২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

মেহেন্দিগঞ্জে মা ইলিশ রক্ষা অভিযানে নদীতে ইউএনও’র স্পিডবোট ডুবিয়ে দেয়ার চেষ্টা!

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জের দড়িরচর খাজুরিয়া ইউনিয়নের সিকদার বাড়ি ঘাট সংলগ্ন গজারিয়া নদীতে মা ইলিশ রক্ষায় অভিযানে নামায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) স্পিডবোট ডুবিয়ে দেয়ার চেষ্টা চালিয়েছেন অসাধু কয়েকজন জেলে। তারা শক্তিশালী ইঞ্জিনচালিত ট্রলার (ফাইটার) দিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার স্পিডবোটকে সজোরে ধাক্কা দেয়। এত স্পিডবোটে থাকা দুই আনসার সদস্য আঘাত পেয়ে নদীতে পড়ে যান। তাদেরকে উদ্ধার করা হলেও এক আনসার সদস্যের আগ্নেয়াস্ত্র (শটগান) নদীতে তলিয়ে যায়।

শুক্রবার (০৮ অক্টোবর) সকাল সোয়া ১০ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

আহত আনসার সদস্য মো. ইব্রাহিম ও মো. তুহিনকে চিকৎসা দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধারে বরিশাল রিভার ফায়ার সার্ভিসের স্টেশনের ডুবুরিরা গজারিয়া নদীতে তল্লাশি শুরু করেছেন।

মেহেন্দিগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. শাহাদাত হোসেন মাসুদ জানান, মা ইলিশ রক্ষায় নিষেধাজ্ঞা কার্যকরে সকাল সাড়ে ৭ টার দিকে তিনি একটি স্পিডবোট নিয়ে অভিযানে বের হন। তার সঙ্গে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা, তিন জন আনসার সদস্য সহ আট জন ছিলেন। তারা স্পিডবোটে করে নদীতে টহল দিচ্ছিলেন। বামনার চর থেকে ফেরার পথে দড়িরচর খাজুরিয়া ইউনিয়নের সিকদার বাড়ি ঘাট সংলগ্ন গজারিয়া নদীতে বেশ কয়েকটি মাছ ধরার শক্তিশালী ইঞ্জিনচালিত ট্রলার (ফাইটার) দেখে তারা স্পিডবোটের গতি কমিয়ে দেন। এ সময় হঠাৎ একটি মাছ ধরার শক্তিশালী ইঞ্জিনচালিত ট্রলার (ফাইটার) তাদের স্পিডবোটে সজোরে ধাক্কা দেয়। ওই ট্রলারে (ফাইটার) ৪-৫ জন অসাধু জেলে ছিলেন। এতে আনসার সদস্য মো. ইব্রাহিম ও মো. তুহিন ছিটকে নদীতে পড়ে যান। পরে তাদেরকে স্পিডবোটে তোলা হয়।

ইউএনও মো. শাহাদাত হোসেন মাসুদ বলেন, আনসার সদস্য মো. ইব্রাহিম ও মো. তুহিনের সঙ্গে আগ্নেয়াস্ত্র ছিল। তাদেরকে স্পিডবোটে তোলার পর দেখা যায় মো. তুহিনের সঙ্গে আগ্নেয়াস্ত্রটি নেই। সেটি নদীতে তলিয়ে গেছে। নদীতে পড়ে যাওয়া দুই আনসার সদস্যই আঘাত পেয়েছেন। পরবর্তীতে স্পিডবোটটি নদীর তীরে নিয়ে মুঠোফোনে থানা ও নৌ-পুলিশের কাছে সহায়তা চাওয়া হয়। পাশাপাশি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়া হয়। পরে আহত দুই আনসার সদস্যের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ঘটনার সময় স্পিডবোটে থাকা মেহেন্দিগঞ্জের উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ভিক্টর বাইন জানান, নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ শিকারের খবর পেয়ে গতকাল রাতে বামনারচর, চুনারচর, দড়িরচর খাজুরিয়া সিকদার বাড়ি ঘাট সংলগ্ন নদীতে পুলিশ অভিযান চালায়। ইলিশ শিকারের অপরাধে ৭ জেলেকে আটক করে পুলিশ। ধারনা করা হচ্ছে তাদেও সহযোগীরাই স্পিডবোটে ধাক্কা দিয়ে ডুবিয়ে দেয়ার চেষ্টা চালিয়েছে। ঘটনার আকস্মিকতায় স্পিডবোটে থাকা সবাই হতভম্ব হয়ে পড়েন। যখন নদীতে পড়ে যাওয়া দুই জন আনসার সদস্যকে উদ্ধারে ব্যস্ত ছিল, তখন ধাক্কা দেয়া ট্রলারটি দ্রুত গতিতে চালিয়ে একটি খালের মধ্যে ঢুকে পড়ে।

ভিক্টর বাইন জানান, শক্তিশালী ইঞ্জিনচালিত ওই ট্রলারের (ফাইটার) ধাক্কায় আরও খারপ কিছুই ঘটতে পাড়তো। তবে ভাগ্য সহায় হওয়ায় সে ধরনের ঘটনা ঘটেনি। তবে দুই আনসার সদস্য ছাড়াও ইউএনও স্যারও হাতে আঘাত পেয়েছেন। স্পিডবোটটিও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

মেহেন্দিগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শফিকুল ইসলাম জানান, ওই ট্রলারে (ফাইটার) থাকা ব্যক্তিদের পরিচয় শনাক্ত করে আটকের চেষ্টা চলছে। ওই এলাকায় আরও জোরদার অভিযান চালানোর প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

 

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ