১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
মুলাদীতে আড়িয়াল খাঁ নদে গোসল করতে নেমে ২ তরুণী নিখোঁজ বাকেরগঞ্জে বসতঘরে মিলল মাটিচাপা অবস্থায় বৃদ্ধার মরদেহ চরফ্যাসনে মাদক সেবনে বাধা দেয়ায় সাংবাদিক পরিবারের ওপর হামলা, আহত ৪ তালতলীতে বনের ২৫০ পিস লাঠি সহ গ্রেফতার ২ দুমকিতে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে গাড়ি ভাঙচুর, থানায় অভিযোগ বৈশাখ উদযাপনে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে পর্যটকের পদচারণায় মুখরিত বাদলপাড়া একতা গোরস্থানে চিরনিদ্রায় সায়িত সাংবাদিক মামুনের ‘মা’ মাদক সেবনে বাধা দেয়ায় - দুলারহাটে সাংবাদিক পরিবারের ওপর হামলা আহত-৪ বরিশাল শেবাচিমের প্রিজন সেলে আসামিকে পিটিয়ে হত্যা সাংবাদিক মামুনের মায়ের মৃত্যুতে বরিশাল তরুণ সাংবাদিক ঐক্য পরিষদের শোক

বরগুনা প্রেসক্লাবে আটকে মারধর, আহত সাংবাদিক মাসউদের মৃত্যু

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

বরগুনা প্রতিনিধি ::: বরগুনার প্রেসক্লাবে আটকে মারধরের ১১ দিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তালুকদার মাসউদ নামে এক সাংবাদিকের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (২ মার্চ) রাত ১১টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওই সাংবাদিকের মৃত্যু হয়।

এর আগে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বরগুনা প্রেসক্লাবের তৃতীয় তলায় হামলার শিকার হয়ে আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

নিহত সাংবাদিক তালুকদার মাসউদ দৈনিক ভোরের ডাক পত্রিকা ও রাজধানী টেলিভিশন নামে একটি আইপি টিভির বরগুনা জেলা প্রতিনিধি। এ ছাড়াও বরগুনা সদর উপজেলার নলটোনা ইউপির ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ছিলেন। তিনি আবদুল ওয়াহাব মাস্টারের ছেলে।

নিহত ইউপি সদস্য তালুকদার মাসুদের স্ত্রী সাজেদা বলেন, ‘গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১টার দিকে বরগুনা প্রেসক্লাবের অভ্যন্তরে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে তর্কের একপর্যায়ে এনটিভির বরগুনা প্রতিনিধি সোহেল হাফিজ ও তার ১০-১২ জন সহযোগী মিলে হামলা চালিয়ে আহতাবস্থায় তালাবদ্ধ করে রাখে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে বরগুনা ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাপসাতালে পাঠানো হয়।

ঘটনার ১১ দিন পর শনিবার (২ মার্চ) রাত ১১টার দিকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তালুকদার মাসউদ।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মাছরাঙা টেলিভিশনের বরগুনা প্রতিনিধি মুশফিক আরিফ বলেন, ‘প্রেসক্লাবে ক্যরাম খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বের একপর্যায়ে প্রেসক্লাবের ৩য় তলার অফিস রুমে বসে এনটিভির জেলা প্রতিনিধি সোহেল হাফিজের নেতৃত্বে বেশ কয়েকজন মিলে হামলা চালিয়ে মারধরের পর তালাবদ্ধ করে রাখে তাকে। পরে বরগুনা সদর থানার ওসি একেএম মিজানুর রহমান, জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বশিরুল ইসলাম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তালুকদার মাসউদকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠান।

নিহত তালুকদার মাসউদের মেয়ে সাদিয়া তালুকদার তন্নি বলেন, ‘মৃত্যুর আগে আমার বাবা ভিডিও বার্তায় বলে গেছেন, গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বরগুনা প্রেসক্লাবের ৩য় তলার অফিসরুমে বসে এনটিভির জেলা প্রতিনিধি সোহেল হাফিজের নেতৃত্বে দৈনিক ভোরের আকাশের জেলা প্রতিনিধি কাশেম হাওলাদার, এনটিভির ক্যামেরা পার্সন আরিফুল ইসলাম মুরাদসহ বেশ কয়েকজন মিলে হামলা চালিয়ে তালাবদ্ধ করে রেখেছিল।’

তন্নি আরও বলেন, ‘আমার বাবাকে ওরা প্রেসক্লাবে আটক রেখে হামলা করে হত্যা করেছে। আমি আমার বাবার হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

বরগুনা সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাসেম মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘১৯ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১টার দিকে বরগুনা প্রেসক্লাবের তৃতীয় তলা থেকে তালুকদার মাসুদ নামের এক সাংবাদিককে আমরা গুরুতর আহতাবস্থায় উদ্ধার করে চিকিৎসায় পাঠিয়েছিলাম। গতকাল রাত ১১টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হাসপাতালে তাঁর মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। মামলা হওয়ার পর আমরা যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেব।’

সর্বশেষ