১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
চাল-চুলা নিভু নিভু ! হতাশায় হাজারো জেলে পরিবার জনবিরোধী বাজেট ঈদের আনন্দ ধ্বংস করেছে : নতুনধারা ঈদের নামাজের গুরুত্বপূর্ণ মাসয়ালা ঘুমের মধ্যে স্ট্রোক করে তরুণ সাংবাদিকের মৃত্যু! বরিশালের বিমান বন্দরে পাওনা টাকা চাওয়ায় যুবককে মারধর।। শেবাচিম হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি হলেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী বৃক্ষ রোপন ও চারা বিতরণীর কর্মসূচী উদ্বোধন করেন প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক মুলাদীতে ডোবা থেকে ছাগল ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্ধার গৌরনদীতে চাঁদা না পেয়ে আওয়ামী লীগ নেতার নেতৃত্বে হামলা, ব্যবসায়ী আহত ৩ হাজার নেতাকর্মীদের আপ্যায়ন করালেন প্রতিমন্ত্রী মহিববুর রহমান

‘দেশের সবচেয়ে গভীরতম সমুদ্র বন্দরে রূপান্তরিত হয়েছে পায়রা’

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

পটুয়াখালী প্রতিনিধি ::: পটুয়াখালীর পায়রা সমুদ্র বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এ্যাডমিরাল এম সোহায়েল বলেছেন, পায়রা সমুদ্র বন্দরের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ক্যাপিটাল ড্রেজিং সফল ভাবে সম্পন্ন হয়েছে। এর মাধ্যমে পায়রা দেশের সবচেয়ে গভীরতম সমুদ্র বন্দরে রূপান্তরিত হয়েছে।

রবিবার (২৬ মার্চ) দুপুরে পায়রা সমুদ্র বন্দরের সম্মেলন কক্ষে ড্রেজিং কার্যক্রম শেষে চ্যানেল হস্তান্তর উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। এসময় জাতীয় সংসদ সদস্য মুহিব্বুর রহমান, জান ডি নূল-এর প্রকল্প পরিচালক জান মঈন, বন্দরের স্কীম পরিচালক রাজিব ত্রিপুরা সহ বন্দরের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

বন্দর চেয়ারম্যান আরো বলেন, ড্রেজিংয়ের ফলে ৭৫ নটিক্যাল মাইল দৈর্ঘ্য ১১০ থেকে ২০০ মিটার প্রস্থের চ্যানেলটির গভীরতা ১০.৫ মিটারে উন্নীত হয়েছে, এর ফলে প্যানামেক্স সাইজের বড় মাদার ভ্যাসেল সহজে প্রতিনিয়ত বন্দরে প্রবেশ করতে পারবে। ৪০ হাজার মেট্রিকটন পণ্য বোঝাই জাহাজের ক্ষেত্রে কোনো ধরনের লাইটারেজের প্রয়োজন হবেনা।

এতে বন্দরের আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম বহুগুন বৃদ্ধি পাবে, যা দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। শুধু ড্রেজিংই নয় সমান তালে এগিয়ে চলছে বন্দরের প্রথম টার্মিনাল নির্মাণ কাজ। মে মাসে বন্দরের ‘প্রথম টার্মিনালের কাজ শেষ হবে। ইতিমধ্যে ইনার ও আউটারবারে মার্কিং, বয়া বাতি বসানো হয়েছে। ইনারবারে ১৫টি জাহাজ রাখা যাবে । সেখানে লোডিং আনলোডিং কার্যক্রম চলবে।

সাড়ে ছয় হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করেছে বেলজিয়াম ভিত্তিক ড্রেজিং কোম্পানি ” Jan De Nul” (জান ডি নূল)। ২০২৪ সালের এপ্রিল মাস পর্যন্ত তারা মেনেটেইনেন্স ড্রেজিং করবেন।

সর্বশেষ