৭ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

১৬ সেপ্টেম্বর আসছে ইমনের ‘বীরত্ব’

আব্দুল্লাহ আল মামুন (এ আল মামুন), বিনোদন ডেস্কঃ

ঢালিউড পাড়ায় নতুন মোড় নিয়েছে সিনেমার। এরই মধ্যে দেখা গেছে দর্শক হলমুখী হতে শুরু করেছে। গল্পনির্ভর ছবির দিকে দর্শকের আগ্রহ বেশি। সম্প্রতি কয়েকটি সিনেমাই তার প্রমাণ। প্রযোজকরাও সিনেমায় অর্থ লগ্নি করতে আগ্রহ প্রকাশ করছেন। সেই ধারবাবাহিকতায় আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর দেশব্যাপী মুক্তি পেতে যাচ্ছে তরুণ নির্মাতা সাইদুল ইসলাম রানা পরিচালিত প্রথম সিনেমা ‘বীরত্ব’। মুক্তিকে সামনে রেখে এরই মধ্যে প্রচারণায় সক্রিয় সিনেমার ইউনিট। মঙ্গলবার (১৩ সেপ্টেম্বর) বিএফডিসির জহির রায়হার কালার ল্যাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সিনেমাটি মুক্তির তারিখ ঘোষণা করা হয়।

সিনেমার প্রধান চরিত্রে ইমনকে দেখা যাবে এমবিবিএস চিকিৎসকের চরিত্রে। যেহেতু সিনেমার পটভূমি চিকিৎসকদের নিয়ে, এজন্য সিনেমা হল ও অন্যান্য জায়গায় প্রমোশনের পাশাপাশি বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে গিয়ে প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন ‘বীরত্ব’ সিনেমার নির্মাতা, অভিনয়শিল্পী ও অন্যান্য কলাকুশলীরা।

সংবাদ সম্মেলনে ইমন বলেন, জীবনে বহু চরিত্রে অভিনয় করেছি কিন্তু এতো গভীরভাবে চরিত্রের মায়ায় এর আগে কখনো পরি নাই । একটা অদ্ভুত ভালো লাগা কাজ করছে সেই শুটিং এর পর থেকে আজ পর্যন্ত । এরকম চরিত্র পাওয়া যেকোনো অভিনেতার জন্যই একটা বড় অর্জন।

ইমন আরো বলেন, আমার ছোটবেলার ইচ্ছা ছিল ডাক্তার হয়ে মানুষের সেবা করা। কিন্তু সে আশা পূরণ হয়নি।হয়েছি অভিনেতা। এমবিবিএস পাস না করলেও আমাকে ডাক্তার বানিয়ে দিয়েছে আমার ডিরেক্টর। এই সিনেমায় আমি ডাক্তার রাজু হিসেবে রোগী দেখেছি, তাদের ওষুধ দিয়েছি এবং তারা সুস্থও হয়েছে।

‘করোনা মহামারির সময় ডাক্তাররা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষের পাশে থেকে কাজ করে গেছেন। এজন্য পৃথিবীর সব ডাক্তারদের স্যালুট জানাই। বাংলাদেশে র্যা ব, পুলিশ নিয়ে অনেক সিনেমা হয়েছে। কিন্তু একজন ডাক্তারের জীবনটাকে সেভাবে কোনো সিনেমায় তুলে ধরা হয়নি। ‘বীরত্ব’তে আমি ডাক্তারদের প্রতিনিধিত্ব করেছি।

নিপুণ বলেন, বীরত্ব সিনেমায় আমাকে একজন যৌনকর্মীর চরিত্রে দেখা যাবে। যে জীবনে সব হারিয়েও বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখে। আমার বিশ্বাস আমার চরিত্রটি অনেক অসহায় নিপীড়িত মেয়েদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে সহায়তা করবে। তাদের আশা জাগাবে, তারা নতুন করে বাচতে চাইবে ।

সিনেমার পরিচালক সাইদুল ইসলাম রানা বলেন, ‘ডাক্তারি পেশার প্রতি আমার শ্রদ্ধাবোধ সবসময়ই। এই সিনেমায় আমি ডাক্তারদের বীরত্বের কথাও বলেছি। আপনারা সিনেমাটি হলে গিয়ে দেখলে সেটা অনুভব করতে পারবেন।’

পরিচালনার পাশাপাশি সিনেমাটির চিত্রনাট্য ও সংলাপ লিখেছেন নির্মাতা সাইদুল ইসলাম রানা। পিং পং এন্টারটেইনমেন্টের ব্যানারে সিনেমাটি প্রযোজনা করেছেন শুক্লা বণিক। ইমন ছাড়াও সিনেমার বিভিন্ন চরিত্রে আরও অভিনয় করেছেন নিপুণ আক্তার, ইন্তেখাব দিনার, আহসান হাবিব নাসিম, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, কচি খন্দকার, বর্দা মিঠু মনিরা আক্তার মিঠু, আরমান পারভেজ মুরাদ, শিল্পী সরকার অপু, সাবিহা জামান, হান্নান শেলি, পীরজাদা শহিদুল হারুন, তানভীর রিজভী, জেসমিন আক্তার, স্বর্ণা, প্রনব ঘোষ, প্রিয়ন্তি গোমেজ, রিমু, জাহাঙ্গীর আলম ও শিশু শিল্পী মুনতাহা এমেলিয়া ও সালওয়াসহ অনেকে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ