৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
আমতলী থানার ওসি একেএম মিজানুর রহমান জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত গলাচিপায় এ্যাম্বুলেন্স সেবায় চলছে রমরমা ব্যবসা। ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর চরকাউয়া থেকে বাস চলাচল শুরু পটুয়াখালী জেলা পরিষদের আয়োজনে বীর মুক্তিযোদ্ধা, আগুনে ক্ষতিগ্রস্থ ও ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে চেক প্রদান আমতলী পৌরসভায় ৪৬২১ জন হতদরিদ্রদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার স্ত্রী-বোনের টাকায় ট্রাক্টর কিনলেন পলাশ গলাচিপায় ঐতিহ্যবাহী গ্রামীন শিল্প হোগল পাতা বিলুপ্তির পথে ব্যবসায়ী নাজমুল সাদাতের পিতার জানাজা সম্পন্ন ব্যবসায়ী নাজমুল সাদাতের পিতার জানাজা সম্পন্ন মাহাফুজুর রহমানের "স্বপ্নে দেখা সেই মেয়েটি" লাজুক

কালকিনিতে স্বামী-স্ত্রীকে কুপিয়েছে সন্ত্রাসীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: মাদারীপুরের কালকিনিতে পাওনা টাকা চাওয়ায় স্বামী-স্ত্রীকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে রক্তাক্ত করেছে প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীরা বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহতরা হলো ওই থানার ৫ নং ওয়ার্ড পূর্ব চর কয়ারিয়া গ্রামের বাসিন্দা মৃত ইসমাইল হাওলাদার ছেলে মোঃ শাহিন হাওলাদার(৩০) ও তার স্ত্রী ঝনু বেগম (২৫)। গত বুধবার রাত সাড়ে দশটায় ওই এলাকার মতিউর রহমান সরদার এর বাড়িতে এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহতরা বর্তমানে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আহত সূত্রে জানা যায়,  ওই এলাকার বাসিন্দা মৃত ওয়াজেদ আলী সরদারের ছেলে মতিউর রহমান সরদার শাহিন হাওলাদার এর কাছ থেকে এক লক্ষ টাকা ধার নেয়।  সেই টাকা না দিয়ে মতিউর রহমান গ্রাম থেকে চলে যায়। পরে স্থানীয়রা সালিশ মীমাংসা করে শাহিন হাওলাদার কে মতিউর রহমানের ঘরে থাকতে বলে। দীর্ঘ কয়েক বছর যাবৎ শাহিন হাওলাদার শান্তিপূর্ণভাবে টাকা না পেয়ে ওই এলাকায় বসবাস করে আসছে। আড়াই বছর পূর্বে ওই এলাকার রোকন হাওলাদার শাহিন হাওলাদার কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা ধার নেয়।  সেই টাকা চাইতে গেলে আজ না কাল বলে রোকন সরদার তালবাহানা শুরু করে। পাওনা টাকা চাইতে গেলে অকথ্য ভাষায় শাহিন হাওলাদার কে গালিগালাজ করে। এনিয়ে উভয়ের মাঝে  দ্বন্দ্ব বিরাজমান।  ঘটনার দিন রাতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে রোকন সরদার, খোকন সরদার, হাবিব সরদার, আলী আহমেদ, জাহিদ, জিহাদ,শিমা সহ অজ্ঞাত ৪/৫ জন সন্ত্রাসীরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে তার উপরে হামলা চালায়। এ সময়  ধারালো অস্ত্রের আঘাতে বামহাত সহ সারা শরিলে নীলা ফুলা জখম হয়। তার ডাকচিৎকার শুনে স্ত্রী ঝনু বেগম তাকে বাঁচাতে আসলে তাকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে রক্তাক্ত করে। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে তাৎক্ষণিকভাবে শেবাচিমে প্রেরণ করে। বর্তমানে তারা এ হাসপাতালের অর্থোপেডিক ও চক্ষু ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ বিষয়ে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও আহতের স্বজনরা আরো জানান।
Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুনঃ

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

সর্বশেষ