১৩ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বাকেরগঞ্জের খয়রাবাদে পাকিস্তান আমলের ইউপি ভবন, তিন দশকেও পুনঃনির্মাণ হয়নি

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

রিপোর্ট অলিউল্লাহ খান: বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার গারুড়িয়া ইউনিয়নের খয়রাবাদ বাজার সংলগ্ন অবস্থিত স্থায়ী ইউনিয়ন পরিষদ। এটি স্থাপিত হয় ১৯৬০ সালে। তৎকালীন চেয়ারম্যান বিশিস্ট সমাজ সেবক গারুড়িয়া ইউনিয়নের রুপকার মরহুম মজিবর রহমান মোল্লা এর আমলে ভবনটি নির্মান করা হয়েছিল।

বর্তমানে ইউনিয়ন পরিষদের চরম বেহাল দশা। সারা দেশে দৃস্টি নন্দন ইউনিয়ন পরিষদ ভবন তৈরি হলেও এখানে তার ব্যতিক্রম। দেখার যেন কেউ নেই ?
ইউনিয়নের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্থান তার কার্যালয় এখান থেকেই ৪৯ বছর যাবৎ ইউনিয়নের সকল কার্যক্রম পরিচালনা তথা সকল কিছু নির্ধারিত হয়েছে।
চাল গম আটা ও ত্রাণসামগ্রী বিতরণ থেকে শুরু করে জন্ম সনদ, মৃত্যু সনদ ,নাগরিকত্ব সনদ, চরিত্র সনদপত্র ইত্যাদি।ছবিতে যে ভবনটি দেখছেন সেটি,পাকিস্তান আমলে নির্মিত এই ভবনের দেয়াল ও ছাদের পলস্তরা খসে পড়ছে। ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের কক্ষে কার্যক্রম পরিচালনা করতেন চেয়ারম্যান এবং সচিব।
এছাড়াও পোস্ট অফিস, গুদামঘর, গ্রাম সালিশ কক্ষ দুটির ও বেহাল অবস্থা।ছাদ থেকে খসে পড়ছে পলস্তরা। বেশকিছু জায়গায় বেরিয়ে পড়েছে রড। ভবনের আশপাশে ময়লা আবর্জনার স্তুপ জমে উঠেছে।
প্রতিটি চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী তাদের নির্বাচনী ইশতেহারে যদিও বলে থাকেন ইউনিয়ন পরিষদের সংস্কারের কথা এবং নিয়মিত এখানে বসে পরিষদ পরিচালনার কথা কিন্তু নির্বাচিত হওয়ার পর তা আর দেখা যায় না।
এই বিষয়ে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করলে ইউনিয়নের দায়িত্বে থাকা এস এম জুলফিকর হায়দার চেয়ারম্যান তিনি বলেন, একটি আধুনিক ইউনিয়ন ভবনের জন্য জমির প্রয়োজন।

যার ফলে আটকে আছে ২০ গ্রামের স্বপ্ন। খুবই জরুরী ভিত্তিতে গারুড়িয়া ইউনিয়নে পরিষদ কমপ্লেকস ভবন খয়রাবাদ বাজার সংলগ্ন সুন্দর স্থান দেখে নির্মাণ প্রয়োজন।অতি শীঘ্রই সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্পে সন্নিবেশিত করে গারুড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়” টি নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করুন এবং ইউনিয়নের কার্যক্রমে গতিশীলতা আনতে স্থানীয় প্রশাসন সহ এলাকার সকলের দৃষ্টি কামনা করছি।

সর্বশেষ