১লা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ফোনে প্রশ্নফাঁস ও অসদুপায় অবলম্বনের দায়ে দুই শিক্ষককে কারাদণ্ড

সঞ্জিব দাস, গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর গলাচিপায় পরীক্ষা কক্ষে অসদুপায় অবলম্বের দায়ে দুই শিক্ষককে এক বছরের কারাদণ্ড, তিন শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার ও এক শিক্ষককে বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার কালিকাপুর নুরিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার এই ঘটনা ঘটে।
শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা কক্ষে এনড্রয়োড মোবাইল ফোন নিয়ে প্রবেশ করেছিল। ফোনে প্রশ্নপত্রের ছবি তুলে বাইরে অপেক্ষামান কল্যানকলস নেছারিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক রফিকুল ইসলামের কাছে পাঠানো হয়। তিনি প্রশ্নপত্রের উত্তর সঠিক করে শিক্ষার্থীদের কাছে প্রেরণ করেন। এ ঘটনা জানাজানি হয়ে যায়। এদিকে এই সময়ে পটুয়াখালী জেলা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. মিজানুর রহমান ও গলাচিপা উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. সাইফুল ইসলাম প্রবেশ করেন। কক্ষে তল্লাশি করে ব্লাকবোর্ডের পিছন থেকে মোবাইল এনড্রয়েড ফোন উদ্ধার করেন। মো. শাহিনের শরীর তল্লাশী কওে উদ্ধার করা হয় নকল। এরপর কক্ষ পরিদর্শক ও পরীক্ষার্থীদরকে জিজ্ঞাসাবাদে সব তথ্য বেরিয়ে আসে। পরীক্ষার্থীরা হল কল্যাসকলস নেছারিয়া মাদ্রাসার ছাত্র মো. মুজাহিদুল ইসলাম, মো.সিয়াম ও গলাচিপা এন জেড মাদ্রাসার মো. শাহিনকে অসদুপায় অবলম্বলের দায়ে বহিষ্কার করা হয়েছে। অসদুপায়ে সহযোগীতা করার অভিযোগে এন জেড মাদ্রাসার সহকারি সুপার মাও. আ.হাসান, লামনা ছালেহিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার শিক্ষক মো. আল আমিনকে এক বছরের সাজা আদেশ দেয়া হয়েছে।
গলাচিপা উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. সাইফুল ইসলাম জানান, এন জেড মাদ্রাসার সহকারি সুপার মাও.আ.হাসান, লামনা ছালেহিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার শিক্ষক মো.আল আমিনকে এক বছরের সাজা দেয়া হয়েছে।
এছাড়া পলাতক কল্যানকলস নেছারিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলামকে নিয়মিত মামলা দায়েরের জন্য গলাচিপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পরীক্ষার্থী ৩ জনকে এক বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়ে বলে তিনি জানান।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ