১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
কানাইঘাট উপজেলার প্রায় ৯০ ভাগ এলাকা বন্যা প্লাবিত শিকারপুরে আ’লীগ ও স্বতন্ত্রসহ ৩ চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র দাখিল বানারীপাড়ায় প্রধানমন্ত্রীর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে আ’লীগের আলোচনা সভা এনায়েতপুর হাটে ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা  বাকেরগঞ্জে ওসি'র নির্দেশনায় অভিযানঃ ৮ টি গাঁজার গাছসহ আটক-১ ভোলা জেলা পুলিশের মাসিক অপরাধ ও আইন শৃংঙ্খলা পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত ভোলায় পাথরবোঝাই ট্রাক নিয়ে বেইলি ব্রিজ খালে পদ্মা সেতুতে যানবাহনের টোল নির্ধারণ করলো সরকার বরিশালে মানামী লঞ্চের কেবিন থেকে অলঙ্কারভর্তি ব্যাগ চুরি বরিশালে হঠাৎ করেই ৫ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপরে

বরগুনায় রাতের আঁধারে গরুর পা ও মাথা কর্তন

বরগুনা প্রতি প্রতিনিধি :: রাতের আঁধারে গোয়ালঘর থেকে প্রতিপক্ষের গরুর পা ও মাথা কেটে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সদর থানা পুলিশ সোমবার সন্ধ্যায় বরগুনা সদর উপজেলার নলটোনা ইউনিয়নের কুমিরমারা থেকে ওই অবস্থায় গরুটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। গরুর মালিকের অভিযোগ, স্থানীয় ইউপি নির্বাচনের দ্বন্দ্বের জেরে প্রতিপক্ষরা এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে।

এ ঘটনায় সাতজনকে আসামি করে বরগুনা সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। অভিযুক্তরা হলেন, কুমিরমারা এলাকার শুক্কুর আলী, আমীর আলী, ইয়াকুব, রাসেল, ফয়সাল ও খোকন মিয়া। গরুর মালিক একই এলাকার হজরত আলীর ছেলে শাহজাহান মিয়া।

ওই মৃত গরুর মালিক শাহজাহান মিয়া জানান, তিনি মোট নয়টি গাই গরু ও একটি ষাঁড় লালন পালন করেন। প্রতিদিনের মতো গরুগুলো গোয়ালঘরে বেঁধে রেখে বরগুনার পাথরঘাটায় ছেলের শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলেন। ওই দিন রাতে গোয়ালঘর থেকে ষাড়টি নদীর পাড়ে নিয়ে পেছনের দুটি ও সামনের একটি পা ও মাথা কেটে নিয়ে ফেলে রাখা হয়। সোমবার বিকেলে স্থানীয়রা গরুটিকে এ অবস্থায় দেখতে পেয়ে তাকে খবর দেন। শাহজাহান মিয়া আরো বলেন, ইউপি নির্বাচনে স্থানীয় ইউপি সদস্য প্রার্থী শহীদুল ইসলামের লোকেরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

শাহজাহান মিয়ার স্ত্রী লাইলী বেগম বলেন, কোরবানিতে গরুটি এক লাখ ২০ হাজার টাকা দাম উঠেছিল। কিন্ত গাই গরুর প্রজননের জন্য ষাঁড়টি তারা বিক্রি করেননি। লাইলী আরো বলেন, শহীদ মেম্বারের সমর্থন না করায় নির্বাচনের পর থেকেই ক্ষতি করার হুমকি দিয়ে আসছিলেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য তালুকদার মাসউদ বলেন, সদ্য সমাপ্ত ইউপি নির্বাচনে শাহজাহান আমার কর্মী হিসেবে কাজ করেছে। প্রতিদ্বন্দ্বী ইউপি সদস্য শহীদুল ইসলাম পরাজিত হওয়ার পর আমার কর্মীদের নানাভাবে হয়রানি করে আসছে। ২৩ জুন আমার ওপর হামলা করে কুপিয়ে জখম করেছিল প্রতিপক্ষ ইউপি সদস্য প্রার্থী শহীদ। এরই ধারাবাহিকতায় আমার কর্মীর গরু চুরি করে পা মাথা কেটে হত্যা করেছে শহীদ।

তবে অভিযুক্ত শহীদুল ইসলাম এ অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, মিথ্যা অভিযোগে আমাকে হয়রানি করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে বরগুনা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কে এম তারিকুল ইসলাম বলেন, পা ও মাথাহীন গরুটি উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় সাতজনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ