২৩শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

পটুয়াখালীতে স্ত্রীর স্বীকৃতি পেতে প্রেমিকের বাড়িতে তরুণীর অনশন

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

পটুয়াখালী প্রতিনিধি ::: পটুয়াখালীর গলাচিপায় স্ত্রীর স্বীকৃতি পেতে অন্তরা রানী শীল (২২) নামের এক তরুনী অনশন করছেন অনুপম ভূইয়া (৩০) নামের এক যুবকের বাড়িতে। বৃহস্পতিবার বিকাল থেকে গলাচিপা পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের গলাচিপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দক্ষিণ পাশে শেরই বাংলা রোড এলাকায় প্রেমিকের বাড়িতে ওই তরুণী অবস্থান করছেন।

ওই তরুণী বরিশাল নগরীর ৩০নং ওয়ার্ডস্থ কাশিপুরের গণপাড়া এলাকার কৃষ্ণ চন্দ্র শীলের মেয়ে। সে বরিশাল বিএম কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের শেষ বর্ষের ছাত্রী। স্ত্রীর মর্যাদা না পেলে আত্মহত্যার হুমকিও দিয়েছেন ওই তরুণী। এ বিষয়ে তিনি সর্ব মহলের প্রশাসনকে অবহিত করেছেন এমনকি সংবাদকর্মীদের সহযোগিতা চেয়েছেন। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত দুই দিন ধরে অন্তরা রানী শীল অনুপম ভূইয়ার বাড়িতে অবস্থান করছে।

জানা গেছে, অন্তরা রানী শীল গলাচিপা পৌরসভায় বৃহস্পতিবার সকালে আসে। বিকেল থেকে ৯নং ওয়ার্ডের শেরই বাংলা রোড এলাকায় অনুপম ভূইয়ার বাবা এ্যাডভোকেট অরুন ভূইয়ার বাড়িতে অবস্থান নিয়ে অনশন শুরু করে। এ সংবাদ মূহুর্তের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে ওই বাড়িতে গভীর রাত পর্যন্ত স্থানীয়রা ভীড় করতে থাকে।

অনশনকারী ওই তরুনী বলেন, আমার মামা তাপস শীল এক সময় অনুপমের বাড়িতে ভাড়া থাকতো। সেই সুবাদে তাদের বাসায় বেড়াতে যেতাম। বেড়াতে যাওয়ার পর থেকে অনুপমের সঙ্গে আমার পরিচয়। একপর্যায়ে অনুপম বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে সম্পর্কে জড়ায়। তার সাথে আট বছর ধরে আমার প্রেমের সম্পর্ক চলে। বিভিন্ন স্থানে হোটেলে এমনকি পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা আমাকে ঘুরতে নিয়ে যায় অনুপম। ঘুরতে গিয়ে বরিশালের একটি মন্দিরে নিয়ে আমাকে শাখা-সিঁদুর পরিয়ে পুরোহিতের সামনে বিয়ে করেন।

তিনি আরও বলেন, বিয়ের আগে ও পরে অনুপম আমার সঙ্গে অসংখ্যবার শারীরিক ভাবে মেলামেশা করেছেন। তার প্রমান রয়েছে। এরপর হঠাৎ আমার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন অনুপম। সরকারী চাকুরী করবে বলে বিয়ের কথা গোপন রাখতে মিথ্যে প্রলোভন দেখায় অনুপম। এরপর থেকে আজ কাল করে বছরের পর বছর ঘুরাতে থাকে। একপর্যায়ে অনুপমের অন্যত্র বিয়ের খবর শুনে অন্তরা রানী শীল স্ত্রীর অধিকার নিয়ে তার বাড়িতে প্রবেশ করতে চাইলে অনুপমের পরিবার তার সঙ্গে খারাপ আচরণসহ বাড়ির বাহিরে বের করে দেয়ার চেষ্টা চালায়।

অন্তরা বলেন- আমার আর কোথায় ফিরে যাওয়ার সুযোগ নেই। অনুপম স্ত্রী হিসেবে গ্রহণ না করলে আত্মহত্যা ছাড়া আমার কোনো পথ নেই। বর্তমানে অনুপম গা ঢাকা দিয়েছে। গলাচিপায় বিষয়টি এখন সবার মুখে মুখে।

গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ ফেরদৌস আলম খান বলেন, খবর পেয়ে থানা পুলিশ রাতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। মেয়ের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে মহিলা পুলিশ নিয়ে রাতে থানা হেফাজতে তরুণীকে রাখা হয়েছে। সমাধান না হলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে গলাচিপা উপজেলা নিবার্হী কর্মকতা মো: মহিউদ্দিন আল হেলাল জানান, বিষয়টি অবগত আছি। দুই পরিবারকে ডেকে সমাধানের চেষ্টা করছি।’

সর্বশেষ