১৪ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

প্রধানমন্ত্রীর পদ নিয়ে সৃষ্ট অন্তঃকলহ ! স্বাধীনতার প্রশ্নে ভুলে যান জাতীয় চার নেতা

সোহেল সানি

মুজিবনগর সরকার গঠন ও পদপদবি নিয়ে বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে পাঁচ সদস্যের ‘হাইকমান্ড’ জড়িয়ে পড়েছিল অন্তঃকলহে। প্রকটরূপ ধারণের আগেই দেশমাতৃকার স্বার্থে মুহূর্তে তা ভুলে গিয়েছিল হাইকমান্ড। বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে হাইকমান্ড নামে পরিচিত ছিলেন পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সংসদীয় দলের উপনেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রাদেশিক পরিষদের সংসদীয় দলের নেতা এম মনসুর আলী, পাকিস্তান কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এএইচএম কামরুজ্জামান, পূর্বপাকিস্তান প্রাদেশিক আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দীন আহমেদ, খন্দকার মোশতাক আহমেদ ও ড. কামাল হোসেন। ড. কামাল হোসেন গ্রেপ্তার হওয়ার পর হাইকমান্ড বলতে পাঁচ নেতাকেই বোঝাত। অন্তঃকলহের সূত্রপাত ঘটে একাত্তরের আট এপ্রিল সরকার গঠনের সিদ্ধান্ত ঘোষণার আগেই হাইকমান্ডভুক্ত নেতাদের না জানিয়ে তাজউদ্দীন আহমেদ দিল্লিতে গিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর কাছে নিজেকে বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে পরিচয় দেয়ায়। এতে কলকাতার ভবানীপুরের রাজেন্দ্র রোডের এক বাড়িতে উপস্থিত জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদ সদস্যদের পাশাপাশি যুবনেতাদের মধ্যেও চরম বাকবিতণ্ডায় এক তিক্তকর পরিস্থিতির উদ্রেক করে। জাতীয় ও প্রাদেশিক সদস্যদের মধ্য থেকে জোরেশোরে দাবি করা প্রাদেশিক পরিষদের সংসদীয় দলের নেতা এম মনসুর আলীকে প্রধানমন্ত্রী করার। আর দ্বিতীয় দাবিদার হতে পারেন পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এএইচএম কামরুজ্জামান। প্রাদেশিক আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দীন আহমেদ প্রধানমন্ত্রিত্বের পদে পরিচয় দান নিয়ে। উল্লেখ্য একাত্তরের ২৫ মার্চ ‘অপারেশন সার্চলাইট’ শুরু করে রাত একটায় পর পাকিস্তান সেনাবাহিনীর কমান্ডো গ্রুপ কর্তৃক গ্রেপ্তারের প্রাক্কালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধু। স্বাধীনতাকে বাস্তবে রূপায়নের অবশ্যকীয় শর্ত-সরকার গঠন সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট কোনো নির্দেশনা না থাকায় তাঁর অবর্তমানে সরকারকাঠামোর প্রকৃতি নিয়ে মতবিরোধ দেখা দেয়। প্রশ্ন ওঠে, তাজউদ্দীন আহমেদের নীতি নৈতিকতা নিয়ে। প্রধানমন্ত্রিত্ব নিয়ে মতভেদ থাকলেও স্বাধীনতার প্রশ্নে যে চার নেতাই ছিলেন যে বঙ্গবন্ধু অন্তঃপ্রাণ তার প্রমাণ তারা রেখেছেন। এম মনসুর আলী তাজউদ্দীনের প্রতি সদয় হয়ে সেদিন যে উদারতা প্রদর্শন করেন তা বিরল। তিনি অস্থিরতাহীন সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণে ধীশক্তি দ্বারা অসীম নৈব্যর্ত্তিক ক্ষমতা প্রয়োগ করেন। তাজউদ্দীনের রাজনৈতিক আচরণ ও নৈতিকতা নিয়ে কটাক্ষ করলেও বলেন, তিনি এটা ঠিক করেননি, তবুও বিরাজমান অবস্থার প্রেক্ষিতে প্রবাসী সরকারের প্রধানমন্ত্রীরূপে তাজউদ্দীন আহমেদকে মেনে নেয়া ব্যতীত গত্যন্তর নেই। বস্তুত মনসুর আলীই প্রথমে কামরুজ্জামানকে এবং পরবর্তীতে ১১ এপ্রিল আলাপ-আলোচনা করে খন্দকার মোশতাককে দিল্লিতে পেশকৃত সরকার গঠনের প্রক্রিয়াকে ‘জায়েজ’ করাতে সমর্থ হয়েছিলেন। খন্দকার মোশতাক পররাষ্ট্রমন্ত্রিত্ব দাবি করায় সমস্যায় পড়েন প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন। এ মন্ত্রণালয়টি নিজের হাতেই রাখতে চাইছিলেন তিনি। কিন্তু মোশতাক তখন তাজউদ্দীনকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মানবেন জানিয়ে দেন। বেকায়দায় পড়ে মোশতাকের হাতে ছাড়তে হয় পররাষ্ট্র দপ্তর। এমনকি প্রধানমন্ত্রীর নির্বাহী ক্ষমতা রাষ্ট্রপতির হাতে ন্যস্ত করার চাল চালেন মোশতাক। এবং সে অনুযায়ী আপোষ করতে হয় তাজউদ্দীনকে। তারপর ঘোষণা করা হয় যে, ১৭ এপ্রিল বঙ্গবন্ধুকে রাষ্ট্রপতি করে স্বাধীন বাংলাদেশ সরকার আত্মপ্রকাশ করবে। ব্যক্তিস্বার্থের ঊর্ধ্বে উঠে জাতীয় চার নেতা বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে যে স্বল্পতম সময়ে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যূদয় ঘটায় তা এক ঐতিহাসিক ঘটনা। খন্দকার মোশতাক বিশ্বাসঘাতকতা করে স্বাধীনতার বিরুদ্ধে পাকিস্তানের সঙ্গে কনফেডারেশন গঠনের চক্রান্তে পা দিলে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পদ হারান। পাকিস্তানীদের আত্মসমর্পণের মাধ্য ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ বিজয় অর্জন করলে ২২ ডিসেম্বর মুজিবনগর সরকার রাজধানী কুষ্টিয়া থেকে ঢাকায় স্থানান্তর করে বঙ্গভবনে এসে ওঠেন। মোশতাক চলে যান তার আগামসি হলেনস্থ বাড়িতে। ২২ তারিখ তাজউদ্দীন আহমেদ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নতুন করে শপথ নিয়ে নতুন মন্ত্রিপরিষদ গঠন করেন। খন্দকার মোশতাকের স্থলে আব্দুস সামাদ আজাদকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী করা হয়। আইনমন্ত্রী হিসেবে মোশতাককে শপথ গ্রহণের আহবান জানালেও তা প্রত্যাখ্যাত হয়। জাতিরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা ও রাষ্ট্রপতি হিসেবে ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু স্বদেশ ফেরেন। ১২ জানুয়ারি তিনি প্রধানমন্ত্রীর পদগ্রহণ করলে তাজউদ্দীন মন্ত্রিপরিষদ বিলুপ্তি ঘটে। নতুন মন্ত্রিসভায় মোশতাক বিদ্যুৎ ও সর্বশেষ বঙ্গবন্ধুর বাকশাল মন্ত্রিসভার বাণিজ্যমন্ত্রী নিযুক্ত হন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে প্রায় সপরিবারে হত্যার পর বিশ্বাসঘাতক মোশতাক রাষ্ট্রপতি হন। ৮১ দিনের মাথায় ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার আগে তিনি জাতীয় চার নেতাকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে হত্যার নির্দেশ দেন। বঙ্গবন্ধুর খুনিরাই সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমেদ, এম মনসুর আলী ও এএইচএম কামরুজ্জামানকে হত্যার আগে কারাগারে পাঠান। চারনেতা খন্দকার মোশতাকের প্রস্তাব প্রত্যাখান করে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করে প্রমাণ করেন যে, তাঁরা যথার্থ অর্থেই বঙ্গবন্ধুর যোগ্যতম সহচর ও উত্তরাধিকারী ছিলেন।-

উল্লেখ্য, ইয়াহিয়ার অধীনে ১৯৭০ সালের ৭ ডিসেম্বর পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের এবং ১৭ ডিসেম্বর সকল প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনের ফলাফলকে কেন্দ্র করেই ঘনিয়ে এলো মহা বিপর্যয়। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ শুধু পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদেই নয়, পাকিস্তান জাতীয় পরিষদেও নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করায় পাকিস্তানের এ রাজনৈতিক সংকটের কারণ। ১৯৭১ সালের ৩ জানুয়ারি ঢাকার রেসকোর্স ময়দানের জনসমুদ্রে নব নির্বাচিত জাতীয় পরিষদ ও প্রাদেশিক পরিষদ সদস্যদের ব্যতিক্রমী এক গণশপথ গ্রহণ করিয়ে হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বললেন,”কেউ বেঈমানী করলে তাকে জ্যান্ত কবর দেবেন।” বঙ্গবন্ধু আওয়ামী লীগ পার্লামেন্টারী পার্টির নেতা হিসাবে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের (ন্যাশনাল এসেম্বলি) নেতা এবং সৈয়দ নজরুল ইসলাম উপনেতা নির্বাচিত হন। পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের নেতা নির্বাচিত হন এম মনসুর আলী। চিফ হুইপ অধ্যাপক ইউসুফ আলি এবং হুইপ করা হয় ব্যারিস্টার আমীর উল ইসলামকে। অচিরেই বঙ্গবন্ধু নির্বাচনের প্রতিশ্রুতির আলোকে পাকিস্তানের শাসনতন্ত্র রচনার জন্য আওয়ামী লীগ পার্লামেন্টারী পার্টির পক্ষে একটি সাব-কমিটি গঠন করলেন। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বাধীন ওই সাব-কমিটির পদবী ক্রমানুসারে সদস্যরা হলেন নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, এম মনসুর আলী, খন্দকার মোশতাক আহমেদ, নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সাধারণ সাধারণ সম্পাদক এ এইচ এম কামরুজ্জামান, পূর্বপাকিস্তান প্রাদেশিক আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দীন আহমদ ও ডঃ কামাল হোসেন। পশ্চিম পাকিস্তান আওয়ামী লীগের কেউ নির্বাচনে জয়ী না হওয়ায় সাব-কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত হতে পারেননি। নির্বাচনী ফলাফল অনুযায়ী জাতীয় পরিষদে বিরোধী দল হিসাবে আত্মপ্রকাশকারী

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ