২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম

শিবু লাল দাশ অপহরণ মামলা ল্যাংড়া মামুনসহ ৪ জনের তিনদিনের রিমান্ড

পটুয়াখালী প্রতিনিধি ঃ ২০কোটি টাকা মুক্তিপনের দাবীতে ব্যবসায়ী অপহরণের মূলপরিকল্পনাকারী ঢাকা থেকে গ্রেপ্তারকৃত ল্যাংড়া মামুন ওরফে মুফতী মামুনসহ চার আসামীর তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছে পটুয়াখালীর আদালত। পটুয়াখালীর চীপ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলি আদালত-১ এর বিজ্ঞ বিচারক মোঃ আশিকুর রহমান বৃহস্পতিবার দুপুরে তাদের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আসামীরা হলেন ল্যাংড়া মামুন ওরফে মুফতি মামুন, পিচ্চি রানা, জসীম উদ্দিন ও আশিকুর রহমান। এরআগে ঢাকা কেন্দ্রিয় কারাগার থেকে তাদেরকে গতকাল বুধবার রাতে পটুয়াখালী কারাগারে আনা হয়।
কোর্ড ইন্সপেক্টর (ওসি) মোঃ শাহজাহান খান জানান, মামলা সুষ্ঠু পরিচালনার জন্য আসামীদের অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদ করার লক্ষ্যেই রিমান্ড শুনানী হয়েছে। এখন তিনদিন পুলিশী রিমান্ড মঞ্জুর হওয়ায় আশা করি আরো কিছু তথ্য উপাত্ত বের হয়ে আসবে।
শুনানীতে অংশ নেয়া রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবি এ্যাডভোকেট উজ্জল বসু জানান, অপহরণ ঘটনার নেপথ্য কাহিনী, মূল রহস্য উদঘাটন, এ ঘটনার সাথে আরো কেউ জড়িত আছে কিনা, ল্যাংড়া মামুন একাই নাকি অন্য কোন প্রভাবশালী কেউ তাকে দিয়ে এ কাজ ঘটিয়েছে-এরকম নানা প্রশ্নের উত্তর পেতে এবং মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থেই পুলিশ আসামীদের প্রত্যেককে পাচদিন করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড আবেদন করেছিলেন। এসময় রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামীপক্ষের আইনজীবিদের যুক্তিতর্ক শেষে বিজ্ঞ বিচারক প্রত্যেক আসামীদের তিনদিন করে পুলিশী রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) ইন্সপেক্টর মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম জানান, যেহেতু রিমান্ড মঞ্জুর হয়েছে সেহেতু কাগজ অবশ্যই আসবে হয়তো একটু সময় লাগতে পারে। কাগজটি পেলেই বোজা যাবে চারজনকে কি একসাথে আনবো নাকি আলাদা আলাদা ভাবে আনবো।
নুরুল ইসলাম জানান, এর আগে এ ঘটনায় পটুয়াখালী ও বরগুনার বিভিন্ন স্থান থেকে গ্রেপ্তারকৃত সদ্য বহিস্কৃত জেলা সেচ্ছাসেবকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আতিকুর রহমান পারভেজসহ ছয়জনকে দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন একই আদালত। তাদেরকে বৃহস্পতিবার দুপুরে সদর থানায় আনা হয়েছে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য।
উল্লেখ্য, গত ১১ এপ্রিল রাতে ২০ কোটি টাকা মুক্তিপনের দাবীতে পটুয়াখালীর ব্যবসায়ী শিবু লাল দাসকে গলাচিপা থেকে অপহরণ করার পর পরের দিন রাতে শহরের এসপি কমপ্লেক্সের আন্ডারগ্রাউন্ড থেকে হাত পা বাধা বস্তাবন্ধি অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। ওই দিন রাতেই শিবু লালের ছেলে বাদী হয়ে সদর থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন অজ্ঞাত আসামী করে। পরের দিন অর্থাৎ ১৩ এপ্রিল রাতে শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে জেলা সেচ্ছাসেবকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আতিকুর রহমান পারভেজসহ মোট ছয়জনকে আটক করে সদর থানা পুলিশ। এরপর ঢাকা থেকে জসিম ওরফে বিআরটিসি জসিম নামের একজন আসামীকে আটক করার পর সে ১৬৪ধরায় স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্ধি দেন। এর দুইদিন পর ঢাকার ডিবি পুলিশ এ ঘটনার মাস্টারমাইন্ডর ল্যাংড়া মামুনসহ আরো চারজনকে গ্রেপ্তারকরে চারহাজার পিচ ইয়াবাসহ। এরআগে একই আদালত ব্যবসায়ী শিবু লাল দাসের জবানবন্দি ১৬৪ধরায় রেকর্ড করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ