২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
বরিশালে পূর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ৩ রাঙাবালীতে ইয়াবাসহ আটক-১ ঝালকাঠিতে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে আমতলীতে গরমে মাথা ঘুরে পড়ে গিয়ে নারীর মৃত্যু বরিশালে পুনর্বাসন ছাড়া হকার উচ্ছেদ বন্ধের দাবি রাজাপুরে শিক্ষার্থীদের অনুদানের বরাদ্দ ৫ হাজার, কিন্তু পেয়েছে ৩ হাজার! বরিশালে দরিদ্র মানুষের সংখ্যা বেশি থাকায় বেড়েছে শিশু শ্রমের হার নারী ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে প্রবাসীর স্ত্রীকে মারধর করে মাথা ফাটিয়ে দেয়ার অভিযোগ সিরাজগঞ্জে উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে প্রতিক বরাদ্দ প্রদান ৫ হাজার টাকা বরাদ্দ শিক্ষার্থীরা পেল ৩ হাজার রাজাপুরের সোনারগাঁও স্কুলের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বি...

আছপিয়ার পৈত্তিক বাড়ি ভোলায় ! আছে জমিজমা

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

বাংলানিউজ: বাংলাদেশ পুলিশে কনস্টেবল পদে কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ বরিশালের সেই আছপিয়ার পরিবারের নিজস্ব জমির সন্ধান মিলেছে। তার গ্রামের বাড়ি ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার হালিমাবাদ গ্রামে।
সাড়ে ১০ শতাংশ জমির মালিক সেই আছপিয়া ইসলামের পরিবার। এমনটিই নিশ্চিত করেছেন আছপিয়ার চাচা মোশারেফ হোসেন মাতাব্বর।
তবে আছপিয়াদের পরিবার দীর্ঘদিন থেকে বরিশালের হিজলায় বসবাস করায় ওই সম্পত্তির কোন খোঁজ নেয়নি তারা। তার দাদার বাড়িতে ৮৪ শতাংশ জমির মধ্যে আছপিয়ার পরিবার সাড়ে ১০ শতাংশ পৈত্রিক সুত্রে মালিক।
আছপিয়ার চাচা মোশারেফ জানান, তার বাবা মৃত মকবুল হোসেন মাতাব্বরের চরফ্যাশন উপজেলার আমিনাবাদ ইউনিয়নের বাসিন্দা। তিনি ৮৪ শতাংশ জমির মালিক। তার ৬ জন ছেলে ও ২ জন মেয়ে রয়েছে। তারা হলেন, আমির হোসেন,হেলাল উদ্দিন, মোশারেফ হোসেন, শফিকুল ইমলাম, অহিদ উদ্দিন, নিজাম উদ্দিন, মসিনা খাতুন ও মমতাজ বেগম।
এরমধ্যে আছপিয়ার বাবা শফিকুল ইসলাম দুই বছর আগে মারা যান। তিনি ছিলেন ছেলেদের মধ্যে চতুর্থ সন্তান। এছাড়া আরেক ভাই নিজাম উদ্দিন ও বোন মসিনা খাতুনও মারা যায়। বর্তমানে ওই পরিবারে জীবিত আছেন ৪ ছেলে ও এক মেয়ে। সেই হিসেবে ৮৪ শতাংশ জমির মধ্য আছপিয়ার পরিবার পৈত্রিক সুত্রে সাড়ে ১০ শতাংশ জমির মালিক।
আছপিয়ার চাচা মোশারেফ আরও জানান, ২৫ বছর আগে আছপিয়ার বাবা শফিকুল ইমলাম তার বড় ভাইর সাথে হিজলা চলে যান। সেখানেই তিনি বিয়ে করেন এবং বসবাস শুরু করেন। তারা তাদের গ্রামের বাড়ি ভোলার চরফ্যাশনে খুব প্রয়োজন ছাড়া তেমন একটা আসতেন না। তবে তাদের সম্পত্তি এখনো আছে। যার মালিক আছপিয়ার পরিবার।
আছপিয়ার বাবা মৃত শফিকুল ইসলাম হিজলাতে একটি ফার্মের চাকুরি করতেন। গ্রামের বাড়ির সম্পত্তি থাকলেও তারা তা ভোগদখল করতে আসেননি। তবে তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি এখনও আছে।
এদিকে আছপিয়া বলে ছিলেন, হিজলায় আমাদের কোন জমি নেই,বাবা আমাদের জন্য কিছু রেখে যেতে পারেননি আর যদি রেখেও গিয়ে থাকেন আমাদেরকে বলতে পারেননি। আমাদের পূর্ব পুরুষদের বাড়ি ভোলা সেখানে কারও সাথে আমাদের যোগাযোগ নেই। ফলে সেখানে কিছু আমাদের আছে কিনা তাও জানানেই। আর সেখানকার কোন সম্পত্তি আমাদের ভোগদখলেও নেই।

সর্বশেষ