৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ডিজেলের দামবৃদ্ধিঃ কৃষকের গলার ফাঁস

খবর বিজ্ঞপ্তি: বাংলাদেশ কৃষক মজুর সংহতির আহ্বায়ক দেওয়ান রশিদ নিলু আজ বিকেল ৪টায় এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, বাংলাদেশকে বরাবর কৃষি প্রধান দেশ বলা হলেও এদেশের কোন পরিকল্পনাতেই কৃষকদের বিবেচনায় রাখা তো হয়ই না বরং উপেক্ষাই করা হয়। ডিজেলের দাম প্রতি লিটারে ১৫ টাকা বৃদ্ধির বেলাতেও একই। এর সরাসরি প্রভাব পড়বে কৃষিতে তথা সামগ্রীক গ্রামীন অর্থনীতিতে।

ডিজেলের দাম বৃদ্ধির ফলে এই বোরো মৌসুমে বিঘা প্রতি সেচ বাবদ কৃষকের খরচ বৃদ্ধি পাবে ৩০০ টাকা।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বলছে, এ বছর ৪৮ লাখ ২০ হাজার হেক্টর (৩ কোটি ২ লাখ ৯১ হাজার বিঘা) জমিতে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়েছে। এর ৭০ শতাংশ বা ৩৩ লাখ ৭৪ হাজার হেক্টর (২ কোটি ৫২ লাখ ২০ হাজার বিঘা) জমিতে সেচ দেওয়া হবে ডিজেলচালিত সেচযন্ত্র দিয়ে। এ হিসাবে কৃষককে বাড়তি খরচ গুনতে হবে ৭৫৬ কোটি ৬১ লাখের বেশি টাকা। বাকি ৩০ শতাংশ জমিতে সেচ দেওয়া হবে বিদ্যুৎ–চালিত সেচযন্ত্র দিয়ে। এমনিতেই ডিজেলচালিত সেচযন্ত্র ব্যবহারে কৃষকদের উৎপাদন খরচ বেশি। এবার বিদ্যুৎ–চালিত সেচযন্ত্র ব্যবহার করা কৃষকদের সঙ্গে তাদের খরচের পার্থক্য আরও বেড়ে যাবে।

এখন পর্যন্ত দেশের কৃষিতে সেচ কাজে ডিজেল চালিত স্যালো মেশিন ব্যবহৃত হয় উল্লেখযোগ্য মাত্রায় ফলে ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি সরাসরি আঘাত হানতে যাচ্ছে দেশের কৃষি অর্থনীতির ওপর। এমনিতেই এদেশে কৃষি রূপান্তরিত হয়েছে একটি অলাভজনক পেশায় তার ওপর সার, কীটনাশক, কৃষি সামগ্রী এবং ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি কৃষকের জন্য দেখা দিবে মরণফাঁদ হিসেবে। যার প্রভাব দেশের খাদ্য উৎপাদনের উপর লক্ষণীয় মাত্রায় দেখা দিবে বলেই আমাদের ধারণা।

শুধুমাত্র সেচ নয় বরং সামগ্রীকভাবেই কৃষির সাথে ডিজেল এবং কেরোসিনের সম্পর্ক রয়েছে। ধান মাড়াইয়ের যন্ত্র, ইঞ্জিন চালিত ছোট নৌকা, চাষের কাজে ব্যবহৃত পাওয়ার টিলার এবং ট্রাক্টর, কৃষিপণ্য পরিবহনের কাজে ব্যবহৃত ছোট-বড়-মাঝারী ট্রাকের মূল জ্বালানীই হল ডিজেল। এসব খরচ বৃদ্ধির বোঝা দিনশেষে চাপবে কৃষকের কাঁধে। অনেক ক্ষুদ্র চাষী যারা মূলত শীতকালে সবজি চাষ করে কিছুটা লাভবান হন তারা নিজ পেশা ত্যাগ করে ভূমিহীন কৃষকে রূপান্তরিত হতে বাধ্য হবেন।

কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক প্রথম আলোকে বলেন, ডিজেলের দাম বাড়ায় কৃষিতে কিছুটা প্রভাব পড়বে। তবে কী ধরনের প্রভাব পড়বে, তা পর্যবেক্ষণ করা হবে। সে অনুযায়ী পরে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এধরণের বক্তব্য কেবল দায়িত্বজ্ঞানহীন- ভোটার বিহীন নির্বাচনে নির্বাচিত মন্ত্রীর পক্ষেই করা সম্ভব।

আমরা এই দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্যকে প্রত্যাখ্যান করি এবং একইসাথে ডিজেলের দাম বৃদ্ধির তীব্র নিন্দা জানাই। অবিলম্বে এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করতে হবে। কৃষকের ফসলের লাভজনক মূল্য নিশ্চিত করার পাশাপাশি কৃষকের অর্থনৈতিক সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ