৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
ভোলায় অনলাইন মার্কেটিং ও কমিউনিটি মিনি ফেয়ার ২০২২ অনুষ্ঠিত নৌকা মুক্তির সোপান, দেশের মানুষকে মুক্তি দিয়েছে নৌকা নির্ধারিত সময়ের পাঁচ ঘন্টা আগেই শুরু হলো রাজশাহীতে বিএনপির গণসমাবেশ জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা’র নবনির্বাচিত কেন্দ্রীয় পরিষদকে বরিশাল নেতৃবৃন্দের শুভেচ্ছা শেখ হাসিনা সরকার রাষ্ট্র ক্ষমতায় না এলে এদেশে কোন সম্প্রীতি থাকবে না আবারও এদেশে পাকিস্তানী পতাকা উ... জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা’র কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব হলেন বরিশালের মামুন-অর-রশিদ বরিশালে কর্মীদের জুতাপেটা করে শাসন করলেন ছাত্রলীগ নেতা জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা’র কেন্দ্রীয় কমিটিতে পুনরায় পদ পেলেন বরিশালের দুই সাংবাদিক "টাইমস ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ" ক্যাম্পাস জীবনের শেষ প্রান্তে জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা’র কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন

মেহেন্দিগঞ্জে যুবদল সভাপতির হামলায় আহত নিজ দলীয় নেতা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা যুবদল সভাপতি সৈয়দ রিয়াজ শাহীন লিটনের বিরুদ্ধে নিজ দলের ইউনিয়ন নেতাকে প্রকাশ্যে মারধর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
বুধবার পাতারহাট লঞ্চঘাটে শত শত লোকজনের সামনে উপজেলার উলানিয়া ইউনিয়ন যুবদল সাধারণ সম্পাদক মো. আসাদুজ্জামান আজাদকে মারধরের এই ঘটনা ঘটে।
পরে লঞ্চঘাটে অবস্থানরত যাত্রীরা যুবদল সভাপতি মাতাল লিটনের হাত থেকে আজাদকে উদ্ধার করেন।
হামলার শিকার উলানিয়া ইউনিয়ন যুবদল সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আজাদ অভিযোগ করে জানান, উপজেলা যুবদল সভাপতি সৈয়দ রিয়াজ শাহীন লিটন ও তার পরিবার সহ নিকটাত্মীয় অধিকাংশ সদস্য রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। তারা সব সময় চুক্তি ভিত্তিকভাবে (পারিবারিক সমঝোতায়) ক্ষমতাসীন এবং বিরোধী দলের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত থাকেন।
যার কারণে বিরোধী দলের রাজনীতিতে যখন যারা সম্পৃক্ত থাকেন তাদের মামলা-হামলার মুখোমুখি হতে হয়না। একইসাথে সরকারী দলের শেল্টারে তারা সর্বদা তাদের ব্যবসা-বাণিজ্য নির্বিঘেœ চালিয়ে আসছেন।
এছাড়া পারিবারিক সমঝোতায় বিরোধী দলের রাজনীতির মাঠে থাকা সদস্যরা যখন নিজ দলের অভ্যন্তরীন গ্রুপিংয়ে জড়িয়ে যান, তখন প্রতিপক্ষ গ্রুপের লোকজনকে দমনে পরিবারে থাকা ক্ষমতাসীন দলের সদস্যদের মাধ্যমে মামলা-হামলার মাধ্যমে এলাকা ত্যাগে বাধ্য করেন।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি সৈয়দ রফিকুল ইসলাম লাবু ও সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন দীপেন তারা আপন সালা-ভগ্নিপতি।
এই দুই নেতার পরিবারের বেশ কয়েক কয়েকজন সদস্য বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের রাজনীনিতে সরাসরি সম্পৃক্ত।
তাদের মধ্যে সভাপতি সৈয়দ লাবু’র আপন চাচাতো ভাই সৈয়দ দেলোয়ার হোসেন দেলু স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি। এছাড়া লাবু’র আপন ভাই সৈয়দ রিয়াজ শাহীন লিটন বর্তমানে ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় সাংসদ পঙ্কজ দেবনাথ এবং আওয়ামীলীগের একাধীক নেতার সাথে রয়েছে দহরম-মহরম। যুবদল সভাপতির দায়িত্বে থাকা লিটন গত পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান করে সরাসরি আ.লীগ প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী কর্মকান্ড পরিচালনা করার অভিযোগ রয়েছে।
অন্যদিকে আপন ৫ ভাইয়ের মধ্যে বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন দীপেন জমাদ্দার এবং বরিশাল উত্তর জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সালাহউদ্দিন পিপলু বিএনপির রাজনীতিতে সম্পৃক্ত। বাকী তিন ভাই স্বপন জমাদ্দার, সেলিম জমাদ্দার ও সোহেল জমাদ্দার সরাসরি আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে জড়িত।
হামলার শিকার আজাদ জানান, কিছুদিন পূর্বে স্থানীয় সাংসদ পঙ্কজ দেবনাথের উপস্থিতিতে একটি অনুষ্ঠানে অংশ নেয় বিএনপির সভাপতির ভাই যুবদল সভাপতি সৈয়দ রিয়াজ শাহীন লিটন। এসময় ওই অনুষ্ঠানে এমপি পঙ্কজের পাশে থাকা লিটনের ছবি উপস্থিত বিভিন্ন লোকজন ক্যামেরায় ধারণ করে। সম্প্রতি ওই ছবি সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ব্যবহারকারীদের মাধ্যমে ভাইরাল হয়।
ওই ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ায় যুবদল সভাপতি লিটন উলানিয়া ইউনিয়ন যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আজাদকে দায়ী করেন।
গতকাল বুধবার দুপুরে পাতারহাট লঞ্চঘাটে আজাদকে পেয়ে লিটন বেদম মারধর করেন। এসময় উপস্থিত লোকজন আজাদকে মারধরের হাত থেকে রক্ষা করেন।
জানা যায়, যুবদল সভাপতি লিটন বিএনপির রাজনীতিতে জড়িত হলেও তার সকল কর্মকান্ড আওয়ামীলীগকে ঘিরে। তার বিরুদ্ধে আ.লীগ দলীয় সাংসদ পঙ্কজ দেবনাথের কাছ থেকে উপঢৌকন গ্রহণ করার অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া যুবদলের সভাপতির পদে আসার পর গত দুই বছরে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন কমিটিতে পদ দেওয়ার কথা বলে হাতিয়ে নিয়েছে কয়েক লাখ টাকা।
যুবদলের পদপ্রত্যাশী বিভিন্ন ইউনিয়ন যুবদল নেতাকর্মীরা অভিযোগ করে জানান, মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা যুবদল সভাপতি সৈয়দ রিয়াজ শাহীন লিটনের দলীয় সকল অপরাজনীতির সহযোদ্ধা তার বেয়াই উত্তর জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সালাহউদ্দিন পিপলু।
পদপ্রত্যাশার আশায় অর্থ প্রদানকারী নেতাকর্মীরা জানান, পিপলু জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর আমাদেরকে পদ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার বেয়াই লিটনের সাথে যোগাযোগ করার নির্দেশ দিয়েছেন। তারই নির্দেশে লিটন গত দুই বছরে চারটি ঈদে কমিটি দেওয়ার নামে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।
এবিষয়ে জানতে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা যুবদল সভাপতি সৈয়দ রিয়াজ শাহীন লিটনের ব্যক্তিগত সেলফোন (০১৭২০৫৪….১০) নাম্বারে একাধীকবার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।
তবে লিটনের ভাই উপজেলা বিএনপির সভাপতি সৈয়দ রফিকুল ইসলাম লাবু সাংবাদিকদের জানান, যুবদল সভাপতি লিটন আমার ভাই, কিন্তু তার কোনো অন্যায়-অপরাধে আমি জড়িত নই। অন্যায়ভাবে নিজ দলের একজন কর্মীকে প্রকাশ্যে মারধর করায় বিএনপির সভাপতি হিসেবে আপনার করনীয় কি? এমন প্রশ্নের জবাবে সৈয়দ লাবু বলেন, আমি এই বিষয়ে কিছু জানিনা।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ