৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
আমতলী থানার ওসি একেএম মিজানুর রহমান জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত গলাচিপায় এ্যাম্বুলেন্স সেবায় চলছে রমরমা ব্যবসা। ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর চরকাউয়া থেকে বাস চলাচল শুরু পটুয়াখালী জেলা পরিষদের আয়োজনে বীর মুক্তিযোদ্ধা, আগুনে ক্ষতিগ্রস্থ ও ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে চেক প্রদান আমতলী পৌরসভায় ৪৬২১ জন হতদরিদ্রদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার স্ত্রী-বোনের টাকায় ট্রাক্টর কিনলেন পলাশ গলাচিপায় ঐতিহ্যবাহী গ্রামীন শিল্প হোগল পাতা বিলুপ্তির পথে ব্যবসায়ী নাজমুল সাদাতের পিতার জানাজা সম্পন্ন ব্যবসায়ী নাজমুল সাদাতের পিতার জানাজা সম্পন্ন মাহাফুজুর রহমানের "স্বপ্নে দেখা সেই মেয়েটি" লাজুক

বিএমপি’র এসি আনিসুল হত্যা মামলার আসামীর হাজতে মৃত্যূ

বাণী ডেস্ক: বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) আনিসুল করিম হত্যা মামলার আসামি ‘মাইন্ড এইড’ হাসপাতালের পরিচালক নিয়াজ মোর্শেদ মারা গেছেন।

শুক্রবার (০৫ নভেম্বর) রাত পৌনে ১০টার দিকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার (কেরানীগঞ্জ) থেকে তাকে অসুস্থ অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ঢাকা মেডিক্যাল সূত্রে জানা যায়, নিয়াজ মোর্শেদের হাজতি নম্বর-৪০৬৫৭/২১। অসুস্থ অবস্থায় কারারক্ষীরা তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার (কেরানীগঞ্জ) সিনিয়র জেল সুপার সুভাষ কুমার ঘোষ জানান, পুলিশ কর্মকর্তা হত্যা মামলায় নিয়াজ মোর্শেদ হাজতি হিসেবে কারাগারে ছিলেন। তবে তিনি প্যারালাইসিস রোগে আক্রান্ত ছিলেন। শুক্রবার অসুস্থ অবস্থায় তাকে হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

২০২০ সালের ৯ নভেম্বর সকালে আদাবরের মানসিক রোগ নিরাময় কেন্দ্রে চিকিৎসা নিতে গিয়ে হাসপাতালে কর্মচারীদের পিটুনিতে এএসপি আনিসুল করিম মারা যান। ঘটনার পর পুলিশ জানায়, হাসপাতালের কর্মচারীদের পিটুনিতে আনিসুল মারা যান। তার মৃত্যু অনাকাঙ্ক্ষিত নয়, এটি হত্যাকাণ্ড। এরপর এ ঘটনায় হত্যা মামলা হলে নিয়াজ মোর্শেদকে গ্রেফতার করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ