৭ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
রাজাপুরের তারাবুনিয়ায় যুবককে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ! গলাচিপায় মহান বিজয় দিবস ও শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত ব্যাংক গুজবে কান দেবেন না: প্রধানমন্ত্রী হারিয়ে যাওয়া ১০ টি স্মার্ট ফোন উদ্ধার করলো ভোলা পুলিশ  বরিশাল নগরীতে জেনারেল ডায়াগনস্টিক এবং পাঁচটি ফার্মেসিকে জরিমানা ! গলাচিপায় বকুলবাড়িয়া ইউনিয়ন আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত গলাচিপায় মিথ্যা রাজাকার পুত্র বলে প্রচার করায় কোটি টাকার মানহানী মামলা অসংখ্য মানুষের চোখের জলে বিদায় নিলেন ডায়নামিক জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার। ২৮তম ট্রাব অ্যাওয়ার্ড ২০২২ মনোনয়ন পেলেন যারা মহিলা নেত্রী উপরে হামলার প্রতিবাদে দশমিনায় মানববন্ধন

আমতলীতে ১০ কেজি চালের জন্য ভাতিজার ছুরিকাঘাতে চাচা খুন!

বরগুনা প্রতিনিধি :: ১০ কেজি চালের জন্য চাচাতো ভাইয়ের ছেলে সাগরের ছুরিকাঘাতে নিহত হলেন নুরুল ইসলাম নামের এক কৃষক। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বরগুনা সরকারি হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনার সাথে জড়িত আলানুর মুন্সি ও তার মা আলেয়া বেগমকে আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার সকালে আমতলী উপজেলার সেকান্দারখালী গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

জানা গেছে, আমতলী উপজেলার সেকান্দারকালী গ্রামের আলমগীর মুন্সির (৪৮) মা আলেয়া বেগম (৬০) চাচাতো ভাসুরের ছেলে নুরুল ইসলাম মুন্সির স্ত্রী রানী বেগমের কাছ থেকে গত বছর ১০ কেজি চাল ধার নেয়। ওই চাল গত এক বছর ধরে পরিশোধ করেনি আলেয়া। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে চাচী শ্বশুড়ী আলেয়া বেগমের কাছে ওই চাল চায় রানী বেগম। এতে ক্ষিপ্ত হয় চাচী আলেয়া বেগম।

এ ঘটনার ১৫ মিনিট পরে চাচী আলেয়ার ছেলে আলানুর মুন্সি, নাতী সাগর মুন্সি ও জামাতা খলিল শিকদার দেশীয় অস্ত্র বগী ও ছুরি নিয়ে নুরুল ইসলামকে মারতে উদ্বত হয়। এ সময় নুরুল ইসলাম মুন্সির ছোট ভাই হাসান মুন্সি আলানুরকে থামায়। কিন্তু আলানুরের ছেলে সাগর মুন্সি দরজা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে চাচা নুরুল ইসলাম মুন্সির পেটে ছুরি ঢুকিয়ে দেয় বলে জানান নিহতের ছোট ভাই হাসান মুন্সি।

এতে সহযোগিতা করেন আলেয়া ও তার দু’মেয়ে খালেদা ও আসমা। নিহতের বোন মিনারা ও বিলকিস বেগম এসব তথ্য জানিয়েছেন। ওই সময় ছুরিকাঘাত করেই পালিয়ে যায় অপরাধীরা। এ ঘটনায় ঘটনাস্থলেই নুরুল ইসলাম গুরুতর আহত হয়। আহত নুরুল ইসলামকে উদ্ধার করে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে তার স্বজনরা। পরে ওই হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার হিমাদ্রী রায় আহত নুরুল ইসলামকে মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ হাসপাতাল থেকে নিহত নুরুল ইসলামের লাশ উদ্ধার করে ময়নতদন্তের জন্য বরগুনা সরকারি হাসপাতালের মর্গে পঠিয়েছে। এ ঘটনার সাথে জড়িত আলানুর মুন্সি ও তার মা আলেয়া (৬০) বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ আটক করেছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন বলেন, আলানুর মুন্সির বিরুদ্ধে হত্যাসহ একাধিক মামলা রয়েছে। তিনি ও তার ছেলে সাগর এলাকার সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত। নুরুল ইসলামকে হত্যার ঘটনায় বিচার দাবি করেন তারা।

নিহত নুরুল ইসলাম মুন্সির স্ত্রী রানী বেগম বলেন, চাচী আলেয়া বেগম গত বছর ১০ কেজি চাল ধার নেয়। ওই চাল এক বছরেও পরিশোধ করেনি। বৃহস্পতিবার সকালে আমার ঘরে চাচী আসলে আমি ওই ধার নেয়া চাল তার কাছে চাই। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি তার ছেলে আলানুর, নাতি সাগর, জামাতা খলিল শিকদার, মেয়ে খালেদা ও আসমাকে পাঠিয়ে দেয়। তারা এসে আমার স্বামীকে ছুরি মেরে হত্যা করেছে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

নিহত নুরুল ইসলাম মুন্সির ছোট ভাই হাসান মুন্সি বলেন, আলানুর বগি নিয়ে আমার ভাইকে মারতে আসে। আমি ওই বগী তার হাত থেকে টেনে নেই। কিন্তু তার ছেলে সাগর মুন্সি ঘরের দরজা ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করে আমার ভাইয়ের পেটে ছুরি ঢুকিয়ে দেয়। এতে আমার ভাই গুরুতর আহত হয়। ভাইকে হাসপাতালে আনার পরে চিকিৎসকরা আমার ভাইকে মৃত্ ঘোষণা করেছেন। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা: হিমাদ্রী রায় বলেন, নিহত নুরুল ইসলাম মুন্সির পেটের পাশে ধারারো অস্ত্রের আঘাতের চিহৃ রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তার পেটের নাড়িভুড়ি কেটে গেছে।

আমতলী থানার ওসি মো: শাহ আলম হাওলাদার বলেন, নিহত নুরুল ইসলাম মুন্সির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনার সাথে জড়িত আলানুর মুন্সি ও তার মা আলেয়া বেগমকে আটক করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ