২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

বরিশালে বিপৎসীমার ওপরে নদ-নদীর পানি

নিজস্ব প্রতিনিধি : বরিশালের বিভিন্ন নদ-নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। নদ-নদীর পানি বেড়ে যাওয়ায় বরিশাল নগরসহ আশপাশের এলাকার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

নদী তীরবর্তী বরিশাল নগরের কলোনির সড়কগুলো জোয়ারের পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় জনজীবনে স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। এছাড়া পানিবন্দী হয়ে পরেছেন এসব এলাকার মানুষ।

সেই সঙ্গে পানির স্রোতের গতিবেগ প্রবল থাকায় বরিশাল সদর উপজেলার লামচরি, বাবুগঞ্জ উপজেলার আগরপুর, রহমতপুর, মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা সদর, শ্রীপুর, চরগোপালপুর, উলানিয়াসহ বিভিন্ন উপজেলায় নদী তীরবর্তী মানুষের মধ্যে ভাঙন আতঙ্ক বিরাজ করছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) বরিশাল কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বিকেল ৫টা পর্যন্ত সর্বশেষ হিসেব অনুযায়ী বরিশালের কীর্তনখোলা নদীর পানি বিপৎসীমার ৪৫ সেন্টিমিটার, বাকেরগঞ্জের বুড়িশ্বর নদীর পানি বিপৎসীমার ২৭ সেন্টিমিটার, আবুপুরের নয়াভাঙ্গুনি নদীর পানি বিপৎসীমার ৯৮ সেন্টিমিটার, ভোলার দৌলতখানের সুরমা-মেঘনা নদীর পানি বিপৎসীমার ১০৪ সেন্টিমিটার, ভোলা খেয়াঘাট সংলগ্ন তেতুলিয়া নদীর পানি বিপৎসীমার ৫৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এছাড়া মির্জাগঞ্জের বুড়িশ্বর বা পায়রা নদীর পানি বিপৎসীমার ৩৪ সেন্টিমিটার, আমতলীর বুড়িশ্বর বা পায়রা নদীর পানি বিপৎসীমার ২২ সেন্টিমিটার, ঝালকাঠির বিষখালী নদীর পানি বিপৎসীমার ২৭ সেন্টিমিটার, বেতাগীর বিষখালী নদীর পানি বিপৎসীমার ২৯ সেন্টিমিটার, বামনার বিষখালী নদীর পানি বিপৎসীমার ৭৭ সেন্টিমিটার, বরগুনার বিষখালী নদীর পানি বিপৎসীমার ২৯ সেন্টিমিটার, পাথরঘাটার বিষখালী নদীর পানি বিপৎসীমার ৪৫ সেন্টিমিটার ও উমেদপুরের কঁচা নদীর পানি বিপৎসীমার ১৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া পিরোজপুরের বলেশ্বর নদীর পানি বিপৎসীমার ১৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

বুধবার সারাদিন বরিশালসহ দক্ষিণের জেলাগুলোর বিভিন্ন স্থানে থেমে থেমে বৃষ্টি হয়েছে। গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে রাস্তাঘাট অনেকটাই কর্দমাক্ত হয়ে গেছে। বিশেষ করে বরিশাল নগরের ভাঙ্গা রাস্তার খানা-খন্দগুলোতে পানি জমে যানবাহন ও মানুষের স্বাভাবিক চলাচল ব্যহত হচ্ছে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ