২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম

বেসরকারি ক্লিনিক /হাসপাতাল/ডায়াগনস্টিক কি শুধু ব্যবসার জন্য দোকান খুলে বসেছে ?

ঈদের পর দিন ২৬/ ০৫ / ২০ আমার এলাকার এক রোগী বয়স ৬২ বছর গত চারদিন আগে বাসায় পড়ে গিয়ে কোমড়ে ব্যথা পায় হিপ জয়েন্ট ভেঙ্গে যায় অনেক কস্ট করে বরিশালে আনা হয়, করোনা কাল সব জায়গায় সমস্যা রোগী লোক চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ব্লাড টেস্ট রুটিন টেস্ট, প্রস্বাব, যেহেতু ডায়াবেটিস আছে ডায়াবেটিস টেস্ট, এক্সরে করতে ল্যাব এইড সদর রোডে যায় দেখে বন্ধ, বড় বড় সবাই বন্ধ , এখন আমার প্রশ্ন হল, সরকার তো ইচ্ছে করে বেসরকারি হাসপাতাল ক্লিনিক সুযোগ করে দিসে যাহাতে তারা টাকা বেশি নিলেও জনগণের স্বাস্থ্যসেবা টা নিশ্চিত করা যায়, সরকার তো উদার কিন্তু এই সময় করোনা রোগী ছাড়া তো অনেক রোগী আছে যারা সারা বছর বেশি টাকা দিয়ে ল্যাবএইড বা মেডিনওভার মতো ভাল কর্পোরেট ব্যবসা করে তাদের কাছ থেকে টাকা বিনিময় সেবা ক্রয় করেছে, আজ আমি মনে করি, ঈদ বা অন্য কোন ছুটিতে কি মানুষ অসুস্থ হতে পারে না, তারা কেন এই দুরসময়ে তাদের প্রতিস্টান বন্ধ রাখবে, একটি বড় প্রতিস্টান তাদের তো ঈদ হলে অন্য ধর্মের লোক দ্বারা পরিচালনা করা উচিত ছিল, আসলে আমি বুজলাম তারা ভাল রোগী ভাল করে, মানে টাকা ইনকাম করাই তাদের মূখ্য উদেশ্য, কখন বন্ধ বা কখন খোলা রাখবে তা তাদের একান্ত ব্যক্তিগত ব্যাপার সরকারের থেকে অনুমতি চালানোর জন্য দরকার বাকি টা তাদের ইচ্ছে মত হবে ।

আমার প্রশ্ন হল ঈদের দিন কি মানুষ অসুস্থ হতে পারে না, সরকারি হাসপাতাল খোলা থাকবে আর বেসরকারি ডায়াগনস্টিক বন্ধ থাকবে কেন? তারা কি সরকারে অধীনে না, স্বাস্থ্য সেবা বন্ধ থাকতে পারে না, হউক সরকারি বা বেসরকারি,
আমি আমার কথা বলছি না, আপনারা বুকে হাত দিয়ে বলেন রাত ১১ টায় যদি আপনার বাবা মা র ডায়াবেটিস বেড়ে যায় বা কিডনি বা রক্তের টেস্ট দরকার হয় তখন কোন ডায়াগনস্টিক আপনার টেস্ট করবে কিনা তা এখন ভাবার সময় এসেছে, আপনি চিকিৎসক বা বড় আমলা রাতে আপনার বাবা ব্রেন স্টোক করেছে রাতেই দেখতে হবে ব্রেনে রক্ত জমাট বেধেছে কিনা সিটিস্ক্যান দরকার আপনার হাসপাতালে মেশিন আছে লোক আছে কিনা সেটা আপনার জানতে হবে এবং জনগণের দায়িত্ব এসব জেনে রাখা ।

আমরা দিনে সুসময় স্বাস্থ্য সেবা চাই না , আমরা রাএিকালীন দুর সময়ের স্বাস্থ্য সেবা চাই ।
আমার বাবা রাত ১২ টায় স্টোক করে রাতে তার ব্লাড সুগার টেস্ট ঘড়ে বাহিরে কোথাও করাতে পারি নাই, রাত ১১ টায় পেটে প্রচন্ড ব্যথা আল্টা দরকার করাতে পারি নাই,, চিকিৎসক বাবা রাতে স্টোক করেছে রাত ১ টা কোথাও সিটিস্ক্যান করাতে পারি নাই, করাতে হয়েছে বাহিরে, ভেন্টিলেটর অভাবে মারাগেল তরুণ চিকিৎসক নয়ন, কাউকে কস্ট দিতে না, আসুন নিজের বাবা মার জন্য করেন আপনাদের হাতে ক্ষমতা আছে সেটার সু ব্যবহাড় করেন, টাকা দিয়ে আর সিঙ্গাপুর যেতে পারবেন না সেই দিন আল্লাহ বন্ধ করে দিসে,
আর বেসরকারি ক্লিনিক ডায়াগনস্টিক দিকে খেয়াল দেন কখন চলবে আবার কখন বন্ধ করবে অবশ্য ই সরকারের অনুমতি নিতে হবে, সরকারি হাসপাতালে ৫০ টাকার ব্লাড সিবিসি টেস্ট ৪০০ টাকা নিবেন আর ঈদের দিন বা পূজা বা ঈদের পর দিন বলে প্রতিস্টান বন্ধ রাখবেন এটা তো হতে পারে না, স্বাস্থ্য সেবা ২৪ ঘন্টা চালু রাখতে হবে জনগনের হক আছে আপনার প্রতিস্টানে
মৃত্যু তো সামনে আসুন সত্যি বলি, সৎ মানুষ কে সাহায্য করি

তাহেরুল ইসলাম সুমন
প্রভাষক
আইএইচটি, বরিশাল

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ