২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম

মেধাবী সুজন রাজবংশী বাঁচতে চায়, প্রয়োজন অর্থের

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার আটিগ্রাম ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা সুজন চন্দ্র রাজবংশী। মেধাবী সুজন রাজবংশী কাটিগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয় হইতে ২০১১ালে এ,এস,সি জিপিএ ৫.০০ পেয়েছে, ২০১৩ সালে এইচ.এইচ.সি ৪.৭০ পেয়েছে, বিবিএ ম্যানেজমেন্ট সিজিপিএ ৩.২৩ উর্ত্তীণ হয়েছে। ইচ্ছে ছিল লেখাপড়া শেষ করে চাকুরী করে বাবা মা নিয়ে দুমঠো ডাল খেয়ে বেঁচে থাকতে, কিন্তুু স্বপ্ন সুধুই স্বপ্নই।

সুজনের মাঝে মধ্যেই শরিরে জ্বর হত, পরে পরীক্ষা নিরীক্ষার পর জানতে পারে সুজনের দুটি কিডনি বিকল, অপারেশন ছাড়া ফুলের মতো সুজনকে বাঁচানো সম্ভন না বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।
সুজনের মা জানান, আমার একটি কিডনি ছেলেকে দেব তবে সেটা পতিস্থাপন করতে খরচ হবে ৬-৭লক্ষ টাকা। কিন্তু এই টাকা জোগার আমাদের পরিবারে পক্ষে সম্ভব না, তাই আমি সমাজের বিত্তবানদের কাছে সাহায্য চাই।

সুজনের বাবা কালু রাজবংশী বলেন, আমি মাছের পোনা বিক্রির ব্যবসা করি। মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার আটিগ্রাম ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডেই তার প্রতিষ্ঠান। পোনা বিক্রি করে খুব বেশি উপার্জন করতে পারেন না তিনি, বলতে গেলে কোনোমতে সংসারটাই চলছে।

তাই ছেলের অপারেশনের জন্য ৬-৭ লাখ টাকা জোগাড় করতে নিতান্ত অসহায় হয়ে পড়েছেন হতভাগ্য বাবা। আত্মীয় পরিজনের মধ্যেও এমন কেউ নেই যে তাকে এত টাকা সহায়তা করতে পারবেন।

তাই ছেলেটির শেষ পরিণতি ভেবে দুচোখের কোন ভিজে ওঠে অসহায় বাবার। আত্মসম্মানের ভয় ঝেড়ে ফেলে ছেলেকে বাঁচাতে সমাজের বিত্তবানসহ সকলের কাছে হাত পেতেছেন। ছেলের জীবন বাঁচাতে মিনতি জানিয়েছেন।

এদিকে ছেলের চিকিৎসা ব্যায় নির্বাহ করতে সমাজের সবার কাছে সাহায্য প্রার্থনা করেছেন কালু রাজবংশী। কেউ সহযোগীতা করতে চাইলে তার ব্যক্তিগত ০১৭৪২-৫০২৮৪৫ (সুজনের বাবা বিকাশ) পারসোনাল এই নম্বরে যোগাযোগ করতে অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

সর্বশেষ