৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিল্পীদের পাশে দাঁড়াতে সংগঠনের বিকল্প নেই | ফিরোজ প্লাবন

নিজস্ব প্রতিবেদক :
বাংলাদেশে কন্ঠশিল্পীদের জন্য একটি সংগঠনের প্রয়োজনীয়তা প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন ,দেশের আইডল জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী ও সংগীত পরিচালক ফিরোজ প্লাবন। তিনি বলেন, এ সংগঠনের মাধ্যমে প্রকৃত কণ্ঠশিল্পীদের সুখে দুঃখে, বিপদে আপদে তাদের পাশে দাঁড়ানো যাবে।
অতিসম্প্রতি রাজধানীর গুলশানে “কন্ঠমেলা” স্টুডিও থেকে সেলফোনে সাক্ষাৎকারে কন্ঠশিল্পী ফিরোজ প্লাবন এসব কথা বলেছেন।

তিনি বলেন, তথ্য প্রযুক্তির বদৌলতে কন্ঠশিল্পীরা সবচেয়ে বেশি ক্লান্তিকাল অতিক্রম করছেন।মুক্তিযুদ্ধকালিন সময়ে শিল্পীদের অবদান ছিল অসীম।তাদের গানের অনুপ্রেরণায় মুক্তিকামী মানুষ ঝাঁপিয়ে পড়েছে শত্রুপক্ষের উপর। এরপর দেশ স্বাধীন হয়েছে কিন্তু কি পেল সেই শিল্পী ও তাদের প্রজন্মরা৷ এদেশে সকল পেশাজীবি সংগঠনের সংগঠন আছে। কিন্তু এযাবৎ বাংলাদেশের কণ্ঠশিল্পীদের পক্ষে কথা বলারমত এমন কোন সংগঠন নেই।তাই কন্ঠশিল্পীদের একটি কেন্দ্রীয় সংগঠনের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। যার মাধ্যমে শিল্পীদের কল্যাণে সেই সংগঠন সবসময় তাদের পাশে দাঁড়াবে। বিপদে আপদে বার্ধক্যে ও অসুস্থতায় তাদের পাশে দাঁড়ানোরমত আজ কেউ নেই।

তিনি আরও বলেন,স্বাধীনতার পরে ৫১বছর অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত কন্ঠশিল্পীদের কার্যকরী কোন সংগঠন নেই। আমার দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিল দলমত নির্বিশেষে সিনিয়র-জুনিয়র মিলে ঐক্যমত্যের ভিত্তিতে শিল্পীদের নিয়ে কেন্দ্রীয় প্লার্টফর্ম গড়ে তোলার। সংগঠন হলে সারাদেশের জনপ্রিয় ও উদীয়মান শিল্পীরা থাকবে এই সংগঠনে।একটা সময়ে শিল্পীদের শেষ জীবনে নিজের ও পরিবার পরিজন অসুস্থ হলে চিকিৎসার জন্য হাত বাড়াতে হয় অন্যের কাছে। সাহায্য পাইলে চিকিৎসা হয়,না পাইলে মৃত্যুর সাথে লড়তে হয়। কন্ঠশিল্পীদের নিয়ে একটি সংগঠন করার জন্য গত কয়েকদিন যাবৎমিডিয়ার মাধ্যমে সকলকে আহবান করেছি।অনেকের সাথে সমন্বয় করে তাদের মতামত নিয়েছি তারা “বাংলাদেশ কন্ঠশিল্পী পরিষদ”নামে সংগঠনের নামকরন করার প্রস্তাব দিয়েছে।সবাই সম্মতি দিলে অনেক সিনিয়র শিল্পীদের একত্রিত করে শীঘ্রই ঘোষণা হবে শিল্পীদের নতুন সংগঠন।

কন্ঠশিল্পী ফিরোজ প্লাবন ইতিমধ্যে বিভিন্ন আইটেমের সহস্রাধিক গান পেয়ে জনপ্রিয় একজন শিল্পী হিসেবে দেশ বিদেশে গানে ভাইরাল। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের একজন সক্রিয় সমর্থক।ভোলা জেলার চরফ্যাশন উপজেলায় তার বাড়ি।১৯৯৭ সালে তিনি উপজেলা ছাত্রলীগের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ছিলেন ৷ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নৌকা মার্কার প্রার্থীদের নিয়ে স্বরচিত সর্বোচ্চ গান গেয়ে আলোচনায় ফিরোজ প্লাবন।

সারাদেশে নৌকা মার্কা ও নির্বাচনী গান গেয়ে দেশ-বিদেশে জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছেন ফিরোজ প্লাবন।

নতুন সংগঠন নিয়ে অনেক সিনিয়র ও জুনিয়র কন্ঠশিল্পীদের সাফকথা গত ৫১বছরে কন্ঠশিল্পীদের বিপদে আপদে নেতৃত্বে নিয়ে কেউ এগিয়ে আসেনি।

নাম প্রকাশে সিনিয়র এক শিল্পী বলেন, জননন্দিত কন্ঠশিল্পী ফিরোজ প্লাবন ইতিমধ্যে কয়েকজন অসুস্থ শিল্পীদের চিকিৎসার জন্য খোঁজখবর নিয়ে তাদের পাশে দাড়িয়েছেন।আমরা চাই সংগঠনের উদ্যোক্তা ফিরোজ প্লাবনকে কমিটির আহবায়ক করে শিল্পী সংগঠনের নতুন কমিটি গঠন করা হোক।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ