্ঘদিন ধরে চুয়াডাঙ্গা-যশোর রুটে সরাসরি বাস চলাচল বন্ধ

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

এম.এ.আর.নয়ন, স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা এবং ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ বাস মালিক সমিতির অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে দীর্ঘ সাড়ে ৮ মাস ধরে চুয়াডাঙ্গা-যশোর এবং খুলনা রুটে সরাসরি বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। আর এতে করে প্রতিদিন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে ওই রুটে চলাচলকারী শত শত সাধারণ বাস যাত্রীর। কিন্তু সমস্যা নিরসনে কারোরই তেমন কোন মাথাব্যথা নাই। আর এ সমস্যা একেবারে নতুন ও নই। দুই জেলার বাস মালিকদের স্বার্থে একটু ব্যাঘাত ঘটলেই কোনরকম পূর্ব নোটিশ ছাড়াই তারা নিজেদের খেয়াল খুশি মতো সরাসরি বাস চলাচল বন্ধ করে দেন। তাদের কাছে সাধারণ যাত্রীরা একেবারেই খেলার পুতুল।

জানা যায়, চুয়াডাঙ্গা ও কালীগঞ্জ বাস মালিক সমিতির অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে গত বছরের ডিসেম্বর মাসের ৬ তারিখ সকাল থেকে চুয়াডাঙ্গা-যশোর রুটে সরাসরি বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সেই থেকে আজ পর্যন্ত দুই জেলার বাস মালিক সমিতির মধ্যে কোনপ্রকার সমঝোতা হয়নি। এমনকি লকডাউনের কারণে দীর্ঘদিন সারাদেশে বাস চলাচল বন্ধ থাকলেও ওই সময়ের মধ্যেও তারা তাদের মধ্যে সৃষ্ট দ্বন্দ্বের অবসান ঘটাতে ব্যর্থ হয়েছে। যার কারণে দুই জেলার বাস চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার হাসাদাহ পর্যন্ত চলাচল করছে। সেখান থেকে বাস পরিবর্তন করে আবার অন্য বাসে উঠে গন্তব্যের উদ্দেশ্য রওয়ানা হচ্ছেন বাস যাত্রীরা।

এ বিষয়ে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা সংবাদ প্রকাশ করলেও কোন ফল পাওয়া যায়নি। মন গলেনি দুই জেলার বাস মালিক সমিতির। কারণ সাধারণ যাত্রীদের সেবার মান নিয়ে তারা একটু ও চিন্তিত নন। নিজেদের ব্যবসায়িক স্বার্থই তাদের কাছে বড়। সেইসাথে রয়েছে ছাড় দেওয়ার মন মানসিকতার অভাব। আর দুই জেলার বাস মালিক সমিতির অভ্যন্তরীণ বিষয় হওয়ায় এখানে প্রশাসনেরও তেমন কিছুই করার নাই। সাধারণ বাস যাত্রীরা মনে করেন অচিরেই দুই জেলার বাস মালিকদের মধ্যে সৃষ্ট দ্বন্দ্বের অবসান ঘটবে এবং পূর্বের ন্যায় সরাসরি বাস চলাচল শুরু হবে।

উল্লেখ্য, ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ বাস মালিক সমিতির বেশকিছু বাস পূর্বে চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা পর্যন্ত চলাচল করতো। কিন্তু বর্তমানে সেগুলো আর আলমডাঙ্গা পর্যন্ত চলাচল করতে দেইনা চুয়াডাঙ্গা বাস মালিক সমিতি। তবে কালীগঞ্জ বাস মালিক সমিতি তাদের পূর্বের অবস্থায় ফিরে যেতে চাই। এই সমস্যাসহ আরও কিছু সমস্যা নিয়ে তাদের মাঝে আবার ও নতুন করে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হওয়ায় দীর্ঘদিন ধরে চুয়াডাঙ্গা-যশোর রুটে সরাসরি বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এর আগেও বিভিন্ন কারণে ওই রুটে সরাসরি বাস চলাচল বন্ধ করে দেই দুই জেলার বাস মালিক সমিতি। সর্বশেষ ২০ মাস ১১ দিন বন্ধ থাকার পর চুয়াডাঙ্গা-যশোর রুটে সরাসরি বাস চলাচল শুরু হলেও গত বছরের ডিসেম্বর মাস থেকে তা আবার বন্ধ হয়ে যায়।

সর্বশেষ