১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
বোরহানউদ্দিনে মাটির নিচে চাপা পড়ে গৃহবধূর মৃত্যু কাঁঠালিয়ায় ডাকাতের গুলিতে আহত ২, টাকা-স্বর্ণালঙ্কার লুট শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র রাজপথে মোকাবিলা করতে হবে : পিরোজপুরে শেখ পরশ পটুয়াখালীতে মহাসড়কে অটোরিকশা চালাতে প্রতি মাসে দিতে হয় হাজার টাকা দশমিনায় মোটরসাইকেল মার্কার কর্মীকে পেটালো প্রতিপক্ষ জাল ভোট পড়লেই ভোটকেন্দ্র বন্ধ : ঝালকাঠিতে ইসি আহসান বরিশালে ‘নো হেলমেট, নো ফুয়েল’ বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে পুলিশ বরগুনায় জুয়া খেলার ছবি তোলায় সাংবাদিককে মা*রধর, ক্যামেরা ছিন*তাই দুর্যোগ মোকাবিলায় ১ কোটি স্বেচ্ছাসেবী গড়ে তোলার পরিকল্পনা মঠবাড়িয়ায় মাদ্রাসার নিয়োগে ৫০ লক্ষ টাকার উৎকোচ বানিজ্য !

বিসিসি নির্বাচন : প্রার্থিতা প্রত্যাহার না করলে ৬ ওয়ার্ডে পরিবারের মাঝেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

নিজস্ব প্রতিবেদক :: একদিন বাকি থাকতেই বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী বেশ কয়েকজন কাউন্সিলর প্রার্থী তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহারের আবেদন জানিয়েছেন। এরমধ্যে মহানগর বিএনপির সাবেক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ সাইদুল হাসান মামুন, জেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাবিবুল্লাহসহ বেশ কয়েকজন রয়েছেন।

যদিও বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করার সিদ্ধান্তে আজ প্রত্যাহারের শেষ দিনেও (বৃহস্পতিবার) এই সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

কারণ, ইতোপূর্বে অনেক বিএনপি নেতাই নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। আবার অনেক জায়গায় একই পরিবারের একাধিক ব্যক্তি মনোনয়নপত্রের বৈধতা নিয়ে নির্বাচনের মাঠে রয়েছেন। বিভেদ না থাকলে তাদের মধ্য থেকেও অনেকে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করতে পারেন।

বিসিসি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, নগরের ২ নম্বর ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর অ্যাডভোকেট এ.কে.এম, মুরতজা আবেদীন, তার স্ত্রী নাছিমা বেগম ও ছেলে এস.এম. মাকীন আবেদীন বৈধ প্রার্থী হিসেবে এখনও নির্বাচনের মাঠে রয়েছেন।

এছাড়া ১১ নম্বর ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর মজিবর রহমান ও তার ছোট ভাই জিয়াউর রহমান, ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মো. মোশারেফ আলী খানের স্ত্রী রুবিনা আক্তার ও তার ছেলে মো. আল জায়েদ খান, ২২ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর আ.ন.ম সাইফুল আহসান আজিম ও তার স্ত্রী জেসমিন সামাদ শিল্পী, ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মো. ফিরোজ আহমেদ ও তার ছোট ভাই কাওছার হোসেন শিপন, ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে সাবেক কাউন্সিলর মো. হুমায়ুন কবির ও তার ছোট ভাই সহিদুল ইসলামও বৈধ প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন।

তবে এসব প্রার্থী শেষ পর্যন্ত নির্বাচনী মাঠে অন্য প্রার্থীদের সঙ্গে পরিবারের সদস্যদেরও প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে দেখছেন কিনা সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যাবে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের সময় শেষ হলেই।

এদিকে একাধিক সাধারণ আসনের কাউন্সিলররা তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহারের আবেদন দিলেও, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর এবং কোনো মেয়রপ্রার্থী তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহারের জন্য আবেদন করেনি বলে নিশ্চিত করেছে নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়।

বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ পর্যন্ত ৫ জনের মতো কাউন্সিলর প্রার্থী প্রার্থিতা প্রত্যাহারের আবেদন করেছেন। যার মধ্যে নগরের ১ নম্বর ওয়ার্ডে সৈয়দ সাইদুল হাসান মামুন, ৭ নম্বর ওয়ার্ডের শেখ মো. আলম, ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে নুরুল ইসলাম সম্রাট, ২২ নম্বর ওয়ার্ডে মো. হাবিবুল্লাহ, ২৬ নম্বর ওয়ার্ডে মো. জিয়াউর রহমান রিটার্নিং কর্মকর্তা বরাবর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের আবেদন করেছেন।

এদের মধ্যে ৭ নম্বর ওয়ার্ডের শেখ মো. আলম মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করায় সেখানে অ্যাডভোকেট মো. রফিকুল ইসলাম (খোকন) নামে মাত্র একজন প্রার্থী রয়েছেন, বাকিগুলোতে একাধিক প্রার্থী রয়েছেন।

বরিশাল সিটি করপোরেশনের সহকারী রিটার্নিং অফিসার মনিরুল ইসলাম জানান, আজ বৃহস্পতিবার প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। এরপরই প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে প্রার্থীদের। প্রতীক বরাদ্দের পর নিয়ম মেনে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রার্থীরা প্রচার-প্রচারণা শুরু করবেন।

সর্বশেষ