২৩শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বৈশাখ উদযাপনে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে পর্যটকের পদচারণায় মুখরিত

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

হোসাইন আমির কুয়াকাটা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ
ঈদ ও পহেলা বৈশাখ উদযাপনে নানা বয়সের হাজার হাজার পর্যটক ও দর্শনার্থীদের ভিড়ে মুখরিত কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত। সকাল থেকে দর্শনার্থী ও পর্যটকের থেমে নেই আনন্দ। বেলা যত বাড়তে থাকে ততই পর্যটকের ভিড় বাড়তে থাকে সমুদ্র সৈকতে। আগত এসব দর্শনার্থী ও পর্যটকরা সমুদ্র নীল জলে সাঁতার কাটাসহ প্রিয়জনের সঙ্গে ছবি তুলে দিনটি উপভোগ করছেন। অনেকে আবার সৈকতের বেঞ্চে বসে উপভোগ করছেন সমুদ্র ও প্রকৃতি। সৈকতে হই হুল্লোড়, ছুটাছুটি, ফুটবল খেলা যেন আনন্দের কমতি ছিল না। সমুদ্রর উত্তাল ঢেউয়ের তালে তালে নেচে গেয়ে আনন্দ উৎসব মেতে ওঠে আগত পর্যটক এবং দর্শনার্থীরা।কুয়াকাটার কুয়া, সৈকতের লেম্বুরবন, তিন নদীর মোহনা, গঙ্গামতির লেক, লাল কাকড়ার চর, মিশ্রিপাড়া বদ্ধ বিহার, শ্রী মঙ্গল বদ্ধ বিহার, টুরিস্ট বোটের মাধ্যমে সমুদ্রপথে বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান ভ্রমণ, রাখাইন পল্লীসহ বিভিন্ন দর্শনীয় স্পটগুলা ঘুরে বেড়িয়েছেন এসব পর্যটকরা।

ঈদ ও পহেলা বৈশাখ উদযাপনে আবাসিক হোটেল মোটেল ও রিসোর্ট গুলোর ৮০℅ কক্ষই বুকিং ছিল জানিয়েছেন হোটেল মোটেল কৃর্তপক্ষ। ১৫ দিন আগে থেকেই অনেকেই অগ্রিম বুকিং দিয়ে রাখে। খাবার হোটেল গুলোতেও খাবারের জন্য লাইন পরে যায়। রাখাইন মহিলা মার্কেট, ঝিনুক মাকের্ট, মিশ্রিপাড়া তাঁত পল্লী সবখানই কেনাকাটায় ভিড় লেগে যায়। ফিস ফ্রাইয়ের দোকানও সিরিয়াল দিয়ে কাকড়া, চিংড়িসহ নানা ধরনের সমুদ্রের মাছ খেতে দেখা গেছে।আগত এ সকল পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তায় পর্যটন পুলিশের সতর্কতা ছিলে চোখে পড়ার মত।
রমযানের একমাস পর্যটনমুখী ব্যবসায়িরা অলস সময় কাটিয়েছেন। গত ১ মাস লোকসান গুনতে হয়েছে ব্যবসায়ীদের। ঈদের ছুটির সাথে পহেলা বৈশাখের ছুটির কারনে অসংখ্য পর্যটক ও দর্শনার্থীদের আগমনে ব্যবসায়িদের মুখে হাসি ফুটে উঠেছে। পর্যটন ব্যবসায়িদের মাঝে কর্ম ব্যস্ততা ফিরে এসেছে।
খুলনা থেকে বেড়াতে আসা জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, ঈদ ও পহেলা বৈশাখ একসাথে হওয়ায় আজ অনেক টুরিস্ট খুব ভালো লাগছে।সাগরে অনেক ঢেউ আছে।বন্ধুদের নিয়ে হইহুল্লোড়ে মেতেছি। দিনটা বেশ ভালোই কাটছে।

ঢাকা থেকে আসা পর্যটক শহিদুল দম্পতি বলেন, ‘ ঈদের আনন্দকে ভালোভাবে কাটাতেই কুয়াকাটায় এসেছি। এর সাথে পহেলা বৈশাখ কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে উপভোগ করতে পেরে অনেক ভালো লাগছে।এখানে পরিবেশটা আজ দারুণ। আমাদের ঈদ ও পহেলা বৈশাখের ছুটি কুয়াকাটায় স্পেশালভাবে কাটছে। অনেক টুরিস্ট কুয়াকাটা এসেছে। সবকিছু মিলে আমরা অত্যন্ত খুশি
কুয়াকাটার বার্মিজ আসার ব্যবসায়ী রায়হান বাবু জানান, ঈদের ছুটির সাথে পহেলা বৈশাখের ছুটি যোগ হওয়াতে কুয়াকাটা অনেক টুরিস্ট এসেছে।আমাদের বেচাকেনা ভালো হয়েছে।পদ্মা সেতু উদ্বোধন হওয়ার কারণে ঢাকা থেকে সহজেই এবছর অসংখ্য টুরেস্ট আসছে যার জন্য আমরা অনেক খুশি।

কুয়াকাটা হোটেল মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়শনের সাধারণ সম্পাদক এম এ মোতালেব শরীফ জানান, এবারের ঈদুল ফিতর ও পহেলা বৈশাখ এর লম্বা ছুটিতে কুয়াকাটায় অসংখ্য পর্যটকের আগমন ঘটবে। ইতিমধ্যে প্রথম শ্রেণির হোটেল মোটেল রিসোর্টগুলোর প্রায় ৮০ ভাগ রুম বুকিং হয়ে গেছে।তবে ঈদের দিন স্থানীয় পর্যটকদের ভিড় ছিল বেশি ছিল। আজ পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে একটু বেশি পর্যটকের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

টুরিস্ট পুলিশ কুয়াকাটা রিজিয়নের পুলিশ সুপার আনছার উদ্দিন বলেন, আগত এসব পর্যটকদের নিরাপত্তায় কয়েক স্তরের নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে। সাদা পোশাকেও নজরদারি থাকবে। পর্যটন পুলিশের পাশাপাশি থানা পুলিশ মহাসড়কে আগত পর্যটকদের নির্বিঘ্নে যাতায়াত নিশ্চিত টহলে আছেন। এখন পর্যন্ত কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

সর্বশেষ