১লা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ভোলায় গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

ভোলার দৌলতখান উপজেলায় রত্না বেগম (১৯) নামে এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় গলা টিপে হত্যার অভিযোগে স্বামী মো. রাসেল হোসেন এবং শাশুড়ি নিলুফা বেগমকে আটক করেছে দৌলতখান থানা পুলিশ। তবে আটককৃতদের দাবি পরকীয়া প্রেমের জের ধরে রত্না আত্মহত্যা করেছেন। আজ দুপুর ২টার দিকে দৌলতখানের চর খলিফা ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের আলাউদ্দিন মিস্তিরি বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ নিহত রত্নার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ভোলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। রত্না বগম দৌলতখান উপজেলার সৈয়দপুর ইউনিয়ন ২ নম্বর ওয়ার্ডের মো. নসু বেপারীর মেয়ে। নিহতের বাবার দাবি যৌতুকের জন্য স্বামী ও শাশুড়ি মিলে গলা টিপে তার মেয়েকে হত্যা করেছে। তিনি জানান, ১০ মাস আগে রাসেলের সঙ্গে পারিবারিকভাবে রত্নার বিয়ে হয়েছিল। বিয়ের সময় জামাইকে একটি মোটরসাইকেল ও ব্যবসার জন্য দেড় লাখ টাকা দেওয়া হয়। সম্প্রতি রাসেল আরো ৫০ হাজার টাকা চেয়েছিল। ওই টাকা না দেয়ায় তার মেয়েকে হত্যা করেছে।

অপরদিকে আটক রাসেলের দাবি, বেশকিছু দিন ধরে রত্না পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়ে। ঘটনার দিন বরিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রত্না মোবাইল ফোনে অজ্ঞাত লোকের সঙ্গে দীর্ঘ সময় ধরে কথা বলছিল। বিষয়টি তিনি টের পেয়ে রত্নার কাছে জানতে চেয়েছিল অজ্ঞাত লোকটি কে ছিল ?  রাসেলের দাবি তাঁর প্রশ্নের কোনো সদুত্তর রত্না দিতে পারেনি। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে দুপুর ২টার দিকে রত্না গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।

দৌলতখান থানার ওসি মো. জাকির হোসেন জানান, নিহতের বাবার অভিযোগে রাসেল ও নিলুফাকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করা হয়েছে। নিহতের বাবা বাদী হয়ে দৌলতখান থানায় একটি হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। মামলা দায়ের হওয়ার পর আটককৃতদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ