১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
আমি বাচতে চাই, দয়া করে আমাকে বাঁচান- শিশু ইউসুফ এবার ভোল পাল্টালেন হাফিজুর রহমান সিদ্দিকী পিরোজপুরে আন্তঃ গরু চোর দলের ৪ সদস্য গ্রেফতার চল্লিশ কাহনিয়া প্রবাসী কল্যাণ সমিতির মানবিক কাজে মুগ্ধ গ্রামবাসী বরিশালে বাস-মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ কিশোর নিহত পটুয়াখালীতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানে ঢুকে ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ অধ্যক্ষ নজরুল ইসলামের ২৯তম মৃত্যুবার্ষিকীতে এসটিএস হাসপাতালের ২ দিন ব্যাপী ফ্রী মেডিকেল ক্যাম্প করোনায় আরও ৩৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১ হাজার ৯০৭ ভোলায় মহানবী (সা.)-কে নিয়ে কটূক্তি, পূজা পরিষদের সভাপতি আটক ইন্দুরকানীতে নয় বছরেও সেতুতে নেই ল্যাম্পপোষ্ট, পথচারীদের ভোগান্তি

হিজলায় শিকলে বাঁধা ধর্ষণের শিকার গৃহবধূকে উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বরিশালের হিজলায় ধর্ষণের শিকার এক গৃহবধূকে (৪৫) শিকলে বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (২৯ জুন) দিনগত রাত ১২টার দিকে নির্যাতিতা গৃহবধূকে উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় বুধবার সকালে (৩০ জুন) নির্যাতনের শিকার ওই গৃহবধূ একই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহজাহান তালুকদারের ভাতিজা আলমগীর তালুকদারের ছেলে সোহেল তালুকদারের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, সোহেল তালুকদার যুবলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। কোনো পদ-পদবিতে নেই। তারপরও নিজেকে যুবলীগ নেতা পরিচয় দিয়ে এলাকায় প্রভাব বিস্তার করেন তিনি। সোহেল তালুকদার বিবাহিত। তার দুটি সন্তানও রয়েছে।

গৃহবধূর স্বজনরা জানান, গত জানুয়ারি মাসে ভিজিডি ও রেশন কার্ডের তালিকা করতে চেয়ারম্যানের প্রতিনিধি হিসেবে তাদের গ্রামে যান সোহেল তালুকদার। অর্থনৈতিকভাবে অসচ্ছল হওয়ায় গৃহবধূ সোহেল তালুকদারকে সরকারি ভিজিডি ও রেশন কার্ড করে দেয়ার জন্য অনুরোধ করেন। এসময় ওই গৃহবধূ গ্রামের আরও কয়েকটি পরিবারের কার্ডের জন্য বলেন। সোহেল তালুকদার ১০ জনকে রেশন কার্ড ও ১০ জনকে ভিজিডি কার্ড করে দেয়ার জন্য লক্ষাধিক টাকা দাবি করেন। পরে অন্যদের কাছ থেকে সংগ্রহ করে ২০টি সরকারি কার্ডের জন্য সোহেল তালুকদারকে নগদ ২০ হাজার টাকা দেন। এছাড়া গৃহবধূ তার কার্ড করে দেয়ার জন্য একটি স্বর্ণের চেইন ও আংটি সোহেল তালুকদারকে দেন। এসব কারণে গৃহবধূর বাড়িতে প্রায় আসতেন সোহেল তালুকদার। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

কার্ড দেয়ার কথা বলে ও বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে সোহেল তালুকদার ওই গৃহবধূকে কখনো উপজেলা সদরে কখনো বরিশালে নিয়ে যেতেন। সেখানে তাকে ধর্ষণ করেন সোহেল তালুকদার। তাছাড়া স্বামী ও বাবার বাড়িতে একা পেয়ে বিভিন্ন সময় ধর্ষণ করেন সোহেল তালুকদার। এদিকে কার্ডের জন্য টাকা দেয়া পরিবারগুলো ওই গৃহবধূকে চাপ দিলে তিনি সোহেল তালুকদার বলেন। এরপর থেকে তাকে এড়িয়ে যেতে শুরু করেন সোহেল তালুকদার। গত ২৭ জুন গৃহবধূ বিয়ের দাবিতে ও কার্ডের টাকা ফেরত চাইতে সোহেলের বাড়িতে যান। সোহেল গৃহবধূকে দেখে পালিয়ে যান। সোহেলের পরিবারের সদস্যরা তাকে মারধর করে এবং ভয়ভীতি দেখিয়ে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেন।

স্বজনরা আরও বলেন, ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দিতে সোহেলের পরিবার ওই গৃহবধূর ভাইকে ডেকে নিয়ে ভয়ভীতি দেখান। তারা মামলা বা কারও কাছে অভিযোগ করলে মারধর করে গ্রাম থেকে তাড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেন এবং ওই গৃহবধূকে বাড়িতে আটকে রাখার নির্দেশ দেন।

ওই গৃহবধূর ভাই জানান, শুধু আমাদের গ্রামে নয়, পুরো ইউনিয়নে সোহেল তালুকদারের প্রভাব রয়েছে। তার বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলাসহ একাধিক মামলা রয়েছে। তাছাড়া চেয়ারম্যানের আপন ভাতিজা। গ্রামে তার বিরুদ্ধে গিয়ে টিকে থাকা সম্ভব নয়। তারা এমন কোনো কাজ নেই করতে পারে না। এ কারণে বাড়িতে আমার বোনকে আটকে রেখেছিলাম। মঙ্গলবার (২৯ জুন) সকালে সবার অগোচরে আমার বোন বাড়ি থেকে পালিয়ে সোহেল তালুকদারের বাড়িতে ওঠেন। সেখানে তাকে মারধর করে আটকে রেখে আমাকে ডেকে নেন। পরে তাদের হুমকির কারণে তাকে বাড়িতে এনে শিকল দিয়ে আটকে রাখি। তবে রাত সাড়ে ১২টার দিকে পুলিশ এসে তাকে থানায় নিয়ে যায়।

হিজলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) অসীম কুমার সিকদার বলেন, এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। এছাড়া অভিযুক্তকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। মেডিকেল পরীক্ষার জন্য ওই গৃহবধূকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ