২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বর্তমানে যেন কপি-পেস্টের মধ্যে বন্দি হচ্ছে সাংবাদিকতা !

বলা হয়ে থাকে, সাংবাদিকতা একটি মহান পেশা। রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ। এ পেশায় যারা ছিলেন,আছেন, ভবিষ্যতে আসবেন তাদের অনেকেরই পেশাগত যোগ্যতার চেয়ে মুখের যোগ্যতা অধিক বেশি বলে মনে হয়। একজন সাংবাদিকের কোন দল নেই, অথচ দলের প্রতি অনেকের প্রকাশ্য সমর্থন। কারও কারও হয়তো গোপনে। তবে রাজনৈতিক তকমা লাগানো সাংবাদিকরা যে এ সময়ে সবচেয়ে ভাল আছেন তা নিঃসন্দেহে যে কেউ স্বীকার করবেন। সাংবাদিকতা বহু প্রকারের হতে পারে। কেউ করেন প্রটোকল জার্নালিজম, কেউ করেন ফটোজার্নালিজম, কেউ বা করেন অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা, আবার কেউ কেউ আছেন হলুদ সাংবাদিকতার ধাচে ফেইক সাংবাদিকতা করে মজা লুটে নিচ্ছেন। আমেরিকার বিখ্যাত হলুদ সাংবাদিকতার প্রতিকৃত পুলিৎজারকেও হার মানাবেন। এযুগে এখন আর হলুদ সাংবাদিকতা নামটা তেমন নেই বললেই চলে। বর্তমানে চলছে ফেইক সাংবাদিকতা। সাংবাদিক নন অথচ হাতে থাকা স্মার্ট ফোন দিয়ে তৎক্ষণাৎ একটা পিক তুলে বা ভিডিও ধারণ করে ফেসবুক টুইটারের মত সোস্যাল মিডিয়ায় প্রকাশের হুমকি ধামকি দিয়ে চলে উপুরি কামাইয়ের ধান্ধা! যা এখন ফেইক নামে পরিচিত। বাংলাদেশে মিডিয়া জগতে যারা বড় বড় জায়গায় নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন তারা ক’জন জার্নালিজম পড়েছেন? জার্নালিজম পড়ে কিংবা বিশেষ কোন কোর্স করেছেন এমন সাংবাদিকের সংখ্যা খুবই কম। প্রেস ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (পিআইবি) সাংবাদিকদের পেশাগত যোগ্যতা তৈরীর জন্য বিভিন্ন প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ করে তুলছেন। প্রেসকাউন্সিল আইন, গণযোগাযোগও সাংবাদিকতা বিষয়ে পড়ার আগ্রহটাও অনেকের নেই। একটি পত্রিকার কিংবা অনলাইন মিডিয়ার সম্পাদক বা টেলিভিশন পরিচালক যে কোন মিডিয়ায় কাজ করতে হলে প্রথমতঃ যোগ্যতার মাপকাঠি থাকা চাই। যোগ্যতার কোন বালাই নেই, যে যার মত নিজে নিজে অনলাইন পোর্টাল খুলে সেচ্ছাচারিতার শীর্ষে চলে গেছেন। এ জগতে এক অসম প্রতিযোগীতায় নেমে পরেছেন। সরকার সাংবাদিকদের নূন্যতম স্নাতক পাস যোগ্যতা ঘোষণা করলেও বাস্তবে তা নেই। কপি নিউজ বা পেস্ট কাট নিউজ নিয়ে হরদম হৈচৈ পরে যায়। নিজের মেধা বুদ্ধি খরচ করেন ক’জনে? এক লাইন নিউজ লেখার যোগ্যতা নেই, অথচ এমন অনেকেই আছেন সংগঠন খুলে সভাপতি পদে বসে আছেন। সাংবাদিকতার কোন নিয়ম নীতি অনুসরণ করতে হয় না বলেই সর্বত্রই চলছে নামসর্বস্ব পেশাদারিত্ব। এটা নিশ্চয়ই শুভসংবাদ নয়। প্রশাসনেরও এ নিয়ে তেমন কোন মাথা ব্যথাই নেই। যাচ্ছেতাই অবস্থা বিরাজমান। সাংবাদিকতা লাগামহীন ঘোড়ায় পরিণত হয়েছে। নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা করা হচ্ছে না।

লেখক : সুব্রত বিশ্বাস,

সম্পাদক ও প্রকাশক-  বরিশাল মুক্তখবর

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ