৬ই আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বরগুনায় চেয়ারম্যান পদে এজাহারভুক্ত প্রধান আসামির শপথ

বরগুনা প্রতিনিধি :: বরগুনায় নবনির্বাচিত ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান হিসেবে শপথ নিলেন কুপিয়ে জখম ও মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় দায়ের করা মামলার প্রধান আসামি। মোশাররফ হোসেন নামে ওই ব্যক্তিকে সদর উপজেলার ৫নং আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে শপথ পড়িয়েছেন জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) বেলা ১১টায় শিল্পকলা একাডেমিতে জেলার ২৮ জন নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানের সঙ্গে মোশাররফের ওই শপথ পাঠকালে উপস্থিত ছিলেন বরগুনা-১ আসনের সংসদ সদস্য ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

এজাহার সূত্রে জানা যায়, বরগুনা জেলায় ২৯টি ইউনিয়নে গত ২১ জুন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এম মুজিবুল হক কিসলুর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করেন বরগুনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেনের ছোট ভাই মোশাররফ হোসেন।

গত ১২ জুন দুপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোশাররফ হোসেন ও তার কর্মী বাহিনী ইউনিয়নের পূর্ব কেওরাবুনিয়া এলাকার নয়া বাজারের রাস্তায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এম মজিবুল হক কিসলুর নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করেন। এসময় নৌকা প্রতীকের কর্মী মজনু শরীফকে হত্যার উদ্দেশে মোশাররফ হোসেন অস্ত্র দিয়ে মাথায় কোপ দেন। পরে পা ভেঙে দেন।মজনুর মাথায় কুপিয়ে তাকে জখম করেন মামলার দুই নম্বর আসামি নবনির্বাচিত মেম্বার আবুল বাশার। এসময় নয়টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে একটিতে অগ্নিসংযোগ করা হয়।

পরে নৌকার প্রার্থী মজিবুল হক কিসলু বাদী হয়ে ১৩ জুন বরগুনা থানায় মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় এখনো কোনো আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

চেয়ারম্যান পদে সেই মোশাররফের শপথ ঘিরে জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। জানা যায়, শপথবাক্য পাঠ শেষে অন্যদের পাশাপাশি আসামি মোশাররফও জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমানের সঙ্গে গ্রুপ ছবি তোলেন।

এ বিষয়ে নৌকার প্রার্থী এম মজিবুল হক কিসলু বলেন, ‘আসামি মোশাররফ হোসেনকে শপথবাক্য পাঠ না করানোর জন্য বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, বরগুনা পুলিশ সুপার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও বরগুনা থানাকে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। তারপরও জেলা প্রশাসক শপথবাক্য পাঠ করিয়ে একজন আসামিকে নিয়ে গ্রুপ ছবি তুলেছেন।’

জানতে চাইলে বরগুনার জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান বলেন, ‘আদালত থেকে নিষেধাজ্ঞা ছিল না। এ কারণে শপথবাক্য পাঠ করানো হয়েছে।’

এ বিষয়ে বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে এম তারিকুল ইসলাম বলেন, ‘ইতোমধ্যে আমরা আদালতে চার্জশিট দিয়ে দিয়েছি। এখন আদালত যদি ওয়ারেন্ট দেন, তাহলে আমরা আসামিকে গ্রেফতার করব।’

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ