২০শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বাউফলে সুদখোরের হাত থেকে বাচঁতে একটি হিন্দু পরিবারের সংবাদ সম্মেলন।

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

কামরুল হাসান, জেলা প্রতিনিধিঃ
পটুয়াখালীর বাউফলে সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় সুদখোরের নির্যাতনের ভয়ে ভিটামাটি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন একটি হিন্দু পরিবার। সুদখোরের হাত থেকে বাঁচার আকুতি জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন উপজেলার কালিশুরী ইউনিয়নের মানখাম গ্রামের ওই হিন্দু পরিবারটি। আজ মঙ্গলবার পৌরশহরে হাসপাতাল রোডের একটি ভবনে সংবাদ সম্মেলন করেন তারা।
সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী জয়ন্ত বিশ্বাস(৩৫) বলেন, বাউফল উপজেলার কালিশুরী ইউনিয়নের মানখাম গ্রামের বাসিন্দা মো. জালাল হাওলাদারের ছেলে মো. কামাল হাওলাদারের (সুদি কামাল) কাছ থেকে দশ বছর আগে বিশেষ প্রয়োজনে সুদের ওপর পঞ্চাশ হাজার টাকা নিয়েছিলাম। তিন বছর আগে জমিজমা বিক্রি করে সুদ-আসলে প্রায় ১২লাখ টাকা পরিশোধ করেছি। তিন বছর পর আবারও তিন লাখ টাকা দাবি করেন সুদি কামাল। টাকা দিতে না পারায় আমাদের বসত ঘরে হামলা করেন সুদি কামাল ও তার ভাই মো. রফিক। তাদের অত্যাচার-নির্যাতন থেকে বাঁচতে মা, স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে গত চার মাস ধরে পালিয়ে বেড়াচ্ছি। পালিয়েও শেষ রক্ষা হয়নি। একমাস আগে আমাদের ৪০কড়া জমির ধান কেটে নিয়ে গেছে কামাল ও তার পরিবারের লোকজন জয়ন্ত বিশ্বাসের মা কানন বিশ্বাস সাংবাদিকদের বলেন,‘ যেটুকু জমি ছিল তা বিক্রি করে সুদের টাকা দিয়েছি। এখন ভিটা ছাড়া কিছু নেই। সেই ভিটায় থাকতে পারছি না। আরও টাকা চায়। দিতে না পারায় আমাদের ঘর দুয়ার ভাঙ্গে। অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। আমার ছেলেকে মারার হুমিক দেয়। তাই ঘর-বাড়ি ছেড়ে মেয়ের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছি
সুদ ব্যবসায়ী কামালের অত্যাচার নির্যাতনের কথা সাংবাদিকদের জানানোর কারনে জয়ন্ত বিশ্বাসের বোনের ছেলে আশিসকে মুঠোফোনে হুমকিও দিয়েছে সুদি কামাল। হুমকির ফোন রেকর্ডে কামালকে বলতে শোনা যায়, ‘সাম্বাদিক আমার কি করবে। আমি কোনো সাম্বাদিক জিগাই না। আমি সাম্বাদিক মারি। সাম্বাদিক আমার কাছে পাঠিয়ে দিস।’
এবিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত মো. কামাল হাওলাদার মুঠোফোনে বলেন,‘ আমার কাছ থেকে পাঁচ লাখ টাকা নিয়েছে জমি দেওয়ার কথা বলে। যার স্বাক্ষী আছে। এহন আমারে জমির দলিল দিতে হবে।
বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আল মামুন বলেন,‘লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সর্বশেষ