১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
২ দিনও থাকা হলো না নতুন ঘরে, আগু/নে পুড়ে ছাই বসতঘর মুলাদীতে আড়িয়াল খাঁ নদে গোসল করতে নেমে ২ তরুণী নিখোঁজ বাকেরগঞ্জে বসতঘরে মিলল মাটিচাপা অবস্থায় বৃদ্ধার মরদেহ চরফ্যাসনে মাদক সেবনে বাধা দেয়ায় সাংবাদিক পরিবারের ওপর হামলা, আহত ৪ তালতলীতে বনের ২৫০ পিস লাঠি সহ গ্রেফতার ২ দুমকিতে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে গাড়ি ভাঙচুর, থানায় অভিযোগ বৈশাখ উদযাপনে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে পর্যটকের পদচারণায় মুখরিত বাদলপাড়া একতা গোরস্থানে চিরনিদ্রায় সায়িত সাংবাদিক মামুনের ‘মা’ মাদক সেবনে বাধা দেয়ায় - দুলারহাটে সাংবাদিক পরিবারের ওপর হামলা আহত-৪ বরিশাল শেবাচিমের প্রিজন সেলে আসামিকে পিটিয়ে হত্যা

পটুয়াখালীতে ইলিশ শিকারে মানা হচ্ছেনা নিষেধাজ্ঞা!

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

বাউফল (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি :: পটুয়াখালী বাউফলের তেতুঁলিয়া নদীর ৪০ কিলোমিটার এলাকায় মা ইলিশের অভয়ক্ষেত্র অরক্ষিত হয়ে উঠেছে। সরকারের দেয়া বিধি-নিষেধ অমান্য করে তেতুঁলিয়া সহ আশেপাশের নদীতে মাছ শিকার করতে উঠে পরে লেগেছেন নদী পারের জেলেরা। নদীতে মৎস্য অধিদপ্তর ও উপজেলা থানা পুলিশ নিয়মিত টহল এবং অভিযান পরিচালনা করলেও তাদের চোখঁকে ফাঁকি দিয়েই চলছে ইলিশ ধরার মহোৎসব।

সোমবার (১১ অক্টোবর) বিকেলে উপজেলার কাছিপাড়া ইউনিয়নের বাহেরচর এলাকার পাশ থেকে বয়ে যাওয়া কারখানা নদীতে গিয়ে দেখা যায় ৭-৮ টি নৌকা নিয়ে দেধারছে ইলিশ শিকার করছে জেলেরা, প্রায় ঘন্টাখানেক সেখানে অপেক্ষা করলেও নদীতে অভিযান পরিচালনাকারী কোন টিমকে সেখানে দেখা যায়নি।

নদী পাড়ে সাংবাদিকরা এসেছেন এমন খবর মুঠোফোনের মাধ্যমে নদী পাড় থেকে নদীতে থাকা জেলেদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার পরই তারাহুরা করে জাল গুছিয়ে পালিয়ে যায় ঔই জেলেরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নদী পারের একাধিক ব্যক্তিরা বলেন নদীতে কখন অভিযান পরিচালনাকারী টিমের সদস্যরা আসবেন তারা (জেলেরা) সেটি খুব সহজেই তাদের গোপন সোর্সের মাধ্যমে জানাতে পারেন। অভিযান পরিচালনাকারী টিমের সদস্যরা আসার একটু আগেই জাল গুটিয়ে নদী থেকে উঠে আসেন জেলেরা, তাই ধরা পরার সম্ভাবনা খুবই কম থাকে।

ঐদিকে বুদ্ধি খাটিয়ে জেলেরা তাদের অপ্রাপ্ত বয়স্ক (১৮ বছরের কম ব্যক্তি) শিশুদেরকে পাঠাচ্ছেন মাছ শিকার করতে যাতে করে আটক হলেও শাস্তি থেকে বেচেঁ যেতে পারেন তারা।

ফজরের নামাজের আগ মুহুর্তে (শেষ রাতে) এবং বিকাল শেষে সন্ধ্যার দিকেই মূলত নদীতে বেশি দেখা যায় জেলেদেরকে।

অভিযোগ রয়েছে স্থানীয় ভাবে তৈরি করা ইলিশ রক্ষা কমিটির লোকজনেরা ইলিশ রক্ষার নামে নিজেরাই করছেন ইলিশ শিকার।

এসব বিষয়ে বাউফল উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মাহবুব আলম তালুকদার বলেন, আমরা প্রতিনিয়ত অভিযান পরিচালনা করছি, দিনরাত ২৪ ঘন্টাই আমরা নদীতে অবস্থান করছি, বারবার জেলেদেরকে সরকারের দেয়া বিধি-নিষেধ মেনে চলার জন্য অনুরোধ করছি, এরপরও যেসব জেলেরা বিধি-নিষেধ না মেনে নদীতে জাল ফেলছেন তাদের বিরুদ্ধে আমরা আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিচ্ছি। আমাদের এ অভিযান চলমান থাকবে। আর গতকালকে বাহেরচরের নদীতে যেসব জেলেরা জাল ফেলেছিলেন তারা সবাই বাকেরঞ্জের। আমি বাকেরগঞ্জের উপজেলা প্রশাষনকে বিষয়টি সর্ম্পকে অবহিত করেছি। এবং গতকাল রাতে ঔই এলাকায় জেলা থেকে আগত টিমের সাথে একত্রে আমরা বিশেষ অভিযান পরিচালনা করেছি।

সর্বশেষ