৩রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম

মেজর পরিচয়ে বিয়ে ! শশুরবাড়ি থেকে শ্রীঘরে ! ২দিনের রিমান্ড

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সোহেল, বিশেষ প্রতিনিধি : পিরোজপুরের মঠাড়িয়ায় সেনাবাহিনীর মেজর পরিচয় দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে এক কলেজ ছাত্রীকে বিয়ে করা মাসুম চৌধুরী আপন (৩৭) কে ২ দিনের রিমান্ড শেষে বৃহস্পতিবার আদালতে সোপর্দ করেছে পুলিশ। মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা মঠবাড়িয়া থানার এস আই সজল ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন। মঠবাড়িয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যজিস্ট্রেট মো. কামরুল আজাদ আজ (৩০ নভেম্বর) শুনানী শেষে ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
থানা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার তুষখালী ইউনিয়নের ফুলঝুড়ি গ্রামের বাসিন্দা কথিত ঘটক সেলিনা বেগম (৩৫) সম্প্রতি প্রতারক মাসুমকে সেনাবাহিনীর মেজর ও তার খালাতো ভাই পরিচয় দিয়ে তুষখালী গ্রামের এক কলেজ ছাত্রীর অভিভাবকদের কাছে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। এ সময় মাসুম নিজেকে সেনাবাহিনীর মেজর পরিচয় দেন এবং তার দুই বোন ডাক্তারি পেশায় নিয়োজিত বলে জানান। এতে ওই কলেজ ছাত্রীর পরিবারের লোকজন বিয়েতে রাজি হয়ে যায় এবং ১লা নভেম্বর ঢাকা যাত্রাবাড়ির অজ্ঞাতনামা এক কাজী অফিসে বসে তাদের বিবাহ কার্যক্রম সম্পন্ন হয়।
গত ৬ নভেম্বর ভূয়া মেজর প্রতারক মাসুম ওই কলেজ ছাত্রীকে নিয়ে শ্বশুর বাড়ি মঠবাড়িয়া ফুলঝুড়িতে বেড়াতে আসে। এরপর তার প্রমোশনের কথা বলে শ^শুর বাড়ির লোকজনের কাছে ৪ লাখ টাকা দাবী করে। তখন তার কথাবার্তা সন্দেহজনক হলে থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মেজর পরিচয়দানকারী মাসুমকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে কোন সদুত্তর দিতে না পাড়ায় আটক করে থানায় নিয়ে আসে। পরে ওই কলেজ ছাত্রী বাদী হয়ে প্রতারক মাসুম ও ঘটক সেলিনাকে আসামী করে মঠবাড়িয়া থানায় একটি মামলা করেছেন। প্রতারক মাসুম সিরাজগঞ্জের কাজিপুর থানার পূর্বপাড়া গ্রামের মৃত মজিবর রহমানের পুত্র।
মঠবাড়িয়া থানার ওসি মুহা. নূরুল ইসলাম বাদল জানান, জিজ্ঞাসাবাদে প্রতারক মাসুম চৌধুরী আপন মামলা সংক্রান্ত গুরুপ্তপূর্ণ তথ্য দিয়েছে। সেগুলো যাচাই করা হবে।তদন্তের স্বার্থে তিনি তথ্য দিতে অপারগতাপ্রকাশ করছেন।

সর্বশেষ