২০শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম

কীর্তিমান ডাঃ জেড আবেদীন মল্লিকের মৃত্যুবার্ষিকীতে শোক ও শ্রদ্ধা জানিয়েছে জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা বাকেরগঞ্জ শাখা

মনির হোসেন:

প্রতিদিনের মতো আজও কতিপয় ঘটনার স্বাক্ষী হয়ে পূর্বাকাশে উদিত হলো লাল সূর্যটা। এই দিনে অনেকেই পৃথিবীতে এসেছে নতুন মেহমান হয়ে, আবার এই দিনেই অনেকে বিদায় নিয়েছে এই মায়াময় পৃথিবী থেকে। যাওয়া আসার এই চরাচরে আমরা নতুন অতিথিকে বরণ করার জন্যে আনন্দে হাসি, আবার খুব কাছের প্রিয়জনকে বিদায় দেবার বেলায় কেঁদে বুক ভাসাই। তার পরও এই পৃথিবীতে আসলে একদিন বিদায় নিতে হবে।

এই চরম সত্যকে মেনে নিয়ে আমাদের পথ চলতে হয়। আমাদের চলার পথে আমরা যুগ যুগ ধরে স্মরণে রাখতে চাই আমাদের প্রিয়জনদের। আমাদের তেমনই একজন প্রিয়জন বাকেরগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতির পার্শ্ববর্তী বিবিচিনি ইউনিয়নের কৃতিসন্তান মরহুম ডাঃ জয়নাল আবেদীন মল্লিক। তাঁকে সবাই ডাঃ জেড আবেদীন মল্লিক নামেই চিনতেন। তাঁর গ্রামের বাড়ি বরগুনা জেলা বেতাগী থানার ১নং বিবিচিনি ইউনিয়নে। ডাঃ জেড আবেদীন মল্লিক ০৩-ই এপ্রিল ১৯২৯ ইং সালে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবা হাজী ইসমাইল মল্লিক ছিলেন একজন সমাজসেবক। হাজী ইসমাইল মল্লিক-এর পাঁচ সন্তানের মধ্যে তিনি দ্বিতীয় সন্তান।

পিতার কাছ থেকে মানুষকে ভালোবাসা ও সমাজসেবার মতো মহৎ এই গুনটি পেয়েছিলেন ডাঃ জেড আবেদীন মল্লিক। তার কাছ থেকে কোনো গরীব কিংবা ক্ষুধার্ত গিয়ে কোনোদিন খালি হাতে ফেরত আসেনি। ছেলেবেলা থেকে তুখোর মেধাবী এই মানুষটি পাকিস্তান সরকারের তত্বাবধানে শিক্ষা বৃত্তি নিয়ে ১৯৬৭ইং সালে লন্ডনে ডাক্তারি পড়তে যান এবং সেখান থেকে একজন চক্ষু বিশেষজ্ঞ হয়ে ফিরে এসে এদেশের চিকিৎসা সেবায় আত্মনিয়োগ করেন। তিনি তাঁর জীবনের এক পর্যায়ে বরগুনা জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। মরহুম ডাঃ জেড আবেদীন মল্লিক রাজধানীর সোনারগাঁ রোডের হাতিরপুলে একটি সম্ভ্রান্ত পরিবারের জনাব খান বাহাদুর হাকিম এর মেয়ে পারভীন আবেদীনকে বিয়ে করেন। তাঁর মামা শ্বশুর ছিলেন স্বাধীন বাংলার অর্থ সচিব জনাব নাজিম উদ্দিন ও স্বরাষ্ট্র সচিব জনাব আজিম উদ্দিন।

কীর্তিমান এই ডাঃ জেড আবেদীন মল্লিক ৩০শে মে ২০০৯ ইং সালে মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যু কালে তাঁর দুই সন্তান জনাব আরশাদ আবেদীন মল্লিকও ডাঃ তীনাত ফারদীনসহ অসংখ্য শুভাকাঙ্ক্ষী রেখে গেছেন। তিনি ছিলেন বিবিচিনি নিয়ামতি যুক্ত মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজের প্রতিষ্ঠাতা। এছাড়াও তিনি বাকেরগঞ্জ উপজেলার ১৪ নং নিয়ামতি ইউনিয়নের সিএনবি ডিগ্রি কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য।

১৯৯৩ইং সালে সিএনবি কলেজ এমপিওভুক্ত হয় এবং ২০০০ইং সালে সেটি ডিগ্রি কলেজ হওয়ার পিছনে তাঁর উদ্যোগ ও বিশাল অবদান আছে। সিএনবি ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল জনাব জামাল হোসেন জানায়, মৃত্যুর আগপর্যন্ত সে বিভিন্ন রকমের বুদ্ধি পরামর্শ দিয়েছেন। আজ তাঁর ১২তম মৃত্যু বার্ষিকীতে দেশবাসীর কাছে দোয়া ও রুহের মাগফেরাতের কামনা করেছেন তার আত্মীয়-স্বজন ও শুভাকাঙ্ক্ষীসহ জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মোঃ বেল্লাল হোসেন হাওলাদার, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ রাব্বী মোল্লাসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। মহান আল্লাহ যেন মহৎ কর্মের ফলস্বরূপ তাঁকে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করেন।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ